ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

পারিবারিক কবরস্থানে শেষ জায়গা হলো না কলেজ শিক্ষকের

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৫:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০
  • / ৪৩২ টাইম ভিউ

নিউজ ডেস্ক: শ্বাসকষ্টে এক কলেজশিক্ষকের মৃত্যুর পর চট্টগ্রামের রাউজানে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর ঠাঁইটুকুও হলো না। বাড়ি এবং গ্রামের লোকজনের বাধার মুখে তাঁকে পার্শ্ববর্তী উপজেলা রাঙ্গুনিয়ার পূর্ব সৈয়দ বাড়ির কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মৃত কলেজশিক্ষকেরে নাম মো. আনোয়ারুল ইসলাম (৫৮)। বৃহস্পতিবার রাত সোয়া আটটার দিকে তিনি রাঙ্গুনিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারা যান। তিনি রাঙ্গুনিয়ার সৈয়দা সেলিমা কাদের চৌধুরী ডিগ্রি কলেজের জীববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। কয়েক দিন ধরে তিনি জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হঠাৎ তাঁর শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাঁয়। এরপর গুরুতর অবস্থায় তাঁকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই তিনি মারা যান।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে আনোয়ারুল ইসলামের লাশ অ্যাম্বুলেন্সে করে পরিবারের সদস্যরা গ্রামের বাড়ি রাউজানের নোয়াপাড়ায় নিয়ে যান। সেখানে আগে থেকে বাড়ি ও গ্রামের লোকজন জড়ো হয়। লাশ পৌঁছলে বাধা হয়ে দাঁড়ায় গ্রামের মানুষ। কোনো অবস্থায় এই কলেজ শিক্ষকের লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করতে দেবে না বলে জানিয়ে দেয় গ্রামের লোকজন। সেখানে দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করেছিলেন ওই শিক্ষকের স্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া একমাত্র মেয়ে এবং কলেজ পড়ুয়া দুই ছেলে। বাড়ি ও গ্রামের মানুষের বাধা পেয়ে একই অ্যাম্বুলেন্সে করে লাশ রাঙ্গুনিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে আনোয়ারুল ইসলামকে পূর্ব সৈয়দ বাড়ির কবরস্থানে দাফন করা হয়।

পোস্ট শেয়ার করুন

পারিবারিক কবরস্থানে শেষ জায়গা হলো না কলেজ শিক্ষকের

আপডেটের সময় : ০৫:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০

নিউজ ডেস্ক: শ্বাসকষ্টে এক কলেজশিক্ষকের মৃত্যুর পর চট্টগ্রামের রাউজানে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর ঠাঁইটুকুও হলো না। বাড়ি এবং গ্রামের লোকজনের বাধার মুখে তাঁকে পার্শ্ববর্তী উপজেলা রাঙ্গুনিয়ার পূর্ব সৈয়দ বাড়ির কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মৃত কলেজশিক্ষকেরে নাম মো. আনোয়ারুল ইসলাম (৫৮)। বৃহস্পতিবার রাত সোয়া আটটার দিকে তিনি রাঙ্গুনিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারা যান। তিনি রাঙ্গুনিয়ার সৈয়দা সেলিমা কাদের চৌধুরী ডিগ্রি কলেজের জীববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। কয়েক দিন ধরে তিনি জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হঠাৎ তাঁর শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাঁয়। এরপর গুরুতর অবস্থায় তাঁকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই তিনি মারা যান।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে আনোয়ারুল ইসলামের লাশ অ্যাম্বুলেন্সে করে পরিবারের সদস্যরা গ্রামের বাড়ি রাউজানের নোয়াপাড়ায় নিয়ে যান। সেখানে আগে থেকে বাড়ি ও গ্রামের লোকজন জড়ো হয়। লাশ পৌঁছলে বাধা হয়ে দাঁড়ায় গ্রামের মানুষ। কোনো অবস্থায় এই কলেজ শিক্ষকের লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করতে দেবে না বলে জানিয়ে দেয় গ্রামের লোকজন। সেখানে দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করেছিলেন ওই শিক্ষকের স্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া একমাত্র মেয়ে এবং কলেজ পড়ুয়া দুই ছেলে। বাড়ি ও গ্রামের মানুষের বাধা পেয়ে একই অ্যাম্বুলেন্সে করে লাশ রাঙ্গুনিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে আনোয়ারুল ইসলামকে পূর্ব সৈয়দ বাড়ির কবরস্থানে দাফন করা হয়।