ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হবিগঞ্জে বজ্রপাতে নিহত ৩

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৯:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯
  • / ৭৩৬ টাইম ভিউ

হবিগঞ্জের তিন উপজেলায় পৃথক বজ্রপাতে চা শ্রমিক তরুণীসহ তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। এসব ঘটনায় আরও দুইজন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- চুনারুঘাটের আমু চা বাগানের প্রদীপ উড়াও’র মেয়ে সীমা উড়াও (১৮), নবীগঞ্জেরের ৮ নম্বর ইউনিয়নের গুজাখাইড় গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে সিজিল মিয়া (৪৫) ও মাধবপুর বুল্লা গ্রামের জিতু মিয়ার ছেলে ফয়সল মিয়া (৩৭)।

শুক্রবার জেলার নবীগঞ্জ, চুনারুঘাট ও মাধবপুর উপজেলায় পৃথক বজ্রপাতে তারা মারা যান।

স্থানীয় পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সকালের দিকে বৃষ্টির সময় বাড়ির পার্শ্ববর্তী হাওরে মাছ ধরতে যান নবীগঞ্জের কৃষক সিজিল মিয়া। এসময় বজ্রাঘাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। একইদিন বেলা ১১টায় বাড়ির পার্শ্ববর্তী এলাকায় ধান কাটতে যান চা শ্রমিক তরুণী সীমা। কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে পুলপাড় এলাকায় বজ্রপাত ঘটলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এছাড়াও দুপুরের দিকে উপজেলার ছানকা বুল্লা গ্রামে জমিতে ধান কাটতে যান ফয়সল মিয়া ও তার সঙ্গীরা। কর্মরত অবস্থায় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলে মারা যান ফয়সল। এসময় আহত হন একই গ্রামের মাহফুজ মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া ও কালা মিয়ার ছেলে সামছু মিয়া।

হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফজলুল জাহিদ পাভেল এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, নিহতদের সব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে সরকারি সহায়তা দেওয়া হবে।

পোস্ট শেয়ার করুন

হবিগঞ্জে বজ্রপাতে নিহত ৩

আপডেটের সময় : ০৯:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯

হবিগঞ্জের তিন উপজেলায় পৃথক বজ্রপাতে চা শ্রমিক তরুণীসহ তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। এসব ঘটনায় আরও দুইজন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- চুনারুঘাটের আমু চা বাগানের প্রদীপ উড়াও’র মেয়ে সীমা উড়াও (১৮), নবীগঞ্জেরের ৮ নম্বর ইউনিয়নের গুজাখাইড় গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে সিজিল মিয়া (৪৫) ও মাধবপুর বুল্লা গ্রামের জিতু মিয়ার ছেলে ফয়সল মিয়া (৩৭)।

শুক্রবার জেলার নবীগঞ্জ, চুনারুঘাট ও মাধবপুর উপজেলায় পৃথক বজ্রপাতে তারা মারা যান।

স্থানীয় পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সকালের দিকে বৃষ্টির সময় বাড়ির পার্শ্ববর্তী হাওরে মাছ ধরতে যান নবীগঞ্জের কৃষক সিজিল মিয়া। এসময় বজ্রাঘাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। একইদিন বেলা ১১টায় বাড়ির পার্শ্ববর্তী এলাকায় ধান কাটতে যান চা শ্রমিক তরুণী সীমা। কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে পুলপাড় এলাকায় বজ্রপাত ঘটলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এছাড়াও দুপুরের দিকে উপজেলার ছানকা বুল্লা গ্রামে জমিতে ধান কাটতে যান ফয়সল মিয়া ও তার সঙ্গীরা। কর্মরত অবস্থায় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলে মারা যান ফয়সল। এসময় আহত হন একই গ্রামের মাহফুজ মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া ও কালা মিয়ার ছেলে সামছু মিয়া।

হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফজলুল জাহিদ পাভেল এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, নিহতদের সব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে সরকারি সহায়তা দেওয়া হবে।