ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপির সাংসদদের রুমিন ফারহানা বক্তব্যে সংসদ উত্তপ্ত, মাইক বন্ধ

দেশদিগন্ত নিউজঃ
  • আপডেটের সময় : ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০১৯
  • / ৭০১ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজঃ  বিএনপির সংসদ সদস্য ও যুগ্ম মহাসচিব হারুন উর রশিদ বক্তব্য দেয়ার সময় সংসদ কিছুক্ষণের জন্য উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল। এছাড়াও বিএনপির আরেক সাংসদ ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার বক্তব্য নিয়েও প্রতিবাদ হট্টগোল হয়েছে। এসময় তারা বক্তব্য অব্যাহত রাখলে তাদের মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়।

মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বাজেট অধিবেশন শুরু হয়।

সংসদে দুই মিনিট শুভেচ্ছা বক্তব্য দেওয়ার সময় রুমিন ফারহানা বলেন, ‘আজ আমার সংসদে প্রথম দিন। প্রতিটি রাজনীতিবিদের মতোই সংসদে আসা, সংসদে দেশের মানুষের কথা বলা আমার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য, আমি এমন একটি সংসদে এসে প্রতিনিধিত্ব করছি যে সংসদটি জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়।’

রুমিনের এ বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গেই সরকার দলীয় সংসদ সদস্যরা প্রতিবাদ জানাতে থাকেন। সংসদে ছড়িয়ে পড়ে উত্তাপ। সরকার দলীয় সংসদ সদস্যরা হইচই শুরু করেন।

এসময় তীব্র কণ্ঠে ফারহানা বলেন, ‘যদি আপনারা টিআইবির রিপোর্ট দেখেন, যদি আপনারা বিদেশি গণমাধ্যম, পর্যবেক্ষণ, নির্বাচন কমিশনের রিপোর্ট দেখেন, তাহলে দেখবেন এই সংসদ জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়।’

স্পিকারের আপত্তির মুখেও তিনি বলতে থাকেন, ‘আমি খুশি হবো যদি এই সংসদের মেয়াদ আর একদিনও না হয়।’

বিএনপির এই মহিলা সংসদ বলেন, ‘আমি এমন একটি সংসদে দাঁড়িয়ে আছি যে সংসদে তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, আপসহীন নেত্রী, গণতন্ত্রের জন্য যিনি বার বার কারাবরণ করেছেন, বাংলাদেশের জনমানুষের নেত্রী, যিনি জীবনের কোনও দিন কোনও আসন থেকে পরাজিত হোন নাই, সেই বেগম খালেদা জিয়া এই সংসদে নাই। তাকে পরিকল্পিতভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি মিথ্যা মামলায় ১৬ মাসের বেশি সময় কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের বাধায় আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশে ফিরতে পারেন না, আমাদের প্রতিটি নেতাকর্মীদের নামে শত শত মামলা। আমাদের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম যিনি…’

এসময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর তার মাইক বন্ধ করে দেন। তবুও তিনি বক্তব্য দিতে থাকেন। এসময় সংসদে আবারও তীব্র হট্টগোল শুরু হয়। তীব্র বিরোধিতার মধ্যে সংসদকে অনির্বাচিত ও অবৈধ বলে দেয়া রুমিন ফারহানার বক্তব্য কার্যপ্রণালী বিধির ৩০৭ ধারা মোতাবেক এক্সপাঞ্জ ঘোষণা দেন স্পিকার।

প্রথমবার দেশের কোথাও পবিত্র ঈদের (ঈদুল ফিতর) চাঁদ দেখা যায়নি ঘোষণা দিয়ে আবার রাত ১১টায় চাঁদ দেখার ঘোষণা দেওয়ার কারণে সংসদে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি বাতিলের দাবি জানান বিএনপির এমপি হারুন-উর-রশিদ।

হারুন-উর-রশিদের বক্তব্যের সময় সরকারদলীয় সদস্যরা সেইম সেইম বলে প্রতিবাদ করতে থাকলে সংসদ কিছুক্ষণের জন্য উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। স্পিকার বারবার তাকে বক্তব্য শেষ করার জন্য অনুরোধ জানালেও তিনি বক্তব্য অব্যাহত রাখেন। এ সময় সাময়িকভাবে তার মাইকও বন্ধ করে দেয়া হয়।

