ঢাকা , সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
বাংলাদেশে কোটা আন্দোলনে হত্যার প্রতিবাদে পর্তুগালে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশী প্রবাসীরা প্রিয়জনদের মানসিক রোগ যদি আপনজন বুঝতে না পারেন আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ও অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা করেছে পর্তুগাল আওয়ামীলীগ যেকোনো প্রচেষ্টা এককভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব নয়: দুদক সচিব শ্রীমঙ্গলে দুটি চোরাই মোটরসাইকেল সহ মিল্টন কুমার আটক পর্তুগালের অভিবাসন আইনে ব্যাপক পরিবর্তন পর্তুগাল বিএনপি আহবায়ক কমিটির জুমে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয় এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর

অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৪:২৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ এপ্রিল ২০১৯
  • / ৯১৪ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ বাংলা চলচ্চিত্রের শক্তিমান অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই। শনিবার দুপুর ২টার দিকে তিনি মারা গেছেন বলে চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়েছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

জায়েদ খান জানান, টেলি সামাদ ভাইয়ের মৃত্যুর খবর একটু আগে পেয়েছি। তিনি দুপুর ২টার দিকে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আমরা এখন সেখানে যাচ্ছি। গিয়ে বিস্তারিত জানাতে পারবো।

এদিকে তার মেয়ে সোহেলা সামাদ কাকলী জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই গুরুতর অসুস্থ ছিলেন তার বাবা। গত বছর কয়েক দফায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো। তিনি জানান, টেলি সামাদের খাদ্য নালীতে সমস্যা ছিলো। শুধু তাই নয় বুকে ইনফেকশন ছিল। দীর্ঘদিন ধরে ভুগছিলেন ডায়াবেটিসেও। শেষ দিকে রক্তের প্লাটিলেটও কমে যাচ্ছিলো।

গেল বছরে থেকেই হাসপাতালে আসা যাওয়া নিয়মিত কাজে পরিনত হয়েছিলো বলেও জানান কাকলী। তবে শেষ রক্ষা হলো না টেলি সামদের। শনিবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন গুণী এই অভিনেতা।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের অত্যন্ত শক্তিশালী ও জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা টেলি সামাদ ১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। চার দশকে প্রায় ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি।

পোস্ট শেয়ার করুন

অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই

আপডেটের সময় : ০৪:২৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ এপ্রিল ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ বাংলা চলচ্চিত্রের শক্তিমান অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই। শনিবার দুপুর ২টার দিকে তিনি মারা গেছেন বলে চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়েছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

জায়েদ খান জানান, টেলি সামাদ ভাইয়ের মৃত্যুর খবর একটু আগে পেয়েছি। তিনি দুপুর ২টার দিকে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আমরা এখন সেখানে যাচ্ছি। গিয়ে বিস্তারিত জানাতে পারবো।

এদিকে তার মেয়ে সোহেলা সামাদ কাকলী জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই গুরুতর অসুস্থ ছিলেন তার বাবা। গত বছর কয়েক দফায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো। তিনি জানান, টেলি সামাদের খাদ্য নালীতে সমস্যা ছিলো। শুধু তাই নয় বুকে ইনফেকশন ছিল। দীর্ঘদিন ধরে ভুগছিলেন ডায়াবেটিসেও। শেষ দিকে রক্তের প্লাটিলেটও কমে যাচ্ছিলো।

গেল বছরে থেকেই হাসপাতালে আসা যাওয়া নিয়মিত কাজে পরিনত হয়েছিলো বলেও জানান কাকলী। তবে শেষ রক্ষা হলো না টেলি সামদের। শনিবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন গুণী এই অভিনেতা।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের অত্যন্ত শক্তিশালী ও জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা টেলি সামাদ ১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। চার দশকে প্রায় ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি।