ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে… এই অভ্যাসগুলোর চর্চা নিয়মিত করা উচিৎ স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য থাকা জরুরি কেনো ? পুনাক এর উদ্যোগে দুস্হ ও অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে কুলাউড়ার টিলাগাঁও এ সরকারি গাছ বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক লটারি বাইক জিতলো মা’ সে কারণে কপাল পুড়লো মেয়ের ফজরের নামাজে যাওয়ার সময় রাস্তায় কুকুর দলের আক্রমনে প্রান গেলো ইজাজুলের সাবেক সাংসদ সেলিমা আহমাদ মেরীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামিলীগের মতবিনিময় সভা

নিজ গ্রামে বাঁধা, শ্বশুরবাড়িতে শেষকৃত

দেশ দিগন্ত ডেক্স:
  • আপডেটের সময় : ০৫:১৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুন ২০২০
  • / ৩৩৫ টাইম ভিউ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পর নিজ গ্রামে সৎকার হলো না এনবিআর-এর ঢাকায় কর অঞ্চল-৩ এর ডেপুটি কর কমিশনার শুধাংশু সাহার। গ্রামবাসীর বাধার মুখে শ্বশুর বাড়িতে তার সৎকার করে প্রশাসন।

শুধাংশু সাহার বাড়ি সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার গাড়ামাসি গ্রামে। মঙ্গলবার বিকেলে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার পাড়াগ্রামে শ্বশুরবাড়ির পারিবারিক শ্মশানঘাটে তার সৎকার করা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করে ঘাটাইলের ইউএনও অঞ্জন কুমার সরকার জানান, করোনা সতর্কতার কারণে শুধাংশু সাহার সৎকারে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন না।

শুধাংশু সাহার স্ত্রী মানসী দাশ জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সোমবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর পর নিজ গ্রামে নেয়া হয় তার স্বামীর মরদেহ। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে গ্রামবাসী সেখানে সৎকার করতে দেয়নি। পরে শ্বশুরবাড়ি নিয়ে গেলে সেখানেও গ্রামবাসী বাধা দেয়। এরপর প্রশাসনের সহযোগিতায় সৎকার করা হয়।

তিনি বলেন, আমি ও আমার ৬ বছরের মেয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে আছি। বাসা লকডাউন করা হয়েছে। বাসা থেকে বের হতে দিচ্ছে না। মৃত্যুর পর আমার স্বামীকে দেখতে পারিনি। তার শেষকৃত্য দেখতে পারিনি। মেয়েও তার বাবাকে শেষ দেখা দেখতে পেল না।#

পোস্ট শেয়ার করুন

নিজ গ্রামে বাঁধা, শ্বশুরবাড়িতে শেষকৃত

আপডেটের সময় : ০৫:১৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুন ২০২০

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পর নিজ গ্রামে সৎকার হলো না এনবিআর-এর ঢাকায় কর অঞ্চল-৩ এর ডেপুটি কর কমিশনার শুধাংশু সাহার। গ্রামবাসীর বাধার মুখে শ্বশুর বাড়িতে তার সৎকার করে প্রশাসন।

শুধাংশু সাহার বাড়ি সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার গাড়ামাসি গ্রামে। মঙ্গলবার বিকেলে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার পাড়াগ্রামে শ্বশুরবাড়ির পারিবারিক শ্মশানঘাটে তার সৎকার করা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করে ঘাটাইলের ইউএনও অঞ্জন কুমার সরকার জানান, করোনা সতর্কতার কারণে শুধাংশু সাহার সৎকারে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন না।

শুধাংশু সাহার স্ত্রী মানসী দাশ জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সোমবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর পর নিজ গ্রামে নেয়া হয় তার স্বামীর মরদেহ। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে গ্রামবাসী সেখানে সৎকার করতে দেয়নি। পরে শ্বশুরবাড়ি নিয়ে গেলে সেখানেও গ্রামবাসী বাধা দেয়। এরপর প্রশাসনের সহযোগিতায় সৎকার করা হয়।

তিনি বলেন, আমি ও আমার ৬ বছরের মেয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে আছি। বাসা লকডাউন করা হয়েছে। বাসা থেকে বের হতে দিচ্ছে না। মৃত্যুর পর আমার স্বামীকে দেখতে পারিনি। তার শেষকৃত্য দেখতে পারিনি। মেয়েও তার বাবাকে শেষ দেখা দেখতে পেল না।#