ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্থানীয় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা এ হামলা চালিয়েছে, সাংসদ মোকাব্বির

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৭:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০
  • / ৩৯৪ টাইম ভিউ

সিলেটের বিশ্বনাথে সিলেট-২ (ওসমানীনগর-বিশ্বনাথ) আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খানের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত গাড়িতে হামলা করে গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা এ হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন সাংসদ মোকাব্বির খান।

আজ সোমবার (১০ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা সদরের উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সোমবার সকাল ১১টায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা আহ্বান করা হয়। স্থানীয় সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রবেশের পথে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ের সামনে আসামাত্র উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী সাংসদকে বহন করা গাড়িতে হামলা করে গাড়ি ভাংচুর করেন। তবে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা সাংসদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সাংসদ মোকাব্বির খান বলেন, ‘আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদে না যাওয়ার জন্য অনেক হুমকি এসেছিল। আমি জনগণের সেবা করার জন্য তারা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। তখনই তো আমার জীবনের মায়া ছেড়ে আমি সংসদে গিয়েছি। আর এখন আমার ওপর সন্ত্রাসী হামলা হবে- সেটা আমি কখনও ভয় করি না।’

সাংসদ মোকাব্বির খান তার ওপর এই সন্ত্রাসী হামলা দুঃখজনক বলে অভিহিত করে সভায় উপস্থিত থাকা থানার ওসি শামীম মুসাকে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

এছাড়া সভায় সাংসদের গাড়িতে হামলাকারীদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সাংবদিকদের বলেন, ‘আমাদের উপর আনিত অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট। এমপি সাহেব জনবিচ্ছিন্ন হয়েছেন। সাধারণ জনগণ তাঁর গাড়ি ভাংচুর করেছে শুনে আমরা তাকে নিরাপদে নিয়ে এসেছি।’

বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান বলেন, ‘এমপির গাড়ি ভাংচুরের বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা বলেন, ‘তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্বনাথ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বর্ণালী পাল বলেন, ‘বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। পুলিশ প্রশাসন তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খান বলেন, ‘উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রবেশের পথে কিছু উশৃঙ্খল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী গাড়ি ভাংচুর করেছে। কী কারণে তারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তা বুঝে উঠতে পারছি না। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। জড়িতদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

পোস্ট শেয়ার করুন

স্থানীয় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা এ হামলা চালিয়েছে, সাংসদ মোকাব্বির

আপডেটের সময় : ০৭:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০

সিলেটের বিশ্বনাথে সিলেট-২ (ওসমানীনগর-বিশ্বনাথ) আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খানের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত গাড়িতে হামলা করে গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা এ হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন সাংসদ মোকাব্বির খান।

আজ সোমবার (১০ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা সদরের উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সোমবার সকাল ১১টায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা আহ্বান করা হয়। স্থানীয় সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রবেশের পথে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ের সামনে আসামাত্র উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী সাংসদকে বহন করা গাড়িতে হামলা করে গাড়ি ভাংচুর করেন। তবে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা সাংসদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সাংসদ মোকাব্বির খান বলেন, ‘আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদে না যাওয়ার জন্য অনেক হুমকি এসেছিল। আমি জনগণের সেবা করার জন্য তারা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। তখনই তো আমার জীবনের মায়া ছেড়ে আমি সংসদে গিয়েছি। আর এখন আমার ওপর সন্ত্রাসী হামলা হবে- সেটা আমি কখনও ভয় করি না।’

সাংসদ মোকাব্বির খান তার ওপর এই সন্ত্রাসী হামলা দুঃখজনক বলে অভিহিত করে সভায় উপস্থিত থাকা থানার ওসি শামীম মুসাকে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

এছাড়া সভায় সাংসদের গাড়িতে হামলাকারীদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সাংবদিকদের বলেন, ‘আমাদের উপর আনিত অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট। এমপি সাহেব জনবিচ্ছিন্ন হয়েছেন। সাধারণ জনগণ তাঁর গাড়ি ভাংচুর করেছে শুনে আমরা তাকে নিরাপদে নিয়ে এসেছি।’

বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান বলেন, ‘এমপির গাড়ি ভাংচুরের বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা বলেন, ‘তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্বনাথ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বর্ণালী পাল বলেন, ‘বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। পুলিশ প্রশাসন তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খান বলেন, ‘উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রবেশের পথে কিছু উশৃঙ্খল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী গাড়ি ভাংচুর করেছে। কী কারণে তারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তা বুঝে উঠতে পারছি না। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। জড়িতদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’