ঢাকা , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পয়ত্রিশোর্ধ্ব নিবন্ধনধারীদের নিয়োগে বাধা নেই: হাইকোর্ট

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৮:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০১৯
  • / ৭৮৪ টাইম ভিউ

বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগে ২০১৮ সালের ১২ জুন পর্যন্ত বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) সার্টিফিকেট প্রাপ্তদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছরের বয়সসীমা প্রযোজ্য হবে না। তবে এর পরে যারা এ সার্টিফিকেট পেয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছর বয়সসীমা কার্যকর হবে। বুধবার হাইকোর্টের এক আদেশে একথা বলা হয়েছে। বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

এ ব্যাপারে রিটকারীদের পক্ষে অ্যাডভোকেট সিদ্দিকুল্লাহ মিয়া সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে আগে কোনো বয়সসীমা নির্ধারণ ছিল না। ২০০৫ সালের পর এ ব্যাপারে একটি রিট হয়। পরে আদালত বয়স নির্ধারণ করে দেওয়ার জন্য রায় দিয়েছিলো। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে এমপিও নীতিমালায় ৩৫ বছর বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।’

তিনি বলেন, ‘বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেওয়ার পর অনেকে যারা ইতোমধ্যে সার্টিফিকেট নিয়েছেন, তারা হতাশ হয়ে যায়- কারণ তাদের আর সুযোগ ছিলো না। এ কারণে কোর্টে এসেছেন তারা। এ বিষয়ে হাইকোর্ট রুল জারি করেছিলেন। আজ চূড়ান্ত শুনানী শেষে রায় দিয়েছেন, এটা কার্যকর থাকবে। তবে যারা ইতিপূর্বে সার্টিফিকেট পেয়েছে তাদের ব্যাপারে প্রযোজ্য হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেদিন থেকে এটি কার্যকর হয়েছে অর্থ্যাৎ ২০১৮ সালের জুনের পরে যারা সার্টিফিকেট পেয়েছে তাদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছর কার্যকর হবে। এর আগের সার্টিফিকেট প্রাপ্তদের ক্ষেত্রে এটি কার্যকর হবে না।’

এর আগে এনটিআরসিএ সনদধারীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩৫ নির্ধারণ কেন অবৈধ নয় তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন।

পোস্ট শেয়ার করুন

পয়ত্রিশোর্ধ্ব নিবন্ধনধারীদের নিয়োগে বাধা নেই: হাইকোর্ট

আপডেটের সময় : ০৮:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০১৯

বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগে ২০১৮ সালের ১২ জুন পর্যন্ত বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) সার্টিফিকেট প্রাপ্তদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছরের বয়সসীমা প্রযোজ্য হবে না। তবে এর পরে যারা এ সার্টিফিকেট পেয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছর বয়সসীমা কার্যকর হবে। বুধবার হাইকোর্টের এক আদেশে একথা বলা হয়েছে। বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

এ ব্যাপারে রিটকারীদের পক্ষে অ্যাডভোকেট সিদ্দিকুল্লাহ মিয়া সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে আগে কোনো বয়সসীমা নির্ধারণ ছিল না। ২০০৫ সালের পর এ ব্যাপারে একটি রিট হয়। পরে আদালত বয়স নির্ধারণ করে দেওয়ার জন্য রায় দিয়েছিলো। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে এমপিও নীতিমালায় ৩৫ বছর বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।’

তিনি বলেন, ‘বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেওয়ার পর অনেকে যারা ইতোমধ্যে সার্টিফিকেট নিয়েছেন, তারা হতাশ হয়ে যায়- কারণ তাদের আর সুযোগ ছিলো না। এ কারণে কোর্টে এসেছেন তারা। এ বিষয়ে হাইকোর্ট রুল জারি করেছিলেন। আজ চূড়ান্ত শুনানী শেষে রায় দিয়েছেন, এটা কার্যকর থাকবে। তবে যারা ইতিপূর্বে সার্টিফিকেট পেয়েছে তাদের ব্যাপারে প্রযোজ্য হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেদিন থেকে এটি কার্যকর হয়েছে অর্থ্যাৎ ২০১৮ সালের জুনের পরে যারা সার্টিফিকেট পেয়েছে তাদের ক্ষেত্রে ৩৫ বছর কার্যকর হবে। এর আগের সার্টিফিকেট প্রাপ্তদের ক্ষেত্রে এটি কার্যকর হবে না।’

এর আগে এনটিআরসিএ সনদধারীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩৫ নির্ধারণ কেন অবৈধ নয় তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন।