ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৭’-এর পর্দা উঠলো

অনলাইন ডেস্ক :
  • আপডেটের সময় : ১১:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭
  • / ১৪৭৩ টাইম ভিউ

জমকালো আয়োজনে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব-২০১৭’ এর পর্দা উঠলো গতকাল সন্ধ্যায়। আর এর মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের স্বনামধন্য লোকসংগীত শিল্পীরা তাদের সুরের মায়ায় বাঁধা শুরু করলেন। তৃতীয়বারের এই আয়োজনে তারা মাটির গানের সুর তুলবেন টানা তিনদিন। রাজধানীর বনানীস্থ আর্মি স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয় লোক সংগীতের এই মহা সম্মিলন। গতকাল উৎসবের প্রথম দিন সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতব্যাপী লোকসংগীতের সুরের জাদুতে মুগ্ধ ছিলেন উপস্থিত শ্রোতা-দর্শক। এর আগেই বিকাল থেকে আর্মি স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে লক্ষ্য করা গেছে উৎসব উপভোগ করার জন্য দর্শকদের লম্বা লাইন।

তারা ধৈর্য্য সহকারে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেন। অবশেষে বাংলাদেশের বাউলিয়ানার ক্ষুদে শিল্পীদের পারফর্মের মধ্যে দিয়ে উৎসব শুরু হয়। ধন্য ধন্য বলি তারেসহ বেশ কিছু ফোক গান পরিবেশন করে তারা মুগ্ধ করেন দর্শকদের। এরপর মঞ্চে আসেন ফকির শাহাবুদ্দিন। বাংলাদেশের এই প্রখ্যাত লোকসংগীত শিল্পী মঞ্চে আসতেই তাকে করতালিতে স্বাগত জানান শ্রোতা-দর্শক। কারণ উৎসবের প্রথমদিনের অন্যতম আকর্ষণও ছিলেন তিনি। দয়া করো আমারে, তুই যদি হইতি গলার মালা, বন্দে মায়া লাগাইছে, আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম, এতদিন হে সখাসহ একে একে বিভিন্ন জনপ্রিয় সব ফোক গানে মঞ্চে উপস্থিত দর্শকদের অন্যরকম এক মায়ায় ভাসান ফকির শাহাবুদ্দিন। এরপর রাত পৌনে আটটার দিকে মঞ্চে নিজের পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে অন্যরকম আবহ তৈরি করেন ব্রাজিলিয়ান লোকসংগীতশিল্পী মরিশিও টিজুম্বা। তার অন্যরকম পরিবেশনা চমক তৈরি করে প্রথম দিন। এরপর প্রায় ঘণ্টাব্যাপী নিজের পরিবেশনায় মুগ্ধতা ছড়ান তিব্বতের নেজিন চেওগাল। সব শেষে ভারতের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী পাপন আসেন তার দলসহ। তিনি আসতেই যেন পরিপূর্ণতা লাভ করে প্রথমদিনের ফোক উৎসব। অনেক দর্শক আগ্রহ করছিলেন পাপনের পরিবেশনার। টানা বেশ কিছু গান গেয়ে পাপন ফোক গানের অদ্ভুত মায়ায় বেঁধে রাখেন। এদিকে এবার বাংলাদেশসহ ৮টি দেশের লোকসংগীতশিল্পী গান পরিবেশন করবেন উৎসবে। এদের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এ উৎসবে লোকসংগীত পরিবেশনায় রয়েছেন শাহজাহান মুন্সি, আরিফ দেওয়ান, ফকির শাহাবুদ্দিন, শাহনাজ বেলী, শাহ আলম সরকার, আলেয়া বেগম এবং ব্যান্ড বাউলিয়ানা ও বাউলা। বাংলাদেশের এই প্রখ্যাত শিল্পীদের নিজ দেশের লোকসংগীত পরিবেশন করবেন ভারতের জনপ্রিয় শিল্পী পাপন, বাসুদেব দাস বাউল ও নুরান সিস্টার্স, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী তিব্বতি শিল্পী তেনজিন চোগিয়াল, ব্রাজিলের মোরিসিও টিজুমবাহ এবং ব্যান্ড রাস্তাক (ইরান), মেকাল হাসান (পাকিস্তান), কুটুম্বা (নেপাল) এবং মরুভূমির তিনারিওয়েন (মালি)। এবার আর্মি স্টেডিয়ামে প্রতিদিন ২৫ হাজার দর্শক এই উৎসব উপভোগ করতে পারবেন। ভেন্যুতে প্রবেশের জন্য প্রতিদিনই ই-টিকিট দেখাতে হবে। সঙ্গে রাখা যাবে না কোনো ব্যাগ। নারীদের ক্ষেত্রে ৮-১০ ইঞ্চি ব্যাগ রাখার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এদিকে ভেন্যুতে গিয়ে অনুষ্ঠান দেখার জন্য যারা রেজিস্ট্রেশন করতে পারেননি, তারা মাছরাঙা টেলিভিশনের সৌজন্যে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৭’-এর ফেসবুক ও ইউটিউব চ্যানেলে উৎসবটি উপভোগ করতে পারছেন। মেরিল প্রেজেন্টস ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোকফেস্ট ২০১৭, পাওয়ার্ড বাই ঢাকা ব্যাংক, ফুড পার্টনার রাঁধুনী, হট বেভারেজ পার্টনার ইস্পাহানী, লজিস্টিক পার্টনার বেঙ্গল ডিজিটাল, অ্যাসোসিয়েট পার্টনার গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স, পিআর পার্টনার মিডিয়াকম লিমিটেড, সিকিউরিটি পার্টনার এইজিস সিকিউরিটি ফোর্স, মেডিকেল পার্টনার স্কয়ার হসপিটালস লি., হসপিটালিটি পার্টনার দ্য ওয়েস্টিন ঢাকা, রেডিও পার্টনার রেডিও দিনরাত ৯৩.৬ এফএম, রেজিস্ট্রেশন পার্টনার টিকেটচাই এবং ব্রডকাস্ট পার্টনার মাছরাঙা টেলিভিশন, ফেস্টিভ্যালের আয়োজক সান কমিউনিকেশনস।