পোস্ট শেয়ার করুন

বিএনপির সাংসদদের রুমিন ফারহানা বক্তব্যে সংসদ উত্তপ্ত, মাইক বন্ধ

আপডেটের সময় : ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজঃ  বিএনপির সংসদ সদস্য ও যুগ্ম মহাসচিব হারুন উর রশিদ বক্তব্য দেয়ার সময় সংসদ কিছুক্ষণের জন্য উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল। এছাড়াও বিএনপির আরেক সাংসদ ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার বক্তব্য নিয়েও প্রতিবাদ হট্টগোল হয়েছে। এসময় তারা বক্তব্য অব্যাহত রাখলে তাদের মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়।

মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বাজেট অধিবেশন শুরু হয়।

সংসদে দুই মিনিট শুভেচ্ছা বক্তব্য দেওয়ার সময় রুমিন ফারহানা বলেন, ‘আজ আমার সংসদে প্রথম দিন। প্রতিটি রাজনীতিবিদের মতোই সংসদে আসা, সংসদে দেশের মানুষের কথা বলা আমার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য, আমি এমন একটি সংসদে এসে প্রতিনিধিত্ব করছি যে সংসদটি জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়।’

রুমিনের এ বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গেই সরকার দলীয় সংসদ সদস্যরা প্রতিবাদ জানাতে থাকেন। সংসদে ছড়িয়ে পড়ে উত্তাপ। সরকার দলীয় সংসদ সদস্যরা হইচই শুরু করেন।

এসময় তীব্র কণ্ঠে ফারহানা বলেন, ‘যদি আপনারা টিআইবির রিপোর্ট দেখেন, যদি আপনারা বিদেশি গণমাধ্যম, পর্যবেক্ষণ, নির্বাচন কমিশনের রিপোর্ট দেখেন, তাহলে দেখবেন এই সংসদ জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়।’

স্পিকারের আপত্তির মুখেও তিনি বলতে থাকেন, ‘আমি খুশি হবো যদি এই সংসদের মেয়াদ আর একদিনও না হয়।’

বিএনপির এই মহিলা সংসদ বলেন, ‘আমি এমন একটি সংসদে দাঁড়িয়ে আছি যে সংসদে তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, আপসহীন নেত্রী, গণতন্ত্রের জন্য যিনি বার বার কারাবরণ করেছেন, বাংলাদেশের জনমানুষের নেত্রী, যিনি জীবনের কোনও দিন কোনও আসন থেকে পরাজিত হোন নাই, সেই বেগম খালেদা জিয়া এই সংসদে নাই। তাকে পরিকল্পিতভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি মিথ্যা মামলায় ১৬ মাসের বেশি সময় কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের বাধায় আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশে ফিরতে পারেন না, আমাদের প্রতিটি নেতাকর্মীদের নামে শত শত মামলা। আমাদের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম যিনি…’

এসময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর তার মাইক বন্ধ করে দেন। তবুও তিনি বক্তব্য দিতে থাকেন। এসময় সংসদে আবারও তীব্র হট্টগোল শুরু হয়। তীব্র বিরোধিতার মধ্যে সংসদকে অনির্বাচিত ও অবৈধ বলে দেয়া রুমিন ফারহানার বক্তব্য কার্যপ্রণালী বিধির ৩০৭ ধারা মোতাবেক এক্সপাঞ্জ ঘোষণা দেন স্পিকার।

প্রথমবার দেশের কোথাও পবিত্র ঈদের (ঈদুল ফিতর) চাঁদ দেখা যায়নি ঘোষণা দিয়ে আবার রাত ১১টায় চাঁদ দেখার ঘোষণা দেওয়ার কারণে সংসদে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি বাতিলের দাবি জানান বিএনপির এমপি হারুন-উর-রশিদ।

হারুন-উর-রশিদের বক্তব্যের সময় সরকারদলীয় সদস্যরা সেইম সেইম বলে প্রতিবাদ করতে থাকলে সংসদ কিছুক্ষণের জন্য উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। স্পিকার বারবার তাকে বক্তব্য শেষ করার জন্য অনুরোধ জানালেও তিনি বক্তব্য অব্যাহত রাখেন। এ সময় সাময়িকভাবে তার মাইকও বন্ধ করে দেয়া হয়।