ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

সিলেটের রাজপথে আ.লীগ-বিএনপি পাঁচ বছর পর একই দিনে নামছে মাঠে

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • / ১৭৩ টাইম ভিউ

কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নানা ইস্যূতে সিলেটের রাজপথে সরব বিএনপি। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ও দিবসভিত্তিক কর্মসূচি পালন করছে আওয়ামী লীগ। রাজপথে নিজেদের কর্মসূচি পালন করলেও দীর্ঘদিন ধরে মুখোমুখি হয়নি দু’দল। ফলে এতোদিন সিলেটের রাজপথও ছিল শান্তিপূর্ণ। কিন্তু এবার একই দিনে বৃহৎ কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সিলেটে বিভাগীয় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। আর একই দিনে ‘শান্তি সমাবেশ’ করার ঘোষণা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। দীর্ঘদিন পর রাজপথে দু’দলের মুখোমুখি হওয়া নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে চাপা আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
সিলেটের রাজপথে সর্বশেষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মুখোমুখি হয়েছিল ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন খালেদা জিয়ার সাজার রায়কে কেন্দ্র করে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছিল। দুই দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়। ব্যবহার হয় আগ্নেয়াস্ত্রেরও। এরপর উভয় দল নানা ইস্যূতে রাজপথে কর্মসূচি পালন করে গেলেও কখনো মুখোমুখি হয়নি। ফলে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনারও মুখাপেক্ষী হতে হয়নি নগরবাসীকে।

গত বছরের ৬ নভেম্বর জেলা বিএনপির সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আ ফ ম কামাল হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে রাতে নগরীর রিকাবীবাজারে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয় বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের। কামালের মৃত্যুতে ওই রাতে বিএনপি তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল বের করলে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সাথে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হয়।
এদিকে, দীর্ঘদিন পর পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি নিয়ে শনিবার রাজপথে মুখোমুখি হচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বেলা ২টায় রেজিস্ট্রারি মাঠে বিভাগীয় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। ‘গণতন্ত্র পুণরুদ্ধারে’ বিএনপির ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নে কেন্দ্র থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সমাবেশ সফলে গেল প্রায় এক সপ্তাহ ধরে জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে তারা মতবিনিময় করেছেন। সমাবেশের বিষয়টি অবহিত করে দলটির পক্ষ থেকে মহানগর পুলিশ কমিশনার বরাবরে চিঠিও দেওয়া হয়েছে।
এদিকে, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রথমে একই স্থানে সমাবেশের ঘোষনা দেওয়া হয়েছিল। জেলা আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক মো. মজির উদ্দিন প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছিল শনিবার সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠে শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পরে আরেক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রেজিস্ট্রারি মাঠে অন্য আরো একটি দলের সমাবেশ থাকায় শনিবার বিকেল ৩টায় সিলেট শহিদমিনারের সামনে শান্তি সমাবেশ করবে আওয়ামী লীগ।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বলেন, ‘শান্তি সমাবেশ বিএনপির কর্মসূচির পাল্টা নয়। কেন্দ্রের নির্দেশে আওয়ামী লীগ এ কর্মসূচি পালন করবে। বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য ও অগ্নিসন্ত্রাসের প্রতিবাদে এই শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।’
সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বলেন, ‘বিভাগীয় সমাবেশের জন্য সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। দলের নেতাকর্মী ছাড়াও সাধারণ মানুষ এই সমাবেশে যোগ দিতে উদগ্রিব।’
মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মিফতাহ সিদ্দিকী বলেন, ‘সিলেটের রাজনীতিতে সম্প্রীতির ঐতিহ্য রয়েছে। আমরা আশাবাদী এটা কেউ নষ্ট করার চেষ্টা করবেন না। যার যার কর্মসূচি যার যার মতো করে পালন করবেন। তবে কোন প্রতিবন্ধকতা আসলে সেটা জয় করে বিএনপি নেতাকর্মীরা তাদের কর্মসূচি সফল করবে। সেরকম প্রস্তুতিও বিএনপির রয়েছে।

