ঢাকা , রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

সেই বিধবাকে ঘর তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস এডিশনাল এসপির

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্ক:
  • আপডেটের সময় : ০৬:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯
  • / ৮৭৯ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্ক:  চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে সত্তোরোর্ধ বিধবা নুর জাহানের গুঁড়িয়ে দেওয়া বসতঘর মঙ্গলবার সকালে পরিদর্শন করেছেন এডিশনাল এসপি (সীতাকুণ্ড সার্কেল) শম্পা রানী সাহা। এ সময় তিনি ঘরটি আবার তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস দেন নুর জাহানকে।  এদিকে এ ঘটনায় উপজেলার ছলিমপুর এলাকা থেকে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় বৃদ্ধার ছেলে বাদী হয়ে মামলা (মামলা নং ১৪) করার পরপরই পুলিশ মোহাম্মদ ফারুক ও তার ভাই মোহাম্মদ আজিজ মিয়াকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। তারা ওই এলাকার মোহাম্মদ শফির ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে মুখোশ পরা অস্ত্রধারী ২০-২৫ জন দুর্বৃত্ত ছলিমপুর ইউনিয়নের মধ্যম ছলিমপুর পুরাতন দাইয়াবাড়ির মৃত শাহা আলম ড্রাইভারের বসতঘর ভাঙচুর করে। এ সময় ঘরের চাল-বেড়াসহ বিভিন্ন অসবাবপত্র পাশের পুকুরে ফেলে দেয় তারা। এছাড়াও বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হন ফরিদা ইয়াছমিন (২৫) ও কামরুন্নাহার (২৫) নামে দুই নারী। নুর জাহান বলেন, আমাদের বসতঘরের জায়গা নিয়ে স্থানীয় ওসমান ফারুক, মোহাম্মদ মিয়া ও দিদারের সঙ্গে বিরোধ চলছে। এ বিষয়ে আদালতে মামলাও চলামান রয়েছে। বৃহস্পবিার রাতে তারা সন্ত্রাসী নিয়ে এসে বসতঘরটি ভাঙচুর করে। বসতঘরে থাকা টাকা, মোবাইলসহ স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) শম্পা রানী সাহা বলেন, জায়গা নিয়ে মামলা মোকদ্দমা থাকতে পারে। তাই বলে রাতের আঁধারে বসতঘর গুঁড়িয়ে মালামাল লুট করে নিবে তা কখনো হতে পারে না। কেউ আইনের ঊর্ধে না।  সন্ত্রাসী-ভূমিদস্যু যত বড় হোক না কেন, তাদের আইনের আওতায় আসতে হবে।  তিনি আরও বলেন, বিধবা নুর জাহান খুবই নিরীহ। তার গুঁড়িয়ে দেওয়া বসতঘরটি আবার তৈরি করে দেওয়া হবে।অন্যদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শওকত বলেন, মামলা দায়েরের পর ঘটনার সঙ্গে জড়িদ দুইজনকে আটক করে মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ভাঙচুর করার কিছু সরঞ্জামও উদ্ধার করা হয়েছে।

পোস্ট শেয়ার করুন

সেই বিধবাকে ঘর তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস এডিশনাল এসপির

আপডেটের সময় : ০৬:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্ক:  চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে সত্তোরোর্ধ বিধবা নুর জাহানের গুঁড়িয়ে দেওয়া বসতঘর মঙ্গলবার সকালে পরিদর্শন করেছেন এডিশনাল এসপি (সীতাকুণ্ড সার্কেল) শম্পা রানী সাহা। এ সময় তিনি ঘরটি আবার তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস দেন নুর জাহানকে।  এদিকে এ ঘটনায় উপজেলার ছলিমপুর এলাকা থেকে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় বৃদ্ধার ছেলে বাদী হয়ে মামলা (মামলা নং ১৪) করার পরপরই পুলিশ মোহাম্মদ ফারুক ও তার ভাই মোহাম্মদ আজিজ মিয়াকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। তারা ওই এলাকার মোহাম্মদ শফির ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে মুখোশ পরা অস্ত্রধারী ২০-২৫ জন দুর্বৃত্ত ছলিমপুর ইউনিয়নের মধ্যম ছলিমপুর পুরাতন দাইয়াবাড়ির মৃত শাহা আলম ড্রাইভারের বসতঘর ভাঙচুর করে। এ সময় ঘরের চাল-বেড়াসহ বিভিন্ন অসবাবপত্র পাশের পুকুরে ফেলে দেয় তারা। এছাড়াও বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হন ফরিদা ইয়াছমিন (২৫) ও কামরুন্নাহার (২৫) নামে দুই নারী। নুর জাহান বলেন, আমাদের বসতঘরের জায়গা নিয়ে স্থানীয় ওসমান ফারুক, মোহাম্মদ মিয়া ও দিদারের সঙ্গে বিরোধ চলছে। এ বিষয়ে আদালতে মামলাও চলামান রয়েছে। বৃহস্পবিার রাতে তারা সন্ত্রাসী নিয়ে এসে বসতঘরটি ভাঙচুর করে। বসতঘরে থাকা টাকা, মোবাইলসহ স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) শম্পা রানী সাহা বলেন, জায়গা নিয়ে মামলা মোকদ্দমা থাকতে পারে। তাই বলে রাতের আঁধারে বসতঘর গুঁড়িয়ে মালামাল লুট করে নিবে তা কখনো হতে পারে না। কেউ আইনের ঊর্ধে না।  সন্ত্রাসী-ভূমিদস্যু যত বড় হোক না কেন, তাদের আইনের আওতায় আসতে হবে।  তিনি আরও বলেন, বিধবা নুর জাহান খুবই নিরীহ। তার গুঁড়িয়ে দেওয়া বসতঘরটি আবার তৈরি করে দেওয়া হবে।অন্যদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শওকত বলেন, মামলা দায়েরের পর ঘটনার সঙ্গে জড়িদ দুইজনকে আটক করে মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ভাঙচুর করার কিছু সরঞ্জামও উদ্ধার করা হয়েছে।