পোস্ট শেয়ার করুন

‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৭’-এর পর্দা উঠলো

আপডেটের সময় : ১১:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭

জমকালো আয়োজনে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব-২০১৭’ এর পর্দা উঠলো গতকাল সন্ধ্যায়। আর এর মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের স্বনামধন্য লোকসংগীত শিল্পীরা তাদের সুরের মায়ায় বাঁধা শুরু করলেন। তৃতীয়বারের এই আয়োজনে তারা মাটির গানের সুর তুলবেন টানা তিনদিন। রাজধানীর বনানীস্থ আর্মি স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয় লোক সংগীতের এই মহা সম্মিলন। গতকাল উৎসবের প্রথম দিন সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতব্যাপী লোকসংগীতের সুরের জাদুতে মুগ্ধ ছিলেন উপস্থিত শ্রোতা-দর্শক। এর আগেই বিকাল থেকে আর্মি স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে লক্ষ্য করা গেছে উৎসব উপভোগ করার জন্য দর্শকদের লম্বা লাইন।

তারা ধৈর্য্য সহকারে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেন। অবশেষে বাংলাদেশের বাউলিয়ানার ক্ষুদে শিল্পীদের পারফর্মের মধ্যে দিয়ে উৎসব শুরু হয়। ধন্য ধন্য বলি তারেসহ বেশ কিছু ফোক গান পরিবেশন করে তারা মুগ্ধ করেন দর্শকদের। এরপর মঞ্চে আসেন ফকির শাহাবুদ্দিন। বাংলাদেশের এই প্রখ্যাত লোকসংগীত শিল্পী মঞ্চে আসতেই তাকে করতালিতে স্বাগত জানান শ্রোতা-দর্শক। কারণ উৎসবের প্রথমদিনের অন্যতম আকর্ষণও ছিলেন তিনি। দয়া করো আমারে, তুই যদি হইতি গলার মালা, বন্দে মায়া লাগাইছে, আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম, এতদিন হে সখাসহ একে একে বিভিন্ন জনপ্রিয় সব ফোক গানে মঞ্চে উপস্থিত দর্শকদের অন্যরকম এক মায়ায় ভাসান ফকির শাহাবুদ্দিন। এরপর রাত পৌনে আটটার দিকে মঞ্চে নিজের পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে অন্যরকম আবহ তৈরি করেন ব্রাজিলিয়ান লোকসংগীতশিল্পী মরিশিও টিজুম্বা। তার অন্যরকম পরিবেশনা চমক তৈরি করে প্রথম দিন। এরপর প্রায় ঘণ্টাব্যাপী নিজের পরিবেশনায় মুগ্ধতা ছড়ান তিব্বতের নেজিন চেওগাল। সব শেষে ভারতের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী পাপন আসেন তার দলসহ। তিনি আসতেই যেন পরিপূর্ণতা লাভ করে প্রথমদিনের ফোক উৎসব। অনেক দর্শক আগ্রহ করছিলেন পাপনের পরিবেশনার। টানা বেশ কিছু গান গেয়ে পাপন ফোক গানের অদ্ভুত মায়ায় বেঁধে রাখেন। এদিকে এবার বাংলাদেশসহ ৮টি দেশের লোকসংগীতশিল্পী গান পরিবেশন করবেন উৎসবে। এদের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এ উৎসবে লোকসংগীত পরিবেশনায় রয়েছেন শাহজাহান মুন্সি, আরিফ দেওয়ান, ফকির শাহাবুদ্দিন, শাহনাজ বেলী, শাহ আলম সরকার, আলেয়া বেগম এবং ব্যান্ড বাউলিয়ানা ও বাউলা। বাংলাদেশের এই প্রখ্যাত শিল্পীদের নিজ দেশের লোকসংগীত পরিবেশন করবেন ভারতের জনপ্রিয় শিল্পী পাপন, বাসুদেব দাস বাউল ও নুরান সিস্টার্স, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী তিব্বতি শিল্পী তেনজিন চোগিয়াল, ব্রাজিলের মোরিসিও টিজুমবাহ এবং ব্যান্ড রাস্তাক (ইরান), মেকাল হাসান (পাকিস্তান), কুটুম্বা (নেপাল) এবং মরুভূমির তিনারিওয়েন (মালি)। এবার আর্মি স্টেডিয়ামে প্রতিদিন ২৫ হাজার দর্শক এই উৎসব উপভোগ করতে পারবেন। ভেন্যুতে প্রবেশের জন্য প্রতিদিনই ই-টিকিট দেখাতে হবে। সঙ্গে রাখা যাবে না কোনো ব্যাগ। নারীদের ক্ষেত্রে ৮-১০ ইঞ্চি ব্যাগ রাখার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এদিকে ভেন্যুতে গিয়ে অনুষ্ঠান দেখার জন্য যারা রেজিস্ট্রেশন করতে পারেননি, তারা মাছরাঙা টেলিভিশনের সৌজন্যে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৭’-এর ফেসবুক ও ইউটিউব চ্যানেলে উৎসবটি উপভোগ করতে পারছেন। মেরিল প্রেজেন্টস ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোকফেস্ট ২০১৭, পাওয়ার্ড বাই ঢাকা ব্যাংক, ফুড পার্টনার রাঁধুনী, হট বেভারেজ পার্টনার ইস্পাহানী, লজিস্টিক পার্টনার বেঙ্গল ডিজিটাল, অ্যাসোসিয়েট পার্টনার গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স, পিআর পার্টনার মিডিয়াকম লিমিটেড, সিকিউরিটি পার্টনার এইজিস সিকিউরিটি ফোর্স, মেডিকেল পার্টনার স্কয়ার হসপিটালস লি., হসপিটালিটি পার্টনার দ্য ওয়েস্টিন ঢাকা, রেডিও পার্টনার রেডিও দিনরাত ৯৩.৬ এফএম, রেজিস্ট্রেশন পার্টনার টিকেটচাই এবং ব্রডকাস্ট পার্টনার মাছরাঙা টেলিভিশন, ফেস্টিভ্যালের আয়োজক সান কমিউনিকেশনস।