পোস্ট শেয়ার করুন

সিলেটের রাজপথে আ.লীগ-বিএনপি পাঁচ বছর পর একই দিনে নামছে মাঠে

আপডেটের সময় : ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নানা ইস্যূতে সিলেটের রাজপথে সরব বিএনপি। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ও দিবসভিত্তিক কর্মসূচি পালন করছে আওয়ামী লীগ। রাজপথে নিজেদের কর্মসূচি পালন করলেও দীর্ঘদিন ধরে মুখোমুখি হয়নি দু’দল। ফলে এতোদিন সিলেটের রাজপথও ছিল শান্তিপূর্ণ। কিন্তু এবার একই দিনে বৃহৎ কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সিলেটে বিভাগীয় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। আর একই দিনে ‘শান্তি সমাবেশ’ করার ঘোষণা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। দীর্ঘদিন পর রাজপথে দু’দলের মুখোমুখি হওয়া নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে চাপা আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
সিলেটের রাজপথে সর্বশেষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মুখোমুখি হয়েছিল ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন খালেদা জিয়ার সাজার রায়কে কেন্দ্র করে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছিল। দুই দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়। ব্যবহার হয় আগ্নেয়াস্ত্রেরও। এরপর উভয় দল নানা ইস্যূতে রাজপথে কর্মসূচি পালন করে গেলেও কখনো মুখোমুখি হয়নি। ফলে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনারও মুখাপেক্ষী হতে হয়নি নগরবাসীকে।

গত বছরের ৬ নভেম্বর জেলা বিএনপির সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আ ফ ম কামাল হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে রাতে নগরীর রিকাবীবাজারে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয় বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের। কামালের মৃত্যুতে ওই রাতে বিএনপি তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল বের করলে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সাথে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হয়।
এদিকে, দীর্ঘদিন পর পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি নিয়ে শনিবার রাজপথে মুখোমুখি হচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বেলা ২টায় রেজিস্ট্রারি মাঠে বিভাগীয় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। ‘গণতন্ত্র পুণরুদ্ধারে’ বিএনপির ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নে কেন্দ্র থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সমাবেশ সফলে গেল প্রায় এক সপ্তাহ ধরে জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে তারা মতবিনিময় করেছেন। সমাবেশের বিষয়টি অবহিত করে দলটির পক্ষ থেকে মহানগর পুলিশ কমিশনার বরাবরে চিঠিও দেওয়া হয়েছে।
এদিকে, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রথমে একই স্থানে সমাবেশের ঘোষনা দেওয়া হয়েছিল। জেলা আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক মো. মজির উদ্দিন প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছিল শনিবার সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠে শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পরে আরেক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রেজিস্ট্রারি মাঠে অন্য আরো একটি দলের সমাবেশ থাকায় শনিবার বিকেল ৩টায় সিলেট শহিদমিনারের সামনে শান্তি সমাবেশ করবে আওয়ামী লীগ।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বলেন, ‘শান্তি সমাবেশ বিএনপির কর্মসূচির পাল্টা নয়। কেন্দ্রের নির্দেশে আওয়ামী লীগ এ কর্মসূচি পালন করবে। বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য ও অগ্নিসন্ত্রাসের প্রতিবাদে এই শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।’
সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বলেন, ‘বিভাগীয় সমাবেশের জন্য সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। দলের নেতাকর্মী ছাড়াও সাধারণ মানুষ এই সমাবেশে যোগ দিতে উদগ্রিব।’
মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মিফতাহ সিদ্দিকী বলেন, ‘সিলেটের রাজনীতিতে সম্প্রীতির ঐতিহ্য রয়েছে। আমরা আশাবাদী এটা কেউ নষ্ট করার চেষ্টা করবেন না। যার যার কর্মসূচি যার যার মতো করে পালন করবেন। তবে কোন প্রতিবন্ধকতা আসলে সেটা জয় করে বিএনপি নেতাকর্মীরা তাদের কর্মসূচি সফল করবে। সেরকম প্রস্তুতিও বিএনপির রয়েছে।