ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাহালমকে দুধ দিয়ে গোসল করালেন মা

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ১০:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
  • / ৯০৩ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ   বিনাদোষে তিন বছর কারাভোগের পর উচ্চ আদালতের নির্দেশে মুক্তি পেয়েছেন পাটকল শ্রমিক জাহালম। রোববার রাত ১২টা ৫৮ মিনিটে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

মুক্তির পর জাহালম তার ভাই শাহানুর মিয়াকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন। কারাগার থেকে ভাই শাহানূরের সঙ্গে ভোররাত ৪টায় গ্রামের বাড়িতে আসেন জাহালম।

রাতের অন্ধকারে ঘন কুয়াশায় মোবাইলের আলো দূর থেকে দেখে ছুটে এলেন মা মনোয়ারা।

 জাহালমকে দেখে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠে জড়িয়ে ধরলেন মনোয়ারা। জাহালমের কপালে চুমু দিয়ে চিৎকার দিয়ে বলে উঠলেন- ‘কার মাথায় বাড়ি দিছিলাম যে আমার এত বড় সর্বনাশ করেছিল।’

আহাজারি করেন জাহালমের ভাইবোন ও স্বজনরাও। শেষে জাহালমকে দুধ দিয়ে গোসল করিয়ে ঘরে তোলা হয়।

এর আগে রোববার সকালে হাইকোর্ট বলেন, ‘কোনো নির্দোষ ব্যক্তিকে ১ মিনিটও কারাগারে রাখার পক্ষে না আমরা। এই ভুল তদন্তে কোনো সিন্ডিকেট জড়িত কিনা, সিন্ডিকেট থাকলে কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা চিহ্নিত করে আদালতকে জানাতে হবে। না হলে আদালত এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে। এ রকম ভুলের দায় দুদক কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।’

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এ আদেশ দেন।

সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে আবু সালেক নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা করে দুদক। কিন্তু দুদকের ভুলে সালেকের বদলে তিন বছর কারাগারে কাটাতে হয়েছে টাঙ্গাইলের জাহালমকে।

পোস্ট শেয়ার করুন

জাহালমকে দুধ দিয়ে গোসল করালেন মা

আপডেটের সময় : ১০:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ   বিনাদোষে তিন বছর কারাভোগের পর উচ্চ আদালতের নির্দেশে মুক্তি পেয়েছেন পাটকল শ্রমিক জাহালম। রোববার রাত ১২টা ৫৮ মিনিটে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

মুক্তির পর জাহালম তার ভাই শাহানুর মিয়াকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন। কারাগার থেকে ভাই শাহানূরের সঙ্গে ভোররাত ৪টায় গ্রামের বাড়িতে আসেন জাহালম।

রাতের অন্ধকারে ঘন কুয়াশায় মোবাইলের আলো দূর থেকে দেখে ছুটে এলেন মা মনোয়ারা।

 জাহালমকে দেখে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠে জড়িয়ে ধরলেন মনোয়ারা। জাহালমের কপালে চুমু দিয়ে চিৎকার দিয়ে বলে উঠলেন- ‘কার মাথায় বাড়ি দিছিলাম যে আমার এত বড় সর্বনাশ করেছিল।’

আহাজারি করেন জাহালমের ভাইবোন ও স্বজনরাও। শেষে জাহালমকে দুধ দিয়ে গোসল করিয়ে ঘরে তোলা হয়।

এর আগে রোববার সকালে হাইকোর্ট বলেন, ‘কোনো নির্দোষ ব্যক্তিকে ১ মিনিটও কারাগারে রাখার পক্ষে না আমরা। এই ভুল তদন্তে কোনো সিন্ডিকেট জড়িত কিনা, সিন্ডিকেট থাকলে কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা চিহ্নিত করে আদালতকে জানাতে হবে। না হলে আদালত এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে। এ রকম ভুলের দায় দুদক কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।’

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এ আদেশ দেন।

সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে আবু সালেক নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা করে দুদক। কিন্তু দুদকের ভুলে সালেকের বদলে তিন বছর কারাগারে কাটাতে হয়েছে টাঙ্গাইলের জাহালমকে।