ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

সকলের ভালবাসা নিয়ে সুন্দর মডেল শরিফপুর গড়তে চাই —এমডি আবুল হোসেন

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০১:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অগাস্ট ২০২০
  • / ১৫০০ টাইম ভিউ

আসলামুআলাইকুম ১১নং শরীফপুরবাসীসহ সকলকে জানাই জুম্মা মোবারক, ও
গত ১৪/০৬/২০২০ আমার সম্মানিত আব্বা মৃত্যুবরণ করেছেন সকলের কাছে দোয়া চাই।
১১নং শরীফপুর ও ছাত্রদল নিয়ে কিছু কথা আমার জন্ম গ্রামের একান্নবর্তী পরিবার থেকে বেড়ে উঠা, যখন আমি ক্লাস ওয়ানে পড়ি তখন থেকে ক্লাস সিক্স পর্যন্ত আমাকে প্রাইভেট পড়াতেন তৎকালীন সময়ের ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি নাম বললাম না উনি এখন সরকারী চাকুরীজীবি।তখন পড়ার পাশাপাশি স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াউর রহমান ও জাতীয়তাবাদী গল্প শুনতাম সে সময় আমার মেজ চাচা ছিলেন জাতীয়তাবাদী আদর্শের নিবেদিত সৈনিক।
সে সময় জাতীয়তাবাদী দলের প্রেমে পড়ি সেই স্কুল জীবন থেকে ১১নং শরীফপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলে দলের মূল ধারায় রাজনীতি করি নিবেদিত ভাবে। দলে দুইরকম লোক থাকে সুবিধাবাদী ও সুবিধাভোগী আমার বুঝামতো দুইটি জাতীয় নির্বাচন দেখেছি তখনই দলের আদর্শ মেনে ধানের শীষের জন্য কাজ করি। যতটুকু মনে পড়ে হাতেগুনা কয়েকজনের মধ্যে ছিলাম বাকী অনেক সুবিধাভোগীরা ব্যক্তি রাজনীতিতে মগ্ন ছিলেন। বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি কখনো দলের সাথে বেইমানী করিনি, করবো না কখনো। যাইহোক সেই ১১নং শরীফপুর, ২০০৯ সালে কুলাউড়া উপজেলা ছাত্রদলে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ছিলাম, পাশাপাশি সিলেটের অন্যতম বিদ্যাপিট এম সি কলেজে, ও সিলেট মহানগর ছাত্রদল,সাবেক সহ -মানবাধিকার সম্পাদক, ও সহ -সাধারণ সম্পাদক,
সিলেট ল,কলেজে ছাত্রদল করি।
কুলাউড়ায় দলের মনোনীত প্রার্থী সম্মানিত এড.আবেদ রাজা ভাইয়ের সাথে, মৌলভীবাজারে সম্মানিত ছাত্রদলের সোনালি ফসল সম্মানিত জাকির হোসেন উজ্জ্বল ভাইয়ের নেতৃত্বে, ও কুলাউড়ায় সম্মানিত কাউসার আহমদ নিপার ভাইয়ের ভালবাসা নিয়ে,
সিলেটে আমার রাজনৈতিক অভিভাবক জনাব এড.জামান ভাইয়ের দিক নিদর্শনায় আজো সিলেট মহানগর রাজনীতি করি, করবো ইনশাআল্লাহ।
পরিশেষে কথাহলো আমি স্বপ্ন দেখি আমার জন্মস্থল ১১নং শরীফপুর নিয়ে ও জাতীয়তাবাদী দলেসহ সকলের ভালবাসা নিয়ে সুন্দর মডেল শরীফপুর গড়তে।
আমার বিশ্বাস জাতীয়তাবাদী দল দলের সুবিধাবাদী, সুবিধাভোগী, হঠাৎ রাজনীতিতে আসা দলছুট লোকদেরকে মূল্যায়ন না করে, নিবেদিত দলের আদর্শের লোকদেরকে মূল্যায়ন করবেন। “নামে নয় কর্মেই হউক পরিচয় “

