ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভাঙা হাত রেখে ভালো হাতে প্লাস্টার করলেন চিকিৎসক!

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ১১:৪৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯
  • / ৬৩৩ টাইম ভিউ

ভেঙেছে বাম হাত কিন্তু চিকিৎসক প্লাস্টার করে দিলেন ডান হাত। এমন ভুল করা হয়েছে ভারতের বিহারে রাজ্যের দ্বারভাঙা জেলার একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

ঘটনাটি দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এলে এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। ঘটনার তদন্তের নিদের্শ দিয়েছেন বিহারের মন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে।

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ, তীব্র গরম সইতে না পরে মধ্য দুপুরে আম গাছের ছায়ায় দাঁড়িয়েছিল সাত বছর বয়সী ফায়জান। ওপরে চোখ পড়তেই চোখ চকচক করে ওঠে তার। লোভ সামলাতে না পেরে আম পাড়তে তৎক্ষনাত গাছে ওঠে সে। আর এরপরই ঘটে বিপত্তি। আচমকা গাছ থেকে পড়ে বাঁ হাত ভেঙে যায় ফায়জানের। অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে দ্বারভাঙা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে হয় তাকে।

আর সেখানেই সংশ্লিষ্ট বিভাগের চিকিৎসকরা তার ভালো হাতেই প্লাস্টার করে দেন।

এ বিষয়ে ফায়জানের বক্তব্য, ‘আমি অনেকবার বলেছি যে, এ হাত ভাঙ্গেনি। ব্যথা বাম হাতে। কিন্তু কোনো ডাক্তারই আমার কথায় গুরুত্ব না দিয়ে বরং চুপ থাকতে বলেন।’

এমন ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে ফায়জানের মা বলেন, ‘এটা দ্বারভাঙা হাসপাতালের চিকিৎসকদের কর্তব্যে গাফিলতি ছাড়া আর কিছুই নয়। হাসপাতাল থেকে আমাদের একটা ট্যাবলেটও দেয়নি কেউ। ঠিকমতো কথাও বলেন না তারা। ’

এদিকে এমন অদ্ভুত ভুলের ঘটনার কথা জেনেছেন বিহার রাজ্যের মন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে। তিনি বিষয়টি দ্রুত খতিয়ে দেখতে বিহারের স্বাস্থ্য দপ্তরকে নির্দেশ দেন।

অবিলম্বে এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে।

পোস্ট শেয়ার করুন

ভাঙা হাত রেখে ভালো হাতে প্লাস্টার করলেন চিকিৎসক!

আপডেটের সময় : ১১:৪৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯

ভেঙেছে বাম হাত কিন্তু চিকিৎসক প্লাস্টার করে দিলেন ডান হাত। এমন ভুল করা হয়েছে ভারতের বিহারে রাজ্যের দ্বারভাঙা জেলার একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

ঘটনাটি দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এলে এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। ঘটনার তদন্তের নিদের্শ দিয়েছেন বিহারের মন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে।

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ, তীব্র গরম সইতে না পরে মধ্য দুপুরে আম গাছের ছায়ায় দাঁড়িয়েছিল সাত বছর বয়সী ফায়জান। ওপরে চোখ পড়তেই চোখ চকচক করে ওঠে তার। লোভ সামলাতে না পেরে আম পাড়তে তৎক্ষনাত গাছে ওঠে সে। আর এরপরই ঘটে বিপত্তি। আচমকা গাছ থেকে পড়ে বাঁ হাত ভেঙে যায় ফায়জানের। অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে দ্বারভাঙা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে হয় তাকে।

আর সেখানেই সংশ্লিষ্ট বিভাগের চিকিৎসকরা তার ভালো হাতেই প্লাস্টার করে দেন।

এ বিষয়ে ফায়জানের বক্তব্য, ‘আমি অনেকবার বলেছি যে, এ হাত ভাঙ্গেনি। ব্যথা বাম হাতে। কিন্তু কোনো ডাক্তারই আমার কথায় গুরুত্ব না দিয়ে বরং চুপ থাকতে বলেন।’

এমন ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে ফায়জানের মা বলেন, ‘এটা দ্বারভাঙা হাসপাতালের চিকিৎসকদের কর্তব্যে গাফিলতি ছাড়া আর কিছুই নয়। হাসপাতাল থেকে আমাদের একটা ট্যাবলেটও দেয়নি কেউ। ঠিকমতো কথাও বলেন না তারা। ’

এদিকে এমন অদ্ভুত ভুলের ঘটনার কথা জেনেছেন বিহার রাজ্যের মন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে। তিনি বিষয়টি দ্রুত খতিয়ে দেখতে বিহারের স্বাস্থ্য দপ্তরকে নির্দেশ দেন।

অবিলম্বে এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে।