ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

হাজারো মুসল্লিরর অংসগ্রহণে কুলাউড়ার সালীশ ব্যক্তিত্ব ক্বারী আব্দুল মান্নানের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৮:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
  • / ৫০৩ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের আলহাজ্ব ক্কারী আব্দুল মান্নান (৮০) ৯ সেপ্টেম্বর সোমবার সিলেট মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মৃত্যকালে স্ত্রী, দুই ছেলে, ৫ মেয়ে, নাতি-নাতনি ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে যান। মরহুমের বড় ছেলে মুফতি আব্দুর রহমান ইংল্যান্ড ভিত্তিক টিভি চ্যানেল ইকরা টিভি’র নিয়মিত আলোচক, ইশাতুল উলুম মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস, ম্যানরপার্ক শাহজালালাল মসজিদের খতিব। ছোট ছেলে ইংল্যান্ড প্রবাসী আব্দুস সালাম। ছোট মেয়ে চিকিৎসক (ডাঃ নাজমা বেগম) অন্যান্য মেয়েরা শিক্ষকতা পেশায় রয়েছেন।

মরহুম ক্বারী আব্দুল মান্নান কুলাউড়া কমলগঞ্জ ও রাজনগর এলাকায় বিভিন্ন বিচার-শালীশে নেতৃত্ব দিতে, এছাড়া এলাকার মাদ্রাসা, মসজিদ, ঈদগাঁ, প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কমিটিতে সভাপতি-সহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন দায়িত্বে ছিলেন।

তাঁর মৃত্যুতে এই এলাকার সাধারণ জনগন অভিভাবকহীন মনে করছে। আজ মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) মনোহরপুর মাদ্রাসা মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। উক্ত জানাজায় সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন অঞ্চল হতে হাজারো মুসল্লিগণ অংশগ্রহণ করেন।

শোক প্রকাশঃ রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোকাহত পরিবারবর্গের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছেন । ঠিকানা গ্রুপের চেয়ারম্যানও সাবেক এমপি এম এম শাহীন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলাদেশ জনপ্রত্যাশা প্রধান সম্পাদক এ আর নোমান, সম্পাদক ছয়ফুল আলম সাইফুল, বার্তা সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান।দেশদিগন্ত অনলাইন নিউজ অনলাইন নিউজ পোর্টাল দেশদিগন্ত ডট কমের সম্পাদক শেখ নিজামুর রহমান টিপু, জালালাবাদ বার্তা ডট কমের সম্পাদক রুহুল কুদ্দুছ চৌধুরী।

পোস্ট শেয়ার করুন

হাজারো মুসল্লিরর অংসগ্রহণে কুলাউড়ার সালীশ ব্যক্তিত্ব ক্বারী আব্দুল মান্নানের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন

আপডেটের সময় : ০৮:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের আলহাজ্ব ক্কারী আব্দুল মান্নান (৮০) ৯ সেপ্টেম্বর সোমবার সিলেট মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মৃত্যকালে স্ত্রী, দুই ছেলে, ৫ মেয়ে, নাতি-নাতনি ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে যান। মরহুমের বড় ছেলে মুফতি আব্দুর রহমান ইংল্যান্ড ভিত্তিক টিভি চ্যানেল ইকরা টিভি’র নিয়মিত আলোচক, ইশাতুল উলুম মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস, ম্যানরপার্ক শাহজালালাল মসজিদের খতিব। ছোট ছেলে ইংল্যান্ড প্রবাসী আব্দুস সালাম। ছোট মেয়ে চিকিৎসক (ডাঃ নাজমা বেগম) অন্যান্য মেয়েরা শিক্ষকতা পেশায় রয়েছেন।

মরহুম ক্বারী আব্দুল মান্নান কুলাউড়া কমলগঞ্জ ও রাজনগর এলাকায় বিভিন্ন বিচার-শালীশে নেতৃত্ব দিতে, এছাড়া এলাকার মাদ্রাসা, মসজিদ, ঈদগাঁ, প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কমিটিতে সভাপতি-সহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন দায়িত্বে ছিলেন।

তাঁর মৃত্যুতে এই এলাকার সাধারণ জনগন অভিভাবকহীন মনে করছে। আজ মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) মনোহরপুর মাদ্রাসা মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। উক্ত জানাজায় সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন অঞ্চল হতে হাজারো মুসল্লিগণ অংশগ্রহণ করেন।

শোক প্রকাশঃ রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোকাহত পরিবারবর্গের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছেন । ঠিকানা গ্রুপের চেয়ারম্যানও সাবেক এমপি এম এম শাহীন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলাদেশ জনপ্রত্যাশা প্রধান সম্পাদক এ আর নোমান, সম্পাদক ছয়ফুল আলম সাইফুল, বার্তা সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান।দেশদিগন্ত অনলাইন নিউজ অনলাইন নিউজ পোর্টাল দেশদিগন্ত ডট কমের সম্পাদক শেখ নিজামুর রহমান টিপু, জালালাবাদ বার্তা ডট কমের সম্পাদক রুহুল কুদ্দুছ চৌধুরী।