ঢাকা , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জুড়ীর ফুলতলায় জোরপূর্বক গাছ কর্তন, ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি

জুড়ী (মৌলভীবজার) প্রতিনিধি:
  • আপডেটের সময় : ০৩:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ অগাস্ট ২০২০
  • / ৩৬০ টাইম ভিউ

মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার ফুলতলায় জায়গা দখলের উদ্দেশ্যে জোরপূর্বক গাছপালা কর্তন করে টাকার সাধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি গত বুধবার ২৯ জুলাই ভোরে উপজেলার ফুলতলা ইউনিয়নের ২২নং খাসিয়া পুঞ্জি এলাকায় ঘটেছে।

ক্ষতিগ্রস্থ তসিদ আলী (গুটা) অভিযোগ করে বলেন, বন বিভাগের উক্ত জায়গায় তিনি বিগত বিশ বছর থেকে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। সেখানে পান, সুপারী, কলা, আনারসসহ বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ ও তা বিক্রি করে এগার সদস্যের পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। সম্প্রতি ফুলতলা বস্থির বাসিন্দা দুলাল ও তার ভাই বাবুল গং উক্ত জায়গাটি দখল করার তৎপরতা শুরু করে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে এবং গাছপালা কর্তন করতে থাকে। গত বুধবার ভোরে দুলাল-বাবুলের নেতৃত্বে ১৫/২০ লোক দলবদ্ধ ভাবে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে তসিদের পরিবারের উপর হামলা চালায়। ছোট ছোট বাচ্চাদের গলায় দা ধরে পরিবারকে জিম্মি করে তসিদের কষ্টে গড়া বাগানে তান্ডব চালায়। পান, সুপারী, কলা, আনারস গাছ কেটে উপড়ে ফেলে এবং বিভিন্ন সবজির বাগান কেটে তছনছ করে ফেলে। এতে প্রায় ৮ লাখ টাকার ক্ষতি সাধন হয়। সেই সাথে সেখানে জায়গা দখল করে একটি ঘর নির্মাণ করে। যাবার সময় জায়গাটি ছেড়ে চলে যাবার হুমকি দিয়ে যায়।

তসিদ আলী বলেন, এ ঘটনার পাশাপাশি দুলাল দীর্ঘদিন থেকে তসিদের মেয়েকে উত্যক্ত করে আসছে। তার উৎপাতে নিরাপত্তার অভাবে দুই বছর থেকে মেয়ের লেখাপড়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিন পরিদর্শনে তান্ডবলিলার মাধ্যমে গাছপালা কর্তন ও উপড়ে ফেলার এক বিভৎস চিত্র পরিলক্ষিত হয়। ব্যাপক ক্ষতির শিকার ও নানাবিধ হুমকির কারণে বৃদ্ধা মা, স্ত্রী, ৬ মেয়ে ও ২ পুত্র নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে মানবেতর দিন যাপন করছেন তসিদ আলী। তিনি ন্যায় বিচার কামনা করেন।

অভিযুক্ত দুলাল মিয়া বলেন, উক্ত জায়গা আমার বাবার মালিকানাধীন। তসিদকে পাহারাদার রাখা হয়েছিল। এখন সে জায়গা ছাড়ছেনা।

সিলেট বন বিভাগের জুড়ী রেঞ্জের আওতাধীন সাগরনাল বন বিটের বিট কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, বন বিভাগের উক্ত জায়গায় দুলাল গং অবৈধ ভাবে গৃহ নির্মাণের খবর পেয়ে জুড়ী রেঞ্জ কর্মকর্তার নেতৃত্বে মঙ্গলবার সকালে অভিযান পরিচালনা করে সেটা উচ্ছেদ করা হয় এবং দুলাল গংদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

তিনি জানান, বন বিভাগের উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে, পর্যায়ক্রমে সকল অবৈধ দখল উচ্ছেদ করে বনের জায়গা উদ্ধার করা হবে।#

পোস্ট শেয়ার করুন

জুড়ীর ফুলতলায় জোরপূর্বক গাছ কর্তন, ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি

আপডেটের সময় : ০৩:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ অগাস্ট ২০২০

মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার ফুলতলায় জায়গা দখলের উদ্দেশ্যে জোরপূর্বক গাছপালা কর্তন করে টাকার সাধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি গত বুধবার ২৯ জুলাই ভোরে উপজেলার ফুলতলা ইউনিয়নের ২২নং খাসিয়া পুঞ্জি এলাকায় ঘটেছে।

ক্ষতিগ্রস্থ তসিদ আলী (গুটা) অভিযোগ করে বলেন, বন বিভাগের উক্ত জায়গায় তিনি বিগত বিশ বছর থেকে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। সেখানে পান, সুপারী, কলা, আনারসসহ বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ ও তা বিক্রি করে এগার সদস্যের পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। সম্প্রতি ফুলতলা বস্থির বাসিন্দা দুলাল ও তার ভাই বাবুল গং উক্ত জায়গাটি দখল করার তৎপরতা শুরু করে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে এবং গাছপালা কর্তন করতে থাকে। গত বুধবার ভোরে দুলাল-বাবুলের নেতৃত্বে ১৫/২০ লোক দলবদ্ধ ভাবে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে তসিদের পরিবারের উপর হামলা চালায়। ছোট ছোট বাচ্চাদের গলায় দা ধরে পরিবারকে জিম্মি করে তসিদের কষ্টে গড়া বাগানে তান্ডব চালায়। পান, সুপারী, কলা, আনারস গাছ কেটে উপড়ে ফেলে এবং বিভিন্ন সবজির বাগান কেটে তছনছ করে ফেলে। এতে প্রায় ৮ লাখ টাকার ক্ষতি সাধন হয়। সেই সাথে সেখানে জায়গা দখল করে একটি ঘর নির্মাণ করে। যাবার সময় জায়গাটি ছেড়ে চলে যাবার হুমকি দিয়ে যায়।

তসিদ আলী বলেন, এ ঘটনার পাশাপাশি দুলাল দীর্ঘদিন থেকে তসিদের মেয়েকে উত্যক্ত করে আসছে। তার উৎপাতে নিরাপত্তার অভাবে দুই বছর থেকে মেয়ের লেখাপড়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিন পরিদর্শনে তান্ডবলিলার মাধ্যমে গাছপালা কর্তন ও উপড়ে ফেলার এক বিভৎস চিত্র পরিলক্ষিত হয়। ব্যাপক ক্ষতির শিকার ও নানাবিধ হুমকির কারণে বৃদ্ধা মা, স্ত্রী, ৬ মেয়ে ও ২ পুত্র নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে মানবেতর দিন যাপন করছেন তসিদ আলী। তিনি ন্যায় বিচার কামনা করেন।

অভিযুক্ত দুলাল মিয়া বলেন, উক্ত জায়গা আমার বাবার মালিকানাধীন। তসিদকে পাহারাদার রাখা হয়েছিল। এখন সে জায়গা ছাড়ছেনা।

সিলেট বন বিভাগের জুড়ী রেঞ্জের আওতাধীন সাগরনাল বন বিটের বিট কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, বন বিভাগের উক্ত জায়গায় দুলাল গং অবৈধ ভাবে গৃহ নির্মাণের খবর পেয়ে জুড়ী রেঞ্জ কর্মকর্তার নেতৃত্বে মঙ্গলবার সকালে অভিযান পরিচালনা করে সেটা উচ্ছেদ করা হয় এবং দুলাল গংদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

তিনি জানান, বন বিভাগের উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে, পর্যায়ক্রমে সকল অবৈধ দখল উচ্ছেদ করে বনের জায়গা উদ্ধার করা হবে।#