ঢাকা , সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে মৌলভীবাজারের ২ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার:
  • আপডেটের সময় : ১০:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ মার্চ ২০১৯
  • / ৮৮২ টাইম ভিউ

মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের দায়ে সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ ঢাকার বিশেষ আদালতে মৌলভীবাজারে অনলাইন পত্রিকার মশাহিদ আহমদ ও আব্দুল বাছিত খান নামক ২ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় গত ০৩ই মার্চ এই মামলাটি দায়ের করেন কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ও দৈনিক ইনকিলাবের উপজেলা প্রতিনিধি মাঞ্জুরুল হক।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২৬শে জানুয়ারি “মৌলভীবাজারে শিল্প ও বানিজ্যমেলায় কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের ২ শিক্ষক আটক ও মুচলেখা দিয়ে মুক্ত” শিরোনামে অনাবিল ডটকম ও অপরাধ অনুসন্ধান নামক দু’টি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি সম্পুর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। ঘটনার সাথে প্রতিবেদনের কোন মিল নেই। ফলে মামলার বাদি কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ও দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিনিধি মাঞ্জুরুল হক অনলাইন পত্রিকা অনাবিল ডটকমের প্রতিনিধি মশাহিদ আহমদ ও অপরাধ অনুসন্ধানের প্রতিনিধি আব্দুল বাছিত খানের কাছে প্রথমে প্রতিবাদ ও পরে উকিল নোটিশ দেন। কিন্তু তারা উকিল নোটিশের কোন জবাব না দেয়ায় তাদের বিরুদ্ধে সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ, ঢাকার বিশেষ আদালতে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা (নং ৪৩/২০১৯) দায়ের করেন।

অনলাইন পত্রিকা অনাবিল ডটকমের প্রতিনিধি মশাহিদ আহমদ মৌলভীবাজার সদরের আনিকেলীবুদা গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের পুত্র ও অপরাধ অনুসন্ধানের প্রতিনিধি আব্দুল বাছিত খান কমলগঞ্জ উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের পুত্র।
মামলার বাদি অভিযোগে আরও উল্লেখ করেন, উক্ত সাংবাদিকরা নিরীহ মানুষকে হয়রানি করে চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত রয়েছে। তারা মৌলভীবাজারে শিল্প ও বানিজ্যমেলায় কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের ২ শিক্ষক আটক ও মুচলেখা দিয়ে মুক্ত শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে। এই ঘটনার সাথে বাস্তবে মাঞ্জুরুল হকের কোন সম্পৃক্ততা নেই। অথচ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক থেকে ছবি নিয়ে মিথ্যা সংবাদটি প্রকাশ করা হয়। এতে মামলার বাদির সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন ও মান সম্মান বিনষ্ট হয়। তিনি সংবাদের প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদ না প্রকাশ করায় উকিল নোটিশ করেন। কিন্তু অভিযুক্ত সাংবাদিকরা উকিল নোটিশের কোন জবাব দেননি। ফলে বাধ্য হয়ে তিনি আদালতের দ্বারস্থ হন এবং মামলা দায়ের করেন।

সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ ঢাকার বিশেষ আদালতে মৌলভীবাজারের সাংবাদিকদের নামে এটি প্রথম মামলা বলে জানিয়েছেন উক্ত মামলার আইনজীবি অ্যাডভোকেট সোহেল ইসলাম খান।#

পোস্ট শেয়ার করুন

সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে মৌলভীবাজারের ২ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

আপডেটের সময় : ১০:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ মার্চ ২০১৯

মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের দায়ে সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ ঢাকার বিশেষ আদালতে মৌলভীবাজারে অনলাইন পত্রিকার মশাহিদ আহমদ ও আব্দুল বাছিত খান নামক ২ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় গত ০৩ই মার্চ এই মামলাটি দায়ের করেন কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ও দৈনিক ইনকিলাবের উপজেলা প্রতিনিধি মাঞ্জুরুল হক।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২৬শে জানুয়ারি “মৌলভীবাজারে শিল্প ও বানিজ্যমেলায় কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের ২ শিক্ষক আটক ও মুচলেখা দিয়ে মুক্ত” শিরোনামে অনাবিল ডটকম ও অপরাধ অনুসন্ধান নামক দু’টি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি সম্পুর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। ঘটনার সাথে প্রতিবেদনের কোন মিল নেই। ফলে মামলার বাদি কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ও দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিনিধি মাঞ্জুরুল হক অনলাইন পত্রিকা অনাবিল ডটকমের প্রতিনিধি মশাহিদ আহমদ ও অপরাধ অনুসন্ধানের প্রতিনিধি আব্দুল বাছিত খানের কাছে প্রথমে প্রতিবাদ ও পরে উকিল নোটিশ দেন। কিন্তু তারা উকিল নোটিশের কোন জবাব না দেয়ায় তাদের বিরুদ্ধে সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ, ঢাকার বিশেষ আদালতে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা (নং ৪৩/২০১৯) দায়ের করেন।

অনলাইন পত্রিকা অনাবিল ডটকমের প্রতিনিধি মশাহিদ আহমদ মৌলভীবাজার সদরের আনিকেলীবুদা গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের পুত্র ও অপরাধ অনুসন্ধানের প্রতিনিধি আব্দুল বাছিত খান কমলগঞ্জ উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের পুত্র।
মামলার বাদি অভিযোগে আরও উল্লেখ করেন, উক্ত সাংবাদিকরা নিরীহ মানুষকে হয়রানি করে চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত রয়েছে। তারা মৌলভীবাজারে শিল্প ও বানিজ্যমেলায় কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের ২ শিক্ষক আটক ও মুচলেখা দিয়ে মুক্ত শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে। এই ঘটনার সাথে বাস্তবে মাঞ্জুরুল হকের কোন সম্পৃক্ততা নেই। অথচ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক থেকে ছবি নিয়ে মিথ্যা সংবাদটি প্রকাশ করা হয়। এতে মামলার বাদির সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন ও মান সম্মান বিনষ্ট হয়। তিনি সংবাদের প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদ না প্রকাশ করায় উকিল নোটিশ করেন। কিন্তু অভিযুক্ত সাংবাদিকরা উকিল নোটিশের কোন জবাব দেননি। ফলে বাধ্য হয়ে তিনি আদালতের দ্বারস্থ হন এবং মামলা দায়ের করেন।

সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ ঢাকার বিশেষ আদালতে মৌলভীবাজারের সাংবাদিকদের নামে এটি প্রথম মামলা বলে জানিয়েছেন উক্ত মামলার আইনজীবি অ্যাডভোকেট সোহেল ইসলাম খান।#