ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

বিশ্বসেরা শিক্ষকের পুরস্কার পেলেন কেনিয়ার পিটার

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০২:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯
  • / ৬৯০ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ আফ্রিকার দরিদ্র দেশ কেনিয়ার একটি প্রত্যন্ত গ্রামে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান পড়াতেন তিনি। শিক্ষকতা করে যে বেতন পেতেন তার আশিভাগ গরিব-দুঃখী ছাত্রদের মধ্যে বিলিয়ে দিতেন। স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় এই মানুষটিই জিতেছেন বিশ্বের সেরা শিক্ষকের পুরস্কার। যার আর্থিক মূল্য দশ লাখ ডলার। কেনিয়ার গ্রস্ত উপত্যকায় খরা আর দুর্ভিক্ষের মাঝে স্বপ্ন চাষ করেন গণিত ও পদার্থবিদ্যার শিক্ষক পিটার তাবিছি (৩৬)। প্রত্যন্ত এই গ্রামের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সমস্ত প্রতিকূলতার মধ্যে কচিকাঁচাদের পড়ান তিনি।

তার কল্যাণে ওই কচিকাঁচারা হয়ে উঠেছে বিশ্বসেরা। খালিজ টাইমস জানিয়েছে, শনিবার দুপুরে দুবাইয়ে বলিউড অভিনেতা হফ জ্যাকম্যানের উদ্যোগে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাকে বিশেষ সম্মান জানানো হয়। তাকে দেয়া হয় দশ লাখ ডলারের পুরস্কার। তাবিছি বলেন, ‘এই পুরস্কারটি শুধু আমাকেই স্বীকৃতি দেয় না, এই মহান মহাদেশের তরুণদেরও স্বীকৃতি দেয়। আমার শিক্ষার্থীরা যা অর্জন করেছে তার কারণেই আমি আজ এখানে।’ সারা বিশ্ব থেকে এই পুরস্কারের ৯ জন চূড়ান্ত দাবিদারকে পরাজিত করার পরে তিনি আরও বলেন, ‘এই পুরস্কারটি তাদেরকে একটি সুযোগ দিয়েছে। এই পুরস্কার বিশ্বকে জানান দেয় যে এরাও কিছু করতে পারে।’ দুবাইয়ের ভার্কে ফাউন্ডেশন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রায় ৯৫ শতাংশ স্কুল ছাত্রছাত্রী দরিদ্রতম পরিবার থেকেই আসে। তাদের প্রায় এক-তৃতীয়াংশই অনাথ-এতিম। অনেকে বাড়িতে খাবার খেতেই পায় না। মাদকাসক্তি, অল্প বয়সে গর্ভধারণ, স্কুল থেকে ঝরে পড়া, বাল্যবিবাহ এবং আত্মহত্যা তাদের সাধারণ সমস্যা। স্কুলে যাওয়ার জন্য বেশ কয়েকজন ছাত্রকে প্রায় ৭ কিলোমিটার হেঁটে যেতে হয়।

এই স্কুলে পড়ুয়া শিক্ষক অনুপাত ৫৮:১। এখানে ইন্টারনেট সংযোগসহ একটিই মাত্র ডেস্কটপ কম্পিউটার রয়েছে। আর তাবিছি শিক্ষার্থীদের স্কুলে ধরে রাখতেই তার বেতনের ৮০ শতাংশই ব্যয় করেন। কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনয়াত্তা এক ভিডিও বার্তাতে তাবিছিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘আপনার গল্প সমগ্র আফ্রিকার গল্প। আমাদের আফ্রিকা, বহু প্রতিভার আঁতুড়ঘর।’

পোস্ট শেয়ার করুন

বিশ্বসেরা শিক্ষকের পুরস্কার পেলেন কেনিয়ার পিটার

আপডেটের সময় : ০২:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ আফ্রিকার দরিদ্র দেশ কেনিয়ার একটি প্রত্যন্ত গ্রামে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান পড়াতেন তিনি। শিক্ষকতা করে যে বেতন পেতেন তার আশিভাগ গরিব-দুঃখী ছাত্রদের মধ্যে বিলিয়ে দিতেন। স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় এই মানুষটিই জিতেছেন বিশ্বের সেরা শিক্ষকের পুরস্কার। যার আর্থিক মূল্য দশ লাখ ডলার। কেনিয়ার গ্রস্ত উপত্যকায় খরা আর দুর্ভিক্ষের মাঝে স্বপ্ন চাষ করেন গণিত ও পদার্থবিদ্যার শিক্ষক পিটার তাবিছি (৩৬)। প্রত্যন্ত এই গ্রামের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সমস্ত প্রতিকূলতার মধ্যে কচিকাঁচাদের পড়ান তিনি।

তার কল্যাণে ওই কচিকাঁচারা হয়ে উঠেছে বিশ্বসেরা। খালিজ টাইমস জানিয়েছে, শনিবার দুপুরে দুবাইয়ে বলিউড অভিনেতা হফ জ্যাকম্যানের উদ্যোগে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাকে বিশেষ সম্মান জানানো হয়। তাকে দেয়া হয় দশ লাখ ডলারের পুরস্কার। তাবিছি বলেন, ‘এই পুরস্কারটি শুধু আমাকেই স্বীকৃতি দেয় না, এই মহান মহাদেশের তরুণদেরও স্বীকৃতি দেয়। আমার শিক্ষার্থীরা যা অর্জন করেছে তার কারণেই আমি আজ এখানে।’ সারা বিশ্ব থেকে এই পুরস্কারের ৯ জন চূড়ান্ত দাবিদারকে পরাজিত করার পরে তিনি আরও বলেন, ‘এই পুরস্কারটি তাদেরকে একটি সুযোগ দিয়েছে। এই পুরস্কার বিশ্বকে জানান দেয় যে এরাও কিছু করতে পারে।’ দুবাইয়ের ভার্কে ফাউন্ডেশন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রায় ৯৫ শতাংশ স্কুল ছাত্রছাত্রী দরিদ্রতম পরিবার থেকেই আসে। তাদের প্রায় এক-তৃতীয়াংশই অনাথ-এতিম। অনেকে বাড়িতে খাবার খেতেই পায় না। মাদকাসক্তি, অল্প বয়সে গর্ভধারণ, স্কুল থেকে ঝরে পড়া, বাল্যবিবাহ এবং আত্মহত্যা তাদের সাধারণ সমস্যা। স্কুলে যাওয়ার জন্য বেশ কয়েকজন ছাত্রকে প্রায় ৭ কিলোমিটার হেঁটে যেতে হয়।

এই স্কুলে পড়ুয়া শিক্ষক অনুপাত ৫৮:১। এখানে ইন্টারনেট সংযোগসহ একটিই মাত্র ডেস্কটপ কম্পিউটার রয়েছে। আর তাবিছি শিক্ষার্থীদের স্কুলে ধরে রাখতেই তার বেতনের ৮০ শতাংশই ব্যয় করেন। কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনয়াত্তা এক ভিডিও বার্তাতে তাবিছিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘আপনার গল্প সমগ্র আফ্রিকার গল্প। আমাদের আফ্রিকা, বহু প্রতিভার আঁতুড়ঘর।’