ঢাকা , শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি ইতালির ভিসেন্সায় সিলেট ডায়নামিক অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত

ঢাকায় ভিক্ষুকের ঘরে মিললো কয়েক বস্তা টাকা

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৯:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০১৯
  • / ৯৯৫ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  রাজধানীর দক্ষিণ মাণ্ডা এলাকার মাদরাসা রোডে জাকির হোসেনের বাড়িতে ‘গুপ্তধন’পাওয়া গেছে এমন খবর গতকাল বুধবার সকালে জড়িয়ে পড়ে। এমন খবরে ওই বাসার চারপাশে ভিড় করে অসংখ্য কৌতূহলী মানুষ। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ।

জাকিরের বাড়িতে সাজেদা বেগম নামে ৭২ বছর বয়সী এক বৃদ্ধার ঘর থেকে ১৩টি বস্তায় ভর্তি ৭৬ হাজার টাকা এবং ৮৮ কেজি কয়েন উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া এসব টাকা ও কয়েন মুগদা থানার হেফাজতে রয়েছে।বাড়িটির মালিক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের অথরাইজড রিপ্রেজেন্টেটিভ (ট্রেজার) জাকির হোসেন বলেন, মাস তিন আগে বৃদ্ধা সাজেদা তার মেয়ে আমেনাকে নিয়ে মাসিক ৪ হাজার টাকায় দুই রুম ভাড়া নেন। প্রতিদিনই রাস্তা থেকে কুড়িয়ে আনা প্লাস্টিকের বস্তা দিয়ে ঘর ভরিয়ে ফেলেন তিনি।

এক মাস ১০ দিন পর আমি তার কাছে ঘর ভাড়া চাই। রাতে এসে দেবেন বলে সেই যে তিনি গেলেন আর ফিরে আসেন নাই।

তিনি আরও বলেন, এভাবে কাটে যায় দুই মাস। ভেবেছিলাম ভাড়া জোগাড় করতে না পারায় তারা আর আসবেন না। অন্য কোথাও উঠেছেন। সাজেদা বেগমের ঘর থেকে বস্তার স্তূপ ও নষ্ট কাপড় সরিয়ে সেগুলো বাইরের বারান্দায় এনে রেখেছিলাম।গত সোমবার সকালে এলাকার কয়েকজন ভাঙারি ব্যবসায়ীকে ডেকে আনি সেগুলো বিক্রি করার জন্য। তারা কয়েকটি বস্তা খুলতে দেখেন বস্তাগুলোতে টাকায় ভরা। পরে কৌতূহলবশত ছোট ছোট ব্যাগগুলো খুললে তার ভেতর থেকে বেরিয়ে আসে প্রচুর কয়েন।ছয় থেকে সাতজন মানুষ দিয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত গুনে পাওয়া যায় ৭৬ হাজার টাকা (এক টাকা, দুই টাকা থেকে শুরু করে ১০০-৫০০ টাকার নোট) ও ৮৮ কেজি টাকার কয়েন (চার আনা থেকে শুরু করে ৫ টাকা)।হঠাৎ হন্তদন্ত হয়ে আমেনাকে নিয়ে হাজির হন মা সাজেদা বেগম। আমেনা জানান, তার বাবা মো. সোবহান বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তার আরও দুই ভাইবোন ছিল। কিন্তু তারাও মারা গেছে। তাই পেটের দায়ে গ্রামের বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা দড়িহাসরাস থেকে তারা ঢাকায় আসে।কোনো কাজ না পেয়ে মা-মেয়ে ভিক্ষা করে দিন চালাতেন।সেই থেকে ভিক্ষার টাকা বস্তায়, কাপড়ের ভাঁজে রাখতে শুরু করেন তার মা। টাকা জমানো তার নেশা।

সাজেদা বেগম জানান, বাড়ি ভাড়ার টাকার জন্য নয়, অসুস্থ হয়ে পড়ায় এতদিন তারা আসতে পারেননি। বস্তায় কত টাকা ছিল তা তিনি জানেন না বলে জানান।এ বিষয়ে মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার শাহা বলেন, টাকার মালিক ভিক্ষুক বৃদ্ধা ও তার মেয়েকে পাওয়া গেছে। বস্তা থেকে উদ্ধার টাকা তাদের কাছে হস্তান্তরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