পোস্ট শেয়ার করুন

সকলের ভালবাসা নিয়ে সুন্দর মডেল শরিফপুর গড়তে চাই —এমডি আবুল হোসেন

আপডেটের সময় : ০১:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অগাস্ট ২০২০

আসলামুআলাইকুম ১১নং শরীফপুরবাসীসহ সকলকে জানাই জুম্মা মোবারক, ও
গত ১৪/০৬/২০২০ আমার সম্মানিত আব্বা মৃত্যুবরণ করেছেন সকলের কাছে দোয়া চাই।
১১নং শরীফপুর ও ছাত্রদল নিয়ে কিছু কথা আমার জন্ম গ্রামের একান্নবর্তী পরিবার থেকে বেড়ে উঠা, যখন আমি ক্লাস ওয়ানে পড়ি তখন থেকে ক্লাস সিক্স পর্যন্ত আমাকে প্রাইভেট পড়াতেন তৎকালীন সময়ের ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি নাম বললাম না উনি এখন সরকারী চাকুরীজীবি।তখন পড়ার পাশাপাশি স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াউর রহমান ও জাতীয়তাবাদী গল্প শুনতাম সে সময় আমার মেজ চাচা ছিলেন জাতীয়তাবাদী আদর্শের নিবেদিত সৈনিক।
সে সময় জাতীয়তাবাদী দলের প্রেমে পড়ি সেই স্কুল জীবন থেকে ১১নং শরীফপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলে দলের মূল ধারায় রাজনীতি করি নিবেদিত ভাবে। দলে দুইরকম লোক থাকে সুবিধাবাদী ও সুবিধাভোগী আমার বুঝামতো দুইটি জাতীয় নির্বাচন দেখেছি তখনই দলের আদর্শ মেনে ধানের শীষের জন্য কাজ করি। যতটুকু মনে পড়ে হাতেগুনা কয়েকজনের মধ্যে ছিলাম বাকী অনেক সুবিধাভোগীরা ব্যক্তি রাজনীতিতে মগ্ন ছিলেন। বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি কখনো দলের সাথে বেইমানী করিনি, করবো না কখনো। যাইহোক সেই ১১নং শরীফপুর, ২০০৯ সালে কুলাউড়া উপজেলা ছাত্রদলে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ছিলাম, পাশাপাশি সিলেটের অন্যতম বিদ্যাপিট এম সি কলেজে, ও সিলেট মহানগর ছাত্রদল,সাবেক সহ -মানবাধিকার সম্পাদক, ও সহ -সাধারণ সম্পাদক,
সিলেট ল,কলেজে ছাত্রদল করি।
কুলাউড়ায় দলের মনোনীত প্রার্থী সম্মানিত এড.আবেদ রাজা ভাইয়ের সাথে, মৌলভীবাজারে সম্মানিত ছাত্রদলের সোনালি ফসল সম্মানিত জাকির হোসেন উজ্জ্বল ভাইয়ের নেতৃত্বে, ও কুলাউড়ায় সম্মানিত কাউসার আহমদ নিপার ভাইয়ের ভালবাসা নিয়ে,
সিলেটে আমার রাজনৈতিক অভিভাবক জনাব এড.জামান ভাইয়ের দিক নিদর্শনায় আজো সিলেট মহানগর রাজনীতি করি, করবো ইনশাআল্লাহ।
পরিশেষে কথাহলো আমি স্বপ্ন দেখি আমার জন্মস্থল ১১নং শরীফপুর নিয়ে ও জাতীয়তাবাদী দলেসহ সকলের ভালবাসা নিয়ে সুন্দর মডেল শরীফপুর গড়তে।
আমার বিশ্বাস জাতীয়তাবাদী দল দলের সুবিধাবাদী, সুবিধাভোগী, হঠাৎ রাজনীতিতে আসা দলছুট লোকদেরকে মূল্যায়ন না করে, নিবেদিত দলের আদর্শের লোকদেরকে মূল্যায়ন করবেন। “নামে নয় কর্মেই হউক পরিচয় “