ঢাকা , রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল

চোখে অপারেশন না হলে আমিও গিয়ে ধান কাটতাম

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ১১:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০১৯
  • / ৩৮৩ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  কোনো কাজই ছোট কাজ নয় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একবার ফুলপ্যান্ট পরলে আর লুঙ্গি পরা যাবে না বা গামছা পরে মাঠে যাওয়া যাবে না এই চিন্তাটা যেন মাথায় না আসে। মানুষকে বলতে হবে, বোঝাতে হবে। প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে।

রোববার (২৩ জুন) রাজধানীর শাহবাগে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে চলমান ১১০তম, ১১১তম এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

চোখে অপারেশন না হলে নিজেই ধান কাটতে যেতেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে। আমি তো বলেছিলাম দরকার হলে আমি নিজে যাবো। আমার চোখে অপারেশন না হলে আমি ঠিকই চলে যেতাম। আমি দেখিয়ে দিতাম আমার কাছে সব কাজ সমান।

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, শিক্ষায় আমরা সবাইকে উৎসাহিত করছি কিন্তু কোনো কাজ যে ছোট কাজ না সেটা মাথায় রাখতে হবে। লেখাপড়া শিখলে ধান কাটতে পারবো না এই মানসিকতা থাকতে পারবে না।

তিনি বলেন, খালি বলেন ধান কাটা নিয়ে সমস্যা ধান কাটার লোক পাওয়া যায় না। আমি যখন ছাত্রলীগকে হুকুম দিলাম সবাই লেগে যাও, যার যার এলাকায়। সবাইকে মাঠে গিয়ে ধান কাটতে হবে, শিখতে হবে। যিনি জানেন এ রকম কৃষককে সঙ্গে নিতে হবে। ধান কাটার একটা নিয়ম আছে।

প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের দেশপ্রেম নিয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে জায়গায় যাবেন খালি চাকরির জন্য চাকরি করা নয়, জনসেবা করা, দেশসেবা করা, দেশকে ভালোবাসা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা একথাটা মনে রাখতে হবে। শুধু চাকরি করার জন্য চাকরি করা নয়, কর্তব্যবোধ, দেশের প্রতি ভালোবাসা, জনগণের প্রতি ভালোবাসা এবং তাদের প্রতি দায়িত্ববোধ- এই চিন্তাটা সব সময় মাথায় থাকলে দেশটাকে সুন্দরভাবে গড়ে গড়ে তোলা যায়।

তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন কর্মক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন এনেছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাঠ প্রশাসনে যারা কাজ করবেন ওখানকার সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে হবে। জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। তারা যেন ন্যায়বিচার পায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। শুধু গতানুগতিকভাবে দেশ চালালে চলবে না, দেশটাকে আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন করে গড়ে তুলতে হবে একেবারে তৃণমূল পর্যায় থেকে। দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারলে সব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, দুর্নীতি সমাজটাকে ধ্বংস করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশটাকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন বলেই আজ সর্বক্ষেত্রে বাঙালিরাই স্থান করে নিতে পারছে বাঙালিরা যে পারে সেটাই হচ্ছে বড় কথা।

আওয়ামী লীগ সরকারের জনকল্যাণমূলক কাজের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। যে কারণে আপনারা দেখবেন আওয়ামী লীগ যখন সরকারে আসে তখন কিন্তু দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়।

১১০তম, ১১১তম এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের প্রশিক্ষনার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জনপ্রশাসন বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এইচ এন আশিকুর রহমান, জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহম্মদ, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর কাজী রওশন আক্তার।

প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে রেক্টর অ্যাওয়ার্ড পাওয়া দু’জন শিক্ষার্থী ও বক্তব্য রাখেন।

পোস্ট শেয়ার করুন

চোখে অপারেশন না হলে আমিও গিয়ে ধান কাটতাম

আপডেটের সময় : ১১:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  কোনো কাজই ছোট কাজ নয় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একবার ফুলপ্যান্ট পরলে আর লুঙ্গি পরা যাবে না বা গামছা পরে মাঠে যাওয়া যাবে না এই চিন্তাটা যেন মাথায় না আসে। মানুষকে বলতে হবে, বোঝাতে হবে। প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে।

রোববার (২৩ জুন) রাজধানীর শাহবাগে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে চলমান ১১০তম, ১১১তম এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

চোখে অপারেশন না হলে নিজেই ধান কাটতে যেতেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে। আমি তো বলেছিলাম দরকার হলে আমি নিজে যাবো। আমার চোখে অপারেশন না হলে আমি ঠিকই চলে যেতাম। আমি দেখিয়ে দিতাম আমার কাছে সব কাজ সমান।

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, শিক্ষায় আমরা সবাইকে উৎসাহিত করছি কিন্তু কোনো কাজ যে ছোট কাজ না সেটা মাথায় রাখতে হবে। লেখাপড়া শিখলে ধান কাটতে পারবো না এই মানসিকতা থাকতে পারবে না।

তিনি বলেন, খালি বলেন ধান কাটা নিয়ে সমস্যা ধান কাটার লোক পাওয়া যায় না। আমি যখন ছাত্রলীগকে হুকুম দিলাম সবাই লেগে যাও, যার যার এলাকায়। সবাইকে মাঠে গিয়ে ধান কাটতে হবে, শিখতে হবে। যিনি জানেন এ রকম কৃষককে সঙ্গে নিতে হবে। ধান কাটার একটা নিয়ম আছে।

প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের দেশপ্রেম নিয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে জায়গায় যাবেন খালি চাকরির জন্য চাকরি করা নয়, জনসেবা করা, দেশসেবা করা, দেশকে ভালোবাসা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা একথাটা মনে রাখতে হবে। শুধু চাকরি করার জন্য চাকরি করা নয়, কর্তব্যবোধ, দেশের প্রতি ভালোবাসা, জনগণের প্রতি ভালোবাসা এবং তাদের প্রতি দায়িত্ববোধ- এই চিন্তাটা সব সময় মাথায় থাকলে দেশটাকে সুন্দরভাবে গড়ে গড়ে তোলা যায়।

তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন কর্মক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন এনেছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাঠ প্রশাসনে যারা কাজ করবেন ওখানকার সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে হবে। জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। তারা যেন ন্যায়বিচার পায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। শুধু গতানুগতিকভাবে দেশ চালালে চলবে না, দেশটাকে আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন করে গড়ে তুলতে হবে একেবারে তৃণমূল পর্যায় থেকে। দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারলে সব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, দুর্নীতি সমাজটাকে ধ্বংস করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশটাকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন বলেই আজ সর্বক্ষেত্রে বাঙালিরাই স্থান করে নিতে পারছে বাঙালিরা যে পারে সেটাই হচ্ছে বড় কথা।

আওয়ামী লীগ সরকারের জনকল্যাণমূলক কাজের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। যে কারণে আপনারা দেখবেন আওয়ামী লীগ যখন সরকারে আসে তখন কিন্তু দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়।

১১০তম, ১১১তম এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের প্রশিক্ষনার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জনপ্রশাসন বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এইচ এন আশিকুর রহমান, জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহম্মদ, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর কাজী রওশন আক্তার।

প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে রেক্টর অ্যাওয়ার্ড পাওয়া দু’জন শিক্ষার্থী ও বক্তব্য রাখেন।