ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার বাণিজ্য সম্প্রসারণে যথেষ্ট সম্ভাবনা : রাষ্ট্রপতি

অনলাইন ডেস্ক :
  • আপডেটের সময় : ০১:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুলাই ২০১৭
  • / ১৩৭৬ টাইম ভিউ

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার বাণিজ্য সম্প্রসারণে যথেষ্ট সম্ভাবনা : রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ যৌথ উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের সম্ভাবনা খুঁজে বের করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।শ্রীলঙ্কার সফররত প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপালা সিরিসেনা শুক্রবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে সিরামিকস, সবজি, প্লাস্টিক পণ্য, ওষুধ, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য, ফুটওয়্যার, লোহা ও স্টিল রফতানির চমৎকার সম্ভাবনা রয়েছে। উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্প্রসারণের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ও তার সফরসঙ্গীদের স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি হামিদ বলেন, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে দীর্ঘ ও ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে।বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে ঐতিহ্যবাহী ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক জোরদার করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ, সার্ক, বিমস্টেক এবং লোরাসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্য হিসেবে দু’দেশ বিভিন্ন ইস্যুতে অভিন্ন মতামত প্রকাশ করে আসছে বলে রাষ্ট্রপতি হামিদ উল্লেখ করেন।বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, ব্যাংক ও সেবা খাতে বিনিয়োগ করে শ্রীলঙ্কা সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করবে বলে রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেন।তিনি বলেন, আইসিটি, পর্যটন, মৎস্য, কৃষি, স্বাস্থ্য, পরিবেশ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুসহ অন্যান্য ক্ষেত্রেও দু’দেশ দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার সম্ভাবনা খুঁজে দেখতে পারে।শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরকে মাইলফলক হিসেবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, এতে দু’দেশের মধ্যে বহুমুখী সম্পর্কের সূচনা হবে।শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট বলেন, তার দেশ সবসময় বাংলাদেশকে পরীক্ষিত বন্ধু হিসেবে গণ্য করে। আসছে দিনগুলোতে বাংলাদেশের চমৎকার উন্নয়ন ও অগ্রগতি হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।এর আগে সন্ধ্যা ৭টায় সিরিসেনা বঙ্গভবনে পৌঁছলে রাষ্ট্রপতি হামিদ তাকে স্বাগত জানান। এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং সংশ্লিষ্ট সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।পরে, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের সম্মানে বঙ্গভবনের দরবার হলে ভোজসভার আয়োজন করেন। এতে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও পরিবেশিত হয়।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি এস কে সিংহাসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা ভোজসভায় উপস্থিত ছিলেন।

পোস্ট শেয়ার করুন

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার বাণিজ্য সম্প্রসারণে যথেষ্ট সম্ভাবনা : রাষ্ট্রপতি

আপডেটের সময় : ০১:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুলাই ২০১৭

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ যৌথ উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের সম্ভাবনা খুঁজে বের করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।শ্রীলঙ্কার সফররত প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপালা সিরিসেনা শুক্রবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে সিরামিকস, সবজি, প্লাস্টিক পণ্য, ওষুধ, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য, ফুটওয়্যার, লোহা ও স্টিল রফতানির চমৎকার সম্ভাবনা রয়েছে। উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্প্রসারণের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ও তার সফরসঙ্গীদের স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি হামিদ বলেন, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে দীর্ঘ ও ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে।বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে ঐতিহ্যবাহী ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক জোরদার করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ, সার্ক, বিমস্টেক এবং লোরাসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্য হিসেবে দু’দেশ বিভিন্ন ইস্যুতে অভিন্ন মতামত প্রকাশ করে আসছে বলে রাষ্ট্রপতি হামিদ উল্লেখ করেন।বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, ব্যাংক ও সেবা খাতে বিনিয়োগ করে শ্রীলঙ্কা সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করবে বলে রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেন।তিনি বলেন, আইসিটি, পর্যটন, মৎস্য, কৃষি, স্বাস্থ্য, পরিবেশ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুসহ অন্যান্য ক্ষেত্রেও দু’দেশ দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার সম্ভাবনা খুঁজে দেখতে পারে।শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরকে মাইলফলক হিসেবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, এতে দু’দেশের মধ্যে বহুমুখী সম্পর্কের সূচনা হবে।শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট বলেন, তার দেশ সবসময় বাংলাদেশকে পরীক্ষিত বন্ধু হিসেবে গণ্য করে। আসছে দিনগুলোতে বাংলাদেশের চমৎকার উন্নয়ন ও অগ্রগতি হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।এর আগে সন্ধ্যা ৭টায় সিরিসেনা বঙ্গভবনে পৌঁছলে রাষ্ট্রপতি হামিদ তাকে স্বাগত জানান। এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং সংশ্লিষ্ট সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।পরে, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের সম্মানে বঙ্গভবনের দরবার হলে ভোজসভার আয়োজন করেন। এতে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও পরিবেশিত হয়।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি এস কে সিংহাসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা ভোজসভায় উপস্থিত ছিলেন।