ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

“লাউয়াছড়ার ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে পর্যটকদের জন্য নীতিমালা করা হবে” –আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব

দেশদিগন্ত :
  • আপডেটের সময় : ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০১৭
  • / ৯১৪ টাইম ভিউ

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি বলেন, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান আমাদের দেশের একটি সম্পদ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে জন্য এটি উল্লেখ্যযোগ্য। “লাউয়াছড়ার ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে এখানে পর্যটকদের জন্য নীতিমালা নির্ধারণ করা হবে”।

লাউয়াছড়ার ভেতর থেকে রেল ও সড়ক পথ সরানোর জন্য আমরা এলজিইডি এবং সেতু সমন্ত্রনালয়ে প্রস্তাব দিয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। লাউয়াছড়া বনের বন্য প্রাণী এবং বনাঞ্চলের যাতে কোন ক্ষতি না হয় তার জন্য পর্যটকদের একটি নির্দিষ্ট সীমারেখার মধ্যে আমরা রাখবো। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় লাউয়াছড়া নিয়ে যে সংবাদগুলো প্রকাশ করা হয়েছে তা সরেজমিনে দেখে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করা ও সমাধানের জন্য কি কি  উদ্যোগ আমরা গ্রহণ করতে পারি তার জন্য আজ আমার এখানে আসা।

ইতিমধ্যেই এখানকার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আমি কথা বলেছি। সার্বিক উন্নয়নের জন্য তাদেরকে নির্দেশ দিয়েছি। লাউয়াছড়ার প্রাকৃতির সম্পদ রক্ষায় যা যা করা দরকার পর্যায়ক্রমে সব করা হবে। অতীতের যে কোন সরকারের তুলনায় বর্তমানে আমরা পরিবেশ, বন ও প্রাকৃতিক সম্পদকে রক্ষা করার জন্য ব্যাপক কর্যক্রম গ্রহন করেছি। আমরা ২০২১ সালের মধ্য আমাদের বনভূমিকে সংরক্ষক, উন্নয়ন ও আরো বর্ধিত করে ২০ শতাংশে উন্নয়ন করার জন্য ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহন করেছি।

শনিবার দুপুরে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আশেকুল ইসলাম, সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এ এস এম মনিরুল ইসলাম, বন্যপ্রানী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের মৌলভীবাজারের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মিহির কুমার দো, এসিএফ তবিবুর রহমান, বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সীতেশ রঞ্জন দেব, শ্রীমঙ্গলন্থ মহকুমা সহকারী বন সংরক্ষক  মনিষ চাকমা, বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব প্রমুখ ।

পরে মন্ত্রী  লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে ৭টি বন্য প্রাণী অবমুক্ত করেন। প্রাণী গুলো হলো- ১টি আজগর সাপ, ১টি মেছ বাগ, ১টি চিতা বিড়াল, ৩টি ভাইপার সাপ, ১টি ইস্টার্ন কেট সাপ।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি স্বপরিবারে লাউয়াছড়া সফরে আসলে শনিবার দুপুরে লাউয়াছড়ার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য, আবহাওয়া ও পরিবেশ-প্রতিবেশ বিষয়ে জনমত সংগ্রহ করেন।

পোস্ট শেয়ার করুন

“লাউয়াছড়ার ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে পর্যটকদের জন্য নীতিমালা করা হবে” –আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব

আপডেটের সময় : ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০১৭

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি বলেন, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান আমাদের দেশের একটি সম্পদ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে জন্য এটি উল্লেখ্যযোগ্য। “লাউয়াছড়ার ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে এখানে পর্যটকদের জন্য নীতিমালা নির্ধারণ করা হবে”।

লাউয়াছড়ার ভেতর থেকে রেল ও সড়ক পথ সরানোর জন্য আমরা এলজিইডি এবং সেতু সমন্ত্রনালয়ে প্রস্তাব দিয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। লাউয়াছড়া বনের বন্য প্রাণী এবং বনাঞ্চলের যাতে কোন ক্ষতি না হয় তার জন্য পর্যটকদের একটি নির্দিষ্ট সীমারেখার মধ্যে আমরা রাখবো। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় লাউয়াছড়া নিয়ে যে সংবাদগুলো প্রকাশ করা হয়েছে তা সরেজমিনে দেখে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করা ও সমাধানের জন্য কি কি  উদ্যোগ আমরা গ্রহণ করতে পারি তার জন্য আজ আমার এখানে আসা।

ইতিমধ্যেই এখানকার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আমি কথা বলেছি। সার্বিক উন্নয়নের জন্য তাদেরকে নির্দেশ দিয়েছি। লাউয়াছড়ার প্রাকৃতির সম্পদ রক্ষায় যা যা করা দরকার পর্যায়ক্রমে সব করা হবে। অতীতের যে কোন সরকারের তুলনায় বর্তমানে আমরা পরিবেশ, বন ও প্রাকৃতিক সম্পদকে রক্ষা করার জন্য ব্যাপক কর্যক্রম গ্রহন করেছি। আমরা ২০২১ সালের মধ্য আমাদের বনভূমিকে সংরক্ষক, উন্নয়ন ও আরো বর্ধিত করে ২০ শতাংশে উন্নয়ন করার জন্য ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহন করেছি।

শনিবার দুপুরে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আশেকুল ইসলাম, সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এ এস এম মনিরুল ইসলাম, বন্যপ্রানী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের মৌলভীবাজারের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মিহির কুমার দো, এসিএফ তবিবুর রহমান, বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সীতেশ রঞ্জন দেব, শ্রীমঙ্গলন্থ মহকুমা সহকারী বন সংরক্ষক  মনিষ চাকমা, বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব প্রমুখ ।

পরে মন্ত্রী  লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে ৭টি বন্য প্রাণী অবমুক্ত করেন। প্রাণী গুলো হলো- ১টি আজগর সাপ, ১টি মেছ বাগ, ১টি চিতা বিড়াল, ৩টি ভাইপার সাপ, ১টি ইস্টার্ন কেট সাপ।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি স্বপরিবারে লাউয়াছড়া সফরে আসলে শনিবার দুপুরে লাউয়াছড়ার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য, আবহাওয়া ও পরিবেশ-প্রতিবেশ বিষয়ে জনমত সংগ্রহ করেন।