ঢাকা , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বৈঠক নিয়ে যে দাবি হাসিনা-মমতার

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৯:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯
  • / ৩৭৪ টাইম ভিউ

বাংলাদেশল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপ্যাধায়ের বৈঠক হলো কলকাতায়। শুক্রবার সন্ধ্যা ছটা দশ মিনিটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করতে এসে পৌঁছান দক্ষিণ কলকাতার হোটেল তাজ বেঙ্গলে। এখানেই এসে উঠেছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষ করে তাজ বেঙ্গল থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেরিয়ে গেলেন সন্ধ্যা সাতটা বেজে বাইশ মিনিটে। প্রায় এক ঘন্টা ধরে দুইজনের মধ্যে বৈঠক হয়। বৈঠক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আমাদের মধ্যে সৌজন্য সাক্ষাত এবং ঘরোয়া আলোচনা হয়েছে। আমি ওনাকে আবার পশ্চিমবঙ্গে আসার জন্য অনুরোধ জানিয়েছি।

মমতা আরও বলেন, এই বৈঠক সম্পূর্ণ সৌজন্যের। দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক খুব ভালো। আমাদের সম্পর্কও খুব ভালো। অনেকক্ষণ আলোচনা হলো। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আবার রাজ্যে আসতে বলেছি। আমাদের সম্পর্ক যেন সব সময় ভালো থাকে সেটাই চাই। আমাদের মধ্যে একেবারে ঘরোয়া আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা নিয়ে এসেছি। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে এমন সম্পর্ক যেন বজায় থাকে সেটাই চাই সবসময়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান অনস্বীকার্য বলেও জানিয়ে দিলেন শেখ হাসিনা।

পোস্ট শেয়ার করুন

বৈঠক নিয়ে যে দাবি হাসিনা-মমতার

আপডেটের সময় : ০৯:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯

বাংলাদেশল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপ্যাধায়ের বৈঠক হলো কলকাতায়। শুক্রবার সন্ধ্যা ছটা দশ মিনিটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করতে এসে পৌঁছান দক্ষিণ কলকাতার হোটেল তাজ বেঙ্গলে। এখানেই এসে উঠেছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষ করে তাজ বেঙ্গল থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেরিয়ে গেলেন সন্ধ্যা সাতটা বেজে বাইশ মিনিটে। প্রায় এক ঘন্টা ধরে দুইজনের মধ্যে বৈঠক হয়। বৈঠক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আমাদের মধ্যে সৌজন্য সাক্ষাত এবং ঘরোয়া আলোচনা হয়েছে। আমি ওনাকে আবার পশ্চিমবঙ্গে আসার জন্য অনুরোধ জানিয়েছি।

মমতা আরও বলেন, এই বৈঠক সম্পূর্ণ সৌজন্যের। দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক খুব ভালো। আমাদের সম্পর্কও খুব ভালো। অনেকক্ষণ আলোচনা হলো। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আবার রাজ্যে আসতে বলেছি। আমাদের সম্পর্ক যেন সব সময় ভালো থাকে সেটাই চাই। আমাদের মধ্যে একেবারে ঘরোয়া আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা নিয়ে এসেছি। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে এমন সম্পর্ক যেন বজায় থাকে সেটাই চাই সবসময়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান অনস্বীকার্য বলেও জানিয়ে দিলেন শেখ হাসিনা।