আপডেট

x


সংরক্ষিত মহিলা আসনে চমক দেখাতে পারেন ব্যারিষ্টার সীমা করিম

রবিবার, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯ | ৫:২০ অপরাহ্ণ | 2757 বার

সংরক্ষিত মহিলা আসনে চমক দেখাতে পারেন ব্যারিষ্টার সীমা করিম

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ছয়ফুল আলম সাইফুলঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পর থেকে আলোচনা জমেছে সংরক্ষিত মহিলা আসন নিয়ে। মৌলভীবাজার-সুনামগঞ্জ সংরক্ষিত আসনের এমপি পদের প্রত্যাশীরা লবিং চালাচ্ছেন। যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা ঢাকায় অবস্থান করে দলের হাইকমান্ডের কাছে ধরনা দিতে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। তাদের মধ্যে অন্যতম একজন তরুন আইনজীবি ব্যারিষ্টার সীমা করিম সংসদে নারীদের জন্য সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন চাইবেন।

জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন-২০০৪ অনুযায়ী, নির্বাচনের ফলাফলের গেজেট প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যে সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন (ইসি) দল ও জোটভিত্তিক তালিকা তৈরি করবে এবং ভোটার তালিকা ইসিতে টানিয়ে দেবে। এরপর ৩০০ আসনের বিপরীতে ৫০টি সংরক্ষিত আসনে দল কিংবা জোটের অনুকূলে বরাদ্দ করা হবে। গেজেট প্রকাশের নব্বই দিনের মধ্যে সংরক্ষিত নারী এমপি নির্বাচন শেষ করতে হবে ইসিকে।



এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির অন্যতম সদস্য ও দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক জানান, সংরক্ষিত মহিলা আসনে যোগ্যতম প্রার্থী অনুসন্ধান করা হচ্ছে। যারা দুর্দিনে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন এমন জনপ্রিয় নেত্রীরা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন। নেত্রী (শেখ হাসিনা) এমন গুণসম্পন্ন কর্মীর তালিকা তৈরি করছেন। এছাড়া দশম সংসদে যেসব জেলা সংরক্ষিত এমপি বঞ্চিত হয়েছে, সেসব জেলা থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিতে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করলেই আমরা দল মনোনীত প্রার্থী ঘোষণা করব।

222222222

গত ১ জানুয়ারি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের গেজেট প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। আর নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, আগামী সপ্তাহে সংরক্ষিত মহিলা আসনে তফসিল ঘোষণা করা হবে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন অনুযায়ী সংরক্ষিত ৫০টি আসনের মধ্যে এবার আওয়ামী লীগ ৪৩টি, জাতীয় পার্টি ৪টি, এক্যফ্রন্ট ১টি এবং স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দল পাবে ২টি আসন।

ব্যারিষ্টার সীমা করিম মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও বর্তমানে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদিকা। তিনি আই.এম.এফ ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের অধীনে বাংলাদেশের নারী ও শিশু উন্নয়ন বিষয়ক গবেষণা ধর্মী প্রজেক্টের একজন সদস্য হিসেবে বিভিন্ন পাবলিকেশনের অংশ গ্রহণ, ও আইন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে শিশু আইন ২০১৩ নিয়ে কাজ করেছেন। তিনি বর্তমানে জার্মানির বিখ্যাত আন্তর্জাতিক কনরার্ড এডিনর ফাউন্ডেশন স্কুল অফ ইয়ং পলিটিশিয়ন, জার্মানি এই সংগঠনে বাংলাদেশ থেকে একমাত্র তরুণ রাজনীতিবিদ হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছেন। এছাড়াও তিনি শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া, চীন, সুইডেন, জার্মানি, ফ্রান্স, ইটালি, সুইজারল্যান্ড, আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন।

