ঢাকা , রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে… এই অভ্যাসগুলোর চর্চা নিয়মিত করা উচিৎ স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য থাকা জরুরি কেনো ? পুনাক এর উদ্যোগে দুস্হ ও অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে কুলাউড়ার টিলাগাঁও এ সরকারি গাছ বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক লটারি বাইক জিতলো মা’ সে কারণে কপাল পুড়লো মেয়ের ফজরের নামাজে যাওয়ার সময় রাস্তায় কুকুর দলের আক্রমনে প্রান গেলো ইজাজুলের সাবেক সাংসদ সেলিমা আহমাদ মেরীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামিলীগের মতবিনিময় সভা

বাজেটে গতানুগতিকতার বাইরে নতুন দিক উন্মোচন হয়নি : জাসদ

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৬:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০
  • / ২৮৬ টাইম ভিউ

নিউজ ডেস্ক: প্রস্তাবিত  বাজেট গতানুগতিকতার গণ্ডিতে আটকে আছে বলে মনে করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)। দলটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার ২০২০-২১ সালের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেছেন।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে তাঁরা বলেছেন, সবাই আশা করেছিল বৈশ্বিক মহামারি ও জাতীয় বিপর্যয়ের মধ্যে এবারের বাজেট গতানুগতিকতার বাইরে নতুন দিক উন্মোচনকারী বাজেট হবে। সার্বজনীন স্বাস্থসেবা ও সার্বজনীন সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য ধারাবাহিক প্রচেষ্টার শুরু এবারের বাজেট থেকেই হওয়া উচিৎ ছিল। বাজেটে স্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা, কৃষি, খাদ্য, শিক্ষা ও গবেষণা খাতে বরাদ্দ কিছু বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হলেও তা খুবই সামান্য। তাঁরা বলেন, স্বাস্থসেবা খাত ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে যতটুকু বরাদ্দ বেড়েছে সেটাও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কিভাবে ব্যয় হবে তা পরিস্কার না। নতুন করে যারা কর্মহীন ও আয়হীন হয়েছে বা হবে তারা কিভাবে সামাজিক সুরক্ষা খাতে অন্তর্ভুক্ত হবেন সেটাও পরিষ্কার নয়। শহর থেকে ২ কোটি মানুষ গ্রামে ফিরে যাবার যে আশংকা তৈরি হয়েছে তাদের কর্মসংস্থানসহ গ্রামীন অর্থনীতিকে সচল রাখার জন্য পল্লী উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর বদলে কমানো হয়েছে। তাই এককথায় বলা যায়, বাজেট প্রস্তাব গতানুগতিকতার গন্ডিতে আটকে আছে। তাঁরাবলেন, বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা এবং ভয়ংকর দূর্নীতি দূর করে সুশাসন নিশ্চিত করাই সব চেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

জাসদ করোনা জরুরি তহবিলে ১০ হাজার কোটি টাকা, ঔষধসহ চিকিৎসা সামগ্রীর উপর ট্যাক্স কমানো, বিলাস দ্রব্যের ওপর ট্যাক্স বাড়ানোকে স্বাগত জানায়। তারা কর্পোরেট ট্যাক্স কমানো ও কালো টাকা সাদা করার প্রস্তাবের সমালোচনা করেছে। দলটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মতে, বাংলাদেশ সুপরিচিত /অতিধনীদের দেশে পরিণত হয়েছে। তাঁরা বলেন, দেশে ৫ লাখ ব্যক্তি আছে যারা ১ কোটি টাকা ব্যক্তিগত আয়কর দিতে পারেন, কিন্তু দেন না। জাসদ এই ৫ লাখ মানুষের তালিকা করে তাদের কাছ থেকে ৫ লাখ কোটি টাকা ট্যাক্স আদায়ের কঠিন পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানায়।

পোস্ট শেয়ার করুন

বাজেটে গতানুগতিকতার বাইরে নতুন দিক উন্মোচন হয়নি : জাসদ

আপডেটের সময় : ০৬:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০

নিউজ ডেস্ক: প্রস্তাবিত  বাজেট গতানুগতিকতার গণ্ডিতে আটকে আছে বলে মনে করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)। দলটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার ২০২০-২১ সালের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেছেন।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে তাঁরা বলেছেন, সবাই আশা করেছিল বৈশ্বিক মহামারি ও জাতীয় বিপর্যয়ের মধ্যে এবারের বাজেট গতানুগতিকতার বাইরে নতুন দিক উন্মোচনকারী বাজেট হবে। সার্বজনীন স্বাস্থসেবা ও সার্বজনীন সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য ধারাবাহিক প্রচেষ্টার শুরু এবারের বাজেট থেকেই হওয়া উচিৎ ছিল। বাজেটে স্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা, কৃষি, খাদ্য, শিক্ষা ও গবেষণা খাতে বরাদ্দ কিছু বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হলেও তা খুবই সামান্য। তাঁরা বলেন, স্বাস্থসেবা খাত ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে যতটুকু বরাদ্দ বেড়েছে সেটাও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কিভাবে ব্যয় হবে তা পরিস্কার না। নতুন করে যারা কর্মহীন ও আয়হীন হয়েছে বা হবে তারা কিভাবে সামাজিক সুরক্ষা খাতে অন্তর্ভুক্ত হবেন সেটাও পরিষ্কার নয়। শহর থেকে ২ কোটি মানুষ গ্রামে ফিরে যাবার যে আশংকা তৈরি হয়েছে তাদের কর্মসংস্থানসহ গ্রামীন অর্থনীতিকে সচল রাখার জন্য পল্লী উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর বদলে কমানো হয়েছে। তাই এককথায় বলা যায়, বাজেট প্রস্তাব গতানুগতিকতার গন্ডিতে আটকে আছে। তাঁরাবলেন, বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা এবং ভয়ংকর দূর্নীতি দূর করে সুশাসন নিশ্চিত করাই সব চেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

জাসদ করোনা জরুরি তহবিলে ১০ হাজার কোটি টাকা, ঔষধসহ চিকিৎসা সামগ্রীর উপর ট্যাক্স কমানো, বিলাস দ্রব্যের ওপর ট্যাক্স বাড়ানোকে স্বাগত জানায়। তারা কর্পোরেট ট্যাক্স কমানো ও কালো টাকা সাদা করার প্রস্তাবের সমালোচনা করেছে। দলটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মতে, বাংলাদেশ সুপরিচিত /অতিধনীদের দেশে পরিণত হয়েছে। তাঁরা বলেন, দেশে ৫ লাখ ব্যক্তি আছে যারা ১ কোটি টাকা ব্যক্তিগত আয়কর দিতে পারেন, কিন্তু দেন না। জাসদ এই ৫ লাখ মানুষের তালিকা করে তাদের কাছ থেকে ৫ লাখ কোটি টাকা ট্যাক্স আদায়ের কঠিন পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানায়।