ঢাকা , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শাবিপ্রবির সহকারী লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদের বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ

দেশ দিগন্ত ডেক্স:
  • আপডেটের সময় : ০৫:৩১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অগাস্ট ২০২০
  • / ৩৫৩ টাইম ভিউ

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদের বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। “ডিপ্লোমা ইন লাইব্রেরী এন্ড ইনফরমেশন সায়েন্স” বিষয়ে সিলেট বিভাগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত জাস্ ইনস্টিটিউট (কোড-১৭৪১) ছাড়া আর কোন অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান নেই। কিন্তু শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদ মদিনা মার্কেটস্থ “বিদ্যানিকেতন” স্কুলে কোন অনুমোদন ছাড়াই প্রতিনিয়ত ছাত্রছাত্রী ভর্তি করে চলছে। এখানে সবার তথ্য সংগ্রহ করে পরবর্তীকালে ঢাকা, বগুড়া ও পটুয়াখালীর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে ভর্তি করিয়ে দেয়। পরবর্তীতে কোর্সের বিভিন্ন পরীক্ষা দিতে প্রতিনিয়ত ছাত্রছাত্রীদের ঢাকা বগুড়া ও পটুয়াখালীতে যেতে হয়। ছাত্রছাত্রীরা যখন সিলেটে স্বয়ংসম্পূর্ন প্রতিষ্ঠান জাস্ সম্পর্কে জানতে পারে এবং এর সব লিখিত পরীক্ষা সিলেট সরকারি কলেজ এবং মৌখিক পরীক্ষাগুলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিরা জাস্ ইনস্টিটিউট এ এসে নিয়ে যাওয়ার কথা জানতে পারে তখন তাদের আর কিছুই করার থাকে না। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধিমালা অনুযায়ী কোন অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের বাইরে কোন শাখা কার্যক্রম চালানো সম্পূর্ন নিষিদ্ধ থাকলেও দিনের আলোতে সবার চোখে ধূলি দিয়ে সে চালিয়ে যাচ্ছে তার অবৈধ কার্যক্রম।

এ বিষয়ে সুনামগঞ্জের তানিম হাসান নামে এক ভুক্তভোগীকে জিঙ্গেস করলে উনি বলেন- আমি কাউসার আহমদের মাধ্যমে ১৯ হাজার টাকা দেয়ে ভর্তি হয়েছিলাম। কিন্তু আমার ভর্তি হয়নি। পরবর্তীতে টাকা অবশ‍্য ফিরত পাই কিন্তু আমার জীবনে থেকে এক বছর চলে গেছে। আরেক ভূক্তভোগী সুকান্ত চক্রবর্তীকে ফোন দেওয়া হলে ফোন রিসিভ করেননি।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত জাস্ ইনস্টিটিউটের (কোড-১৭৪১) হিসাব রক্ষক সাগর তালুকদার বলেন- বিভিন্ন সময় ছাত্রছাত্রীরা এসে কাওসার আহমদের নামে প্রতারনার অভিযোগ করে। যার প্রমাণও আমরা পেয়েছি। আমি শাবি প্রশাশনের কাছে প্রতারনার দায়ে উনাকে বরখাস্ত করার দাবি জানাই।#

পোস্ট শেয়ার করুন

শাবিপ্রবির সহকারী লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদের বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ

আপডেটের সময় : ০৫:৩১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অগাস্ট ২০২০

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদের বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। “ডিপ্লোমা ইন লাইব্রেরী এন্ড ইনফরমেশন সায়েন্স” বিষয়ে সিলেট বিভাগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত জাস্ ইনস্টিটিউট (কোড-১৭৪১) ছাড়া আর কোন অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান নেই। কিন্তু শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি লাইব্রেরিয়ান কাওছার আহমদ মদিনা মার্কেটস্থ “বিদ্যানিকেতন” স্কুলে কোন অনুমোদন ছাড়াই প্রতিনিয়ত ছাত্রছাত্রী ভর্তি করে চলছে। এখানে সবার তথ্য সংগ্রহ করে পরবর্তীকালে ঢাকা, বগুড়া ও পটুয়াখালীর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে ভর্তি করিয়ে দেয়। পরবর্তীতে কোর্সের বিভিন্ন পরীক্ষা দিতে প্রতিনিয়ত ছাত্রছাত্রীদের ঢাকা বগুড়া ও পটুয়াখালীতে যেতে হয়। ছাত্রছাত্রীরা যখন সিলেটে স্বয়ংসম্পূর্ন প্রতিষ্ঠান জাস্ সম্পর্কে জানতে পারে এবং এর সব লিখিত পরীক্ষা সিলেট সরকারি কলেজ এবং মৌখিক পরীক্ষাগুলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিরা জাস্ ইনস্টিটিউট এ এসে নিয়ে যাওয়ার কথা জানতে পারে তখন তাদের আর কিছুই করার থাকে না। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধিমালা অনুযায়ী কোন অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের বাইরে কোন শাখা কার্যক্রম চালানো সম্পূর্ন নিষিদ্ধ থাকলেও দিনের আলোতে সবার চোখে ধূলি দিয়ে সে চালিয়ে যাচ্ছে তার অবৈধ কার্যক্রম।

এ বিষয়ে সুনামগঞ্জের তানিম হাসান নামে এক ভুক্তভোগীকে জিঙ্গেস করলে উনি বলেন- আমি কাউসার আহমদের মাধ্যমে ১৯ হাজার টাকা দেয়ে ভর্তি হয়েছিলাম। কিন্তু আমার ভর্তি হয়নি। পরবর্তীতে টাকা অবশ‍্য ফিরত পাই কিন্তু আমার জীবনে থেকে এক বছর চলে গেছে। আরেক ভূক্তভোগী সুকান্ত চক্রবর্তীকে ফোন দেওয়া হলে ফোন রিসিভ করেননি।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত জাস্ ইনস্টিটিউটের (কোড-১৭৪১) হিসাব রক্ষক সাগর তালুকদার বলেন- বিভিন্ন সময় ছাত্রছাত্রীরা এসে কাওসার আহমদের নামে প্রতারনার অভিযোগ করে। যার প্রমাণও আমরা পেয়েছি। আমি শাবি প্রশাশনের কাছে প্রতারনার দায়ে উনাকে বরখাস্ত করার দাবি জানাই।#