ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে প্রাণ গেল ৩টি গরুর

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৮:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ জুলাই ২০২০
  • / ২১০ টাইম ভিউ

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়ে মারা গেছে ৩টি গরু। গতকাল শনিবার (১৮ জুলাই) দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়নের পশ্চিম কাঠালতলী গ্রামে উপজেলা তাঁতি লীগের সভাপতি ও ঠিকাদার মহিউদ্দিন আহমদ গোলজারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত ১টার দিকে হঠাৎ করে সেমিপাকা গোয়ালঘরে আগুন লাগে। এ সময় গোয়ালে থাকা গরুগুলো হাঁকডাক ও লাফালাফি করতে থাকে। গরুর হাঁক শুনে মহিউদ্দিন আহমদ গোলজার ঘর থেকে বের হয়ে গোয়ালঘরে আগুন দেখতে পান। এ সময় ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়। তবে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আসার আগেই স্থানীয়রা এসে দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এর আগেই গোয়ালে থাকা তিনটি গরু পুড়ে মারা যায়। পাশাপাশি সেখানে রাখা একটি পানির পাম্প, ধান ভাঙার মেশিন, গাড়ির টায়ারসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে যায়।
ঠিকাদার মহিউদ্দিন আহমদ গোলজার জানান, পূর্বশত্রুতার জের ধরে কেউ হয়তো তাঁর গোয়ালঘরে আগুন দিয়েছে। তা না হলে এখানে আগুন লাগার কথা নয়। তিনটি গরুসহ গোয়ালে থাকা পানির পাম্প, ধান ভাঙার মেশিন, গাড়ির টায়ারসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে তার প্রায় ৬ লাখ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি থানায় মামলা করবেন।
বড়লেখা ফায়ার সার্ভিসের ফায়ারম্যান সফিউল আলম বলেন, রাতে আমরা আগুন লাগার খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই স্থানীয়রা ফোনে জানান আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। পরে সেখানে আর যাওয়া হয়নি।

পোস্ট শেয়ার করুন

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে প্রাণ গেল ৩টি গরুর

আপডেটের সময় : ০৮:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ জুলাই ২০২০

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়ে মারা গেছে ৩টি গরু। গতকাল শনিবার (১৮ জুলাই) দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়নের পশ্চিম কাঠালতলী গ্রামে উপজেলা তাঁতি লীগের সভাপতি ও ঠিকাদার মহিউদ্দিন আহমদ গোলজারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত ১টার দিকে হঠাৎ করে সেমিপাকা গোয়ালঘরে আগুন লাগে। এ সময় গোয়ালে থাকা গরুগুলো হাঁকডাক ও লাফালাফি করতে থাকে। গরুর হাঁক শুনে মহিউদ্দিন আহমদ গোলজার ঘর থেকে বের হয়ে গোয়ালঘরে আগুন দেখতে পান। এ সময় ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়। তবে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আসার আগেই স্থানীয়রা এসে দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এর আগেই গোয়ালে থাকা তিনটি গরু পুড়ে মারা যায়। পাশাপাশি সেখানে রাখা একটি পানির পাম্প, ধান ভাঙার মেশিন, গাড়ির টায়ারসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে যায়।
ঠিকাদার মহিউদ্দিন আহমদ গোলজার জানান, পূর্বশত্রুতার জের ধরে কেউ হয়তো তাঁর গোয়ালঘরে আগুন দিয়েছে। তা না হলে এখানে আগুন লাগার কথা নয়। তিনটি গরুসহ গোয়ালে থাকা পানির পাম্প, ধান ভাঙার মেশিন, গাড়ির টায়ারসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে তার প্রায় ৬ লাখ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি থানায় মামলা করবেন।
বড়লেখা ফায়ার সার্ভিসের ফায়ারম্যান সফিউল আলম বলেন, রাতে আমরা আগুন লাগার খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই স্থানীয়রা ফোনে জানান আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। পরে সেখানে আর যাওয়া হয়নি।