পেশা জীবনে সৈয়দা সীমা করিম ব্যারিস্টার-এট-ল এডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট।উনার  পিতা সাবেক এ আইজিপি ও আওয়ামীলীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য জনাব সৈয়দ বজলুল করিম, মাতা: আছমা বেগম, পৈত্রিক সূত্রে মৌলভীবাজারের স্থায়ী বাসিন্দা, শিক্ষাজীবন: ২০০০ সালে এস.এস. সি ও ২০০২ সালে কৃতিত্বের সাথে এইচ.এস.সি পাশ করেন ভিকারুননিসা স্কুল ও কলেজ হতে। ২০০৪ সালে ডিপ্লোমা-ইন-ল ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন, ২০০৭ সালে এল.এল.বি অনার্স ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন। ২০০৮ সালে বার-এট-ল লিংকন্স ইনন্ ও পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা নর্দামব্রিয়া ইউনিভার্সিটি, নিউক্যাসেল, ইউ, কে।  ২০০৯ সালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল হতে এডভোকেটশীপ সনদ গ্রহণ করেন এবং বর্তমানে সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, কোম্পানির লিগাল এডভাইজর হিসেবে আইনি সহায়তার পাশাপাশি ব্যক্তি পর্যায়ে রিট, সিভিল ও ক্রিমিনাল মামলায় দক্ষতা ও সুনামের সাথে সাধারণ মানুষের আইনি সহায়তা দিয়ে থাকেন। সামাজিক সংগঠন সমূহের সাথে সম্পৃক্ততা: জালালাবাদ এসোসিয়েশনের আজীবন সদস্য মৌলভীবাজার জেলা সমিতির সাবেক কার্যনির্বাহী ও আজীবন সদস্য। বৃহত্তর সিলেট মিরপুর সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য, দুর্জয় ক্লাব মৌলভীবাজার এর সম্মানিত উপদেষ্টা সদস্য, হাজীপুর সোসাইটি কুলাউড়ার উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, চিটাগাং ক্লাব লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক, জালালাবাদ এসোসিয়েশনের মহিলা বিষয়ক সম্পাদীকা এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছেন।

333333333333

ব্যারিষ্টার সীমা করিম দেশদিগন্ত নিউজকে বলেন, ‘আমি পারিবারিকভাবেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনীতির আদর্শে বেড়ে উঠেছি। আমার রাজনৈতিক জীবন ছোটবেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে প্রভাবিত করেছে। রাজনীতির মাঠে ছিলাম নৌকার প্রচারণায়, এছাড়াও নানারকম সামাজিক কার্যক্রমে আমি জড়িত।

উল্লেখ্য মৌলভীবাজার -২ কুলাউড়া আসন থেকে উনার পিতা সৈয়দ বজলুল করিম দুই দুই বার মনোনয়ন কিনলেও শেখ হাসিনার নির্দেশে পরে মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন ।বজলুল করিম ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে মৌলভীবাজার-২ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পান। কিন্তু মহাজোটের সমীকরণে দুইবারই তিনি দলের জন্য সরে আসেন।অন্যদিকে এবারের নির্বাচনে এবং মন্ত্রিপরিষদ তরুণদের প্রতি যেভাবে আস্থা রাখা হয়েছে দল সেভাবে মহিলা এমপি নির্বাচনের ক্ষেত্রে আস্থা রাখলে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবেন কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-আইন সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দা সীমা করিম।

ব্যারিস্টার সীমা করিম দেশদিগন্ত নিউজকে বলেন, সভানেত্রী যেভাবে দল এবং সরকারে তরুণদের প্রতি আস্থা রাখছেন আমার বিশ্বাস সংরক্ষিত আসনের ক্ষেত্রে সে আস্থা রাখলে আমার সুযোগ আছে। সুযোগ পেলে আমি তরুণদের নিয়ে কাজ করার পাশাপাশি নেত্রীর লক্ষ্য অর্জনে ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মানে আমার মেধা ও শ্রমের সর্বোচ্চ ব্যবহার করব।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments


deshdiganto.com © 2019 কপিরাইট এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত

design and development by : http://webnewsdesign.com