ঢাকা , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থার উদ্যোগে প্রায় ৪০০ জনের মধ্যে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হ্যান্ড গ্লাবস বিতরন

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ১০:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০
  • / ৩৪৯ টাইম ভিউ

নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্রামীন উন্নয়ন যুব সংস্থা (যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের রেজিস্ট্রেশন কৃত) কুলাউড়া মৌলভীবাজার এর পক্ষ থেকে সংস্থার সভাপতি রেজাউল আম্বিয়া রাজুর সার্বিক সহযোগিতায় কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রামক রোগ থেকে বাঁচার জন্য প্রায় ৪০০ জন হত দরিদ্র, দু:স্থ, সিএনজি চালক, রিক্সা চালক, ভ্যান চালক, রাজমিস্ত্রী এবং অসহায় পুরুষ মহিলাদের মধ্যে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাবস সরকারের নির্দেশনা মেনে বিতরন করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলার সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সৈয়দ আপেল মাহমুদ। তিনি বলেন করোনা ভাইরাস একটি মরনব্যাধি রোগ, এর সংক্রামন থেকে বাচতে হলে অবশ্যই আমাদেরকে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখতে হবে। খুব দুঃখের সহিত বলতে হচ্ছে হতদরিদ্র, দিনমজুর ও নিম্ন আয়ের মানুষরা আজ আর্থিক ও খাদ্য সংকটে আছেন।

আমার মতে গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থা যে ভাবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন, সেটা অন্যান্য সংগঠনের জন্য একটা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আমি এর জন্য আমার ব্যাক্তিগত এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সংস্থার সভাপতি রেজাউল আম্বিয়া রাজুকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি পাশাপাশি আমি মনে করি গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থার মতো আমাদের সকল যুব সংগঠনেরও এগিয়ে আসা উচিৎ। আমার বিশ্বাস যে কোন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে মহামারি করোনা ভাইরাসের মতো অসহায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে সংস্থার পক্ষ থেকে সংস্থার সহযোগীতা অভ্যাহত থাকবে।

পোস্ট শেয়ার করুন

গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থার উদ্যোগে প্রায় ৪০০ জনের মধ্যে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হ্যান্ড গ্লাবস বিতরন

আপডেটের সময় : ১০:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্রামীন উন্নয়ন যুব সংস্থা (যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের রেজিস্ট্রেশন কৃত) কুলাউড়া মৌলভীবাজার এর পক্ষ থেকে সংস্থার সভাপতি রেজাউল আম্বিয়া রাজুর সার্বিক সহযোগিতায় কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রামক রোগ থেকে বাঁচার জন্য প্রায় ৪০০ জন হত দরিদ্র, দু:স্থ, সিএনজি চালক, রিক্সা চালক, ভ্যান চালক, রাজমিস্ত্রী এবং অসহায় পুরুষ মহিলাদের মধ্যে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাবস সরকারের নির্দেশনা মেনে বিতরন করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলার সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সৈয়দ আপেল মাহমুদ। তিনি বলেন করোনা ভাইরাস একটি মরনব্যাধি রোগ, এর সংক্রামন থেকে বাচতে হলে অবশ্যই আমাদেরকে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখতে হবে। খুব দুঃখের সহিত বলতে হচ্ছে হতদরিদ্র, দিনমজুর ও নিম্ন আয়ের মানুষরা আজ আর্থিক ও খাদ্য সংকটে আছেন।

আমার মতে গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থা যে ভাবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন, সেটা অন্যান্য সংগঠনের জন্য একটা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আমি এর জন্য আমার ব্যাক্তিগত এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সংস্থার সভাপতি রেজাউল আম্বিয়া রাজুকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি পাশাপাশি আমি মনে করি গ্রামীণ উন্নয়ন যুব সংস্থার মতো আমাদের সকল যুব সংগঠনেরও এগিয়ে আসা উচিৎ। আমার বিশ্বাস যে কোন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে মহামারি করোনা ভাইরাসের মতো অসহায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে সংস্থার পক্ষ থেকে সংস্থার সহযোগীতা অভ্যাহত থাকবে।