ঢাকা , সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

শিক্ষকদের জন্য মাউশির ১১ নির্দেশনা

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ১১:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯
  • / ৮১০ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ   মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরাধীন স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি নিশ্চিতসহ ১১ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার মহারপিচালক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত ওই নির্দেশ জারি করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর।

নির্দেশনগুলো হলো:

১. শিক্ষকগণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি ও ফলপ্রসূ পাঠদান নিশ্চিত করতে হবে।

২. প্রাত্যহিক সমাবেশে শিক্ষার্থীদেরকে দিয়ে দুইটি নৈতিক বাক্য পাঠ করাতে হবে।

৩. শিক্ষকগণের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ শিক্ষকদের নিয়ে নিয়মিত ইন-হাউস প্রশিক্ষণের আয়োজন নিশ্চিত করবেন।

৪. নির্ধারিত শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে কোনো ক্লাস বন্ধ রাখা যাবে না।

৫. শ্রেণিকক্ষে পাঠ্যপুস্তকের বাইরে কোনো নোটবুক ও গাইড বই ব্যবহার করা যাবে না।

পোস্ট শেয়ার করুন

শিক্ষকদের জন্য মাউশির ১১ নির্দেশনা

আপডেটের সময় : ১১:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ   মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরাধীন স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি নিশ্চিতসহ ১১ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার মহারপিচালক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত ওই নির্দেশ জারি করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর।

নির্দেশনগুলো হলো:

১. শিক্ষকগণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি ও ফলপ্রসূ পাঠদান নিশ্চিত করতে হবে।

২. প্রাত্যহিক সমাবেশে শিক্ষার্থীদেরকে দিয়ে দুইটি নৈতিক বাক্য পাঠ করাতে হবে।

৩. শিক্ষকগণের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ শিক্ষকদের নিয়ে নিয়মিত ইন-হাউস প্রশিক্ষণের আয়োজন নিশ্চিত করবেন।

৪. নির্ধারিত শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে কোনো ক্লাস বন্ধ রাখা যাবে না।

৫. শ্রেণিকক্ষে পাঠ্যপুস্তকের বাইরে কোনো নোটবুক ও গাইড বই ব্যবহার করা যাবে না।