ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
প্রিয়জনদের মানসিক রোগ যদি আপনজন বুঝতে না পারেন আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ও অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা করেছে পর্তুগাল আওয়ামীলীগ যেকোনো প্রচেষ্টা এককভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব নয়: দুদক সচিব শ্রীমঙ্গলে দুটি চোরাই মোটরসাইকেল সহ মিল্টন কুমার আটক পর্তুগালের অভিবাসন আইনে ব্যাপক পরিবর্তন পর্তুগাল বিএনপি আহবায়ক কমিটির জুমে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয় এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে…

জামিন পেয়েই রিয়া রায় বলেন, ‘আমি আসলে নির্দোষ

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২১
  • / ৩৮২ টাইম ভিউ

সিলেটের ‘লেডি বাইকার’ খ্যাত রিয়া রায় মাদক মামলায় অনেক দিন থেকেই পলাতক ছিলেন। পরে আগাম জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন তিনি। তার হয়ে আদালতে লড়াই করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ‘লেডি বাইকার’ রিয়া রায়কে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতোয়ার রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
জামিন পেয়ে বেশ কিছুদিন লোকচক্ষুর থাকা রিয়া মুখোমুখি হয়েছেন গণমাধ্যমের। এক গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রিয়া রায় বলেন, ‘আমি আসলে নির্দোষ। আমি আইনের কাছে এটাই চাইবো যে- সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ বিচার হোক। আমি যদি দোষী হই তাহলে অবশ্যই আমার বিচার হোক। আমি যে কোনো শাস্তি মাথা পেতে নেবো। কিন্তু আমি জানি যে- আমি দোষী নই।’
এসময় রিয়ার পক্ষে আদালতে লড়াইকারী ব্যারিস্টার সুমন বলেন, রিয়ার মতো মেয়েরাই আগামীতে দেশে নেতৃত্ব দেবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত একটি মাদক মামলায় তিনি আসামি। একটি প্রাইভেট কারে পুলিশ ১০ পিস ইয়াবা পায়। সেই প্রাইভেট কারে যিনি ছিলেন তার জবানবন্দিতে রিয়া তার সঙ্গে ছিলো বলে জানায়। কিন্তু কাউকে মাদকদ্রব্যসহ হাতেনাতে ধরতে না পারলে সেই মামলা অনেকটা দুর্বল হয়ে যায়।
ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, এটি একটি সন্দেহমূলক মামলা। রিয়া রায় যেহেতু এখনও লেখাপড়া করছে, বয়স অল্প, যদি সে নির্দোষ হয়েও শাস্তি পায় তবে তার সম্পূর্ণ জীবনটাই বরবাদ হয়ে যাবে। তাই যাতে সে ন্যায়বিচার পায় সে জন্যই তার পক্ষে আমি আদালতে দাঁড়িয়েছি।
উল্লেখ্য, সিলেটে বেশ পরিচিত মুখ ‘লেডি বাইকার’ রিয়া রায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মোটরসাইকেল চালানোর ভিডিও প্রকাশ করে তিনি ‘লেডি বাইকার’ বলে পরিচিতিও পান। তবে প্রাইভেটকার থেকে মাদক উদ্ধারের এক ঘটনায় রিয়ার বিরুদ্ধে গত ৮ নভেম্বর সিলেটের বিমানবন্দর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে পুলিশ। সেই মামলার আসামি হয়ে তিনি এতদিন আত্মগোপনে ছিলেন।

পোস্ট শেয়ার করুন

জামিন পেয়েই রিয়া রায় বলেন, ‘আমি আসলে নির্দোষ

আপডেটের সময় : ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২১

সিলেটের ‘লেডি বাইকার’ খ্যাত রিয়া রায় মাদক মামলায় অনেক দিন থেকেই পলাতক ছিলেন। পরে আগাম জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন তিনি। তার হয়ে আদালতে লড়াই করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ‘লেডি বাইকার’ রিয়া রায়কে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতোয়ার রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
জামিন পেয়ে বেশ কিছুদিন লোকচক্ষুর থাকা রিয়া মুখোমুখি হয়েছেন গণমাধ্যমের। এক গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রিয়া রায় বলেন, ‘আমি আসলে নির্দোষ। আমি আইনের কাছে এটাই চাইবো যে- সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ বিচার হোক। আমি যদি দোষী হই তাহলে অবশ্যই আমার বিচার হোক। আমি যে কোনো শাস্তি মাথা পেতে নেবো। কিন্তু আমি জানি যে- আমি দোষী নই।’
এসময় রিয়ার পক্ষে আদালতে লড়াইকারী ব্যারিস্টার সুমন বলেন, রিয়ার মতো মেয়েরাই আগামীতে দেশে নেতৃত্ব দেবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত একটি মাদক মামলায় তিনি আসামি। একটি প্রাইভেট কারে পুলিশ ১০ পিস ইয়াবা পায়। সেই প্রাইভেট কারে যিনি ছিলেন তার জবানবন্দিতে রিয়া তার সঙ্গে ছিলো বলে জানায়। কিন্তু কাউকে মাদকদ্রব্যসহ হাতেনাতে ধরতে না পারলে সেই মামলা অনেকটা দুর্বল হয়ে যায়।
ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, এটি একটি সন্দেহমূলক মামলা। রিয়া রায় যেহেতু এখনও লেখাপড়া করছে, বয়স অল্প, যদি সে নির্দোষ হয়েও শাস্তি পায় তবে তার সম্পূর্ণ জীবনটাই বরবাদ হয়ে যাবে। তাই যাতে সে ন্যায়বিচার পায় সে জন্যই তার পক্ষে আমি আদালতে দাঁড়িয়েছি।
উল্লেখ্য, সিলেটে বেশ পরিচিত মুখ ‘লেডি বাইকার’ রিয়া রায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মোটরসাইকেল চালানোর ভিডিও প্রকাশ করে তিনি ‘লেডি বাইকার’ বলে পরিচিতিও পান। তবে প্রাইভেটকার থেকে মাদক উদ্ধারের এক ঘটনায় রিয়ার বিরুদ্ধে গত ৮ নভেম্বর সিলেটের বিমানবন্দর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে পুলিশ। সেই মামলার আসামি হয়ে তিনি এতদিন আত্মগোপনে ছিলেন।