পোস্ট শেয়ার করুন

ঢাকায় ভিক্ষুকের ঘরে মিললো কয়েক বস্তা টাকা

আপডেটের সময় : ০৯:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  রাজধানীর দক্ষিণ মাণ্ডা এলাকার মাদরাসা রোডে জাকির হোসেনের বাড়িতে ‘গুপ্তধন’পাওয়া গেছে এমন খবর গতকাল বুধবার সকালে জড়িয়ে পড়ে। এমন খবরে ওই বাসার চারপাশে ভিড় করে অসংখ্য কৌতূহলী মানুষ। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ।

জাকিরের বাড়িতে সাজেদা বেগম নামে ৭২ বছর বয়সী এক বৃদ্ধার ঘর থেকে ১৩টি বস্তায় ভর্তি ৭৬ হাজার টাকা এবং ৮৮ কেজি কয়েন উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া এসব টাকা ও কয়েন মুগদা থানার হেফাজতে রয়েছে।বাড়িটির মালিক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের অথরাইজড রিপ্রেজেন্টেটিভ (ট্রেজার) জাকির হোসেন বলেন, মাস তিন আগে বৃদ্ধা সাজেদা তার মেয়ে আমেনাকে নিয়ে মাসিক ৪ হাজার টাকায় দুই রুম ভাড়া নেন। প্রতিদিনই রাস্তা থেকে কুড়িয়ে আনা প্লাস্টিকের বস্তা দিয়ে ঘর ভরিয়ে ফেলেন তিনি।

এক মাস ১০ দিন পর আমি তার কাছে ঘর ভাড়া চাই। রাতে এসে দেবেন বলে সেই যে তিনি গেলেন আর ফিরে আসেন নাই।

তিনি আরও বলেন, এভাবে কাটে যায় দুই মাস। ভেবেছিলাম ভাড়া জোগাড় করতে না পারায় তারা আর আসবেন না। অন্য কোথাও উঠেছেন। সাজেদা বেগমের ঘর থেকে বস্তার স্তূপ ও নষ্ট কাপড় সরিয়ে সেগুলো বাইরের বারান্দায় এনে রেখেছিলাম।গত সোমবার সকালে এলাকার কয়েকজন ভাঙারি ব্যবসায়ীকে ডেকে আনি সেগুলো বিক্রি করার জন্য। তারা কয়েকটি বস্তা খুলতে দেখেন বস্তাগুলোতে টাকায় ভরা। পরে কৌতূহলবশত ছোট ছোট ব্যাগগুলো খুললে তার ভেতর থেকে বেরিয়ে আসে প্রচুর কয়েন।ছয় থেকে সাতজন মানুষ দিয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত গুনে পাওয়া যায় ৭৬ হাজার টাকা (এক টাকা, দুই টাকা থেকে শুরু করে ১০০-৫০০ টাকার নোট) ও ৮৮ কেজি টাকার কয়েন (চার আনা থেকে শুরু করে ৫ টাকা)।হঠাৎ হন্তদন্ত হয়ে আমেনাকে নিয়ে হাজির হন মা সাজেদা বেগম। আমেনা জানান, তার বাবা মো. সোবহান বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তার আরও দুই ভাইবোন ছিল। কিন্তু তারাও মারা গেছে। তাই পেটের দায়ে গ্রামের বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা দড়িহাসরাস থেকে তারা ঢাকায় আসে।কোনো কাজ না পেয়ে মা-মেয়ে ভিক্ষা করে দিন চালাতেন।সেই থেকে ভিক্ষার টাকা বস্তায়, কাপড়ের ভাঁজে রাখতে শুরু করেন তার মা। টাকা জমানো তার নেশা।

সাজেদা বেগম জানান, বাড়ি ভাড়ার টাকার জন্য নয়, অসুস্থ হয়ে পড়ায় এতদিন তারা আসতে পারেননি। বস্তায় কত টাকা ছিল তা তিনি জানেন না বলে জানান।এ বিষয়ে মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার শাহা বলেন, টাকার মালিক ভিক্ষুক বৃদ্ধা ও তার মেয়েকে পাওয়া গেছে। বস্তা থেকে উদ্ধার টাকা তাদের কাছে হস্তান্তরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।