ঢাকা , সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
প্রিয়জনদের মানসিক রোগ যদি আপনজন বুঝতে না পারেন আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ও অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা করেছে পর্তুগাল আওয়ামীলীগ যেকোনো প্রচেষ্টা এককভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব নয়: দুদক সচিব শ্রীমঙ্গলে দুটি চোরাই মোটরসাইকেল সহ মিল্টন কুমার আটক পর্তুগালের অভিবাসন আইনে ব্যাপক পরিবর্তন পর্তুগাল বিএনপি আহবায়ক কমিটির জুমে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয় এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে…

গণমাধ্যমের বিকাশে কাজ করছে সরকার : তথ্যমন্ত্রী

ডেস্ক :
  • আপডেটের সময় : ০৫:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ জুন ২০১৭
  • / ১১৪০ টাইম ভিউ

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ তথা গণমাধ্যমের বিকাশে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বজলুল হক হারুনের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান।
মন্ত্রী বলেন, বর্তমান গণমাধ্যম বান্ধব সরকার গত ৪ বছরে ৬২৩ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের আর্থিক সহায়তা দিযেছে।
তিনি বলেন, গত ৭ বছরে সাত শতাধিক পত্রিকার নিবন্ধন প্রদান করা হয়েছে। একই সঙ্গে ৩১টি স্যাটেলাইট চ্যানেল, ২৪টি এফ, এম বেতার এবং ৩২টি কমিউনিটি রেডিও’র অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে। তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সরকার ‘জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা, ২০১৪’ প্রণয়ন করেছে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, সংবিধানের ৩৯ নং অনুচ্ছেদে বাক, ভাবপ্রকাশ ও সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। বর্তমানে সরকারি ৩টি টেলিভিশন চ্যানেল, ২১টি এফ, এম বেতার এবং ১৭টি কমিউনিটি রেডিও সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
তিনি বলেন, সংবাদপত্রে কর্মরত সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা ও উৎকর্ষ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট গত ৭ বছরে ১৬ হাজার ১ জন সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে এবং জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট একই সময়ে ২ হাজার ২৫৫ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জন্য একটি দায়বদ্ধ ‘সম্প্রচার কমিশন’ গঠনের লক্ষ্যে প্রস্তাবিত ‘সম্প্রচার আইন, ২০১৬’ এর খসড়ার চূড়ান্ত পরিমার্জন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল থেকে দুস্থ ও অসুস্থ সাংবাদিকদের অনুকূলে আর্থিক অনুদান প্রদানের পাশাপাশি সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে ‘সাংবাদিক সহায়তা ভাতা বা অনুদান নীতিমালা-২০১২’ এর আওতায় ২০১১-১২ অর্থবছরে ৬১জন, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ১৮৫ জন, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ১৯৬ জন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৮১ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে যথাক্রমে ৫০ লাখ, ১ কোটি, ১ কোটি ১০ লাখ, ১ কোটি ২০ লাখ টাকার আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেছে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০১৪’ এর আওতায় ইতোমধ্যে একটি ‘ট্রাস্টি বোর্ড’ গঠন করা হয়েছে। ‘সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট বিধিমালা ২০১৬’ প্রণয়ন করা হয়েছে। ট্রাস্টের নিজস্ব তহবিল সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকার ইতোমধ্যে ৫ কোটি টাকার ‘সীডমানি’ প্রদান করেছে।
তিনি বলেন, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের আওতায় প্রথমবারের মতো ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৯৬ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও মৃত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে।

পোস্ট শেয়ার করুন

গণমাধ্যমের বিকাশে কাজ করছে সরকার : তথ্যমন্ত্রী

আপডেটের সময় : ০৫:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ জুন ২০১৭

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ তথা গণমাধ্যমের বিকাশে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বজলুল হক হারুনের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান।
মন্ত্রী বলেন, বর্তমান গণমাধ্যম বান্ধব সরকার গত ৪ বছরে ৬২৩ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের আর্থিক সহায়তা দিযেছে।
তিনি বলেন, গত ৭ বছরে সাত শতাধিক পত্রিকার নিবন্ধন প্রদান করা হয়েছে। একই সঙ্গে ৩১টি স্যাটেলাইট চ্যানেল, ২৪টি এফ, এম বেতার এবং ৩২টি কমিউনিটি রেডিও’র অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে। তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সরকার ‘জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা, ২০১৪’ প্রণয়ন করেছে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, সংবিধানের ৩৯ নং অনুচ্ছেদে বাক, ভাবপ্রকাশ ও সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। বর্তমানে সরকারি ৩টি টেলিভিশন চ্যানেল, ২১টি এফ, এম বেতার এবং ১৭টি কমিউনিটি রেডিও সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
তিনি বলেন, সংবাদপত্রে কর্মরত সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা ও উৎকর্ষ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট গত ৭ বছরে ১৬ হাজার ১ জন সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে এবং জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট একই সময়ে ২ হাজার ২৫৫ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জন্য একটি দায়বদ্ধ ‘সম্প্রচার কমিশন’ গঠনের লক্ষ্যে প্রস্তাবিত ‘সম্প্রচার আইন, ২০১৬’ এর খসড়ার চূড়ান্ত পরিমার্জন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল থেকে দুস্থ ও অসুস্থ সাংবাদিকদের অনুকূলে আর্থিক অনুদান প্রদানের পাশাপাশি সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে ‘সাংবাদিক সহায়তা ভাতা বা অনুদান নীতিমালা-২০১২’ এর আওতায় ২০১১-১২ অর্থবছরে ৬১জন, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ১৮৫ জন, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ১৯৬ জন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৮১ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে যথাক্রমে ৫০ লাখ, ১ কোটি, ১ কোটি ১০ লাখ, ১ কোটি ২০ লাখ টাকার আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেছে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০১৪’ এর আওতায় ইতোমধ্যে একটি ‘ট্রাস্টি বোর্ড’ গঠন করা হয়েছে। ‘সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট বিধিমালা ২০১৬’ প্রণয়ন করা হয়েছে। ট্রাস্টের নিজস্ব তহবিল সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকার ইতোমধ্যে ৫ কোটি টাকার ‘সীডমানি’ প্রদান করেছে।
তিনি বলেন, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের আওতায় প্রথমবারের মতো ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৯৬ জন দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও মৃত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে।