ঢাকা , বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

খালেদা জিয়া’র মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোয় মত দিয়েছে মন্ত্রণালয়

দেশ দিগন্ত ডেক্স:
  • আপডেটের সময় : ০৮:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০
  • / ৪৭১ টাইম ভিউ

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাস বাড়ানোয় মত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। বাসায় থেকে চিকিৎসা নেয়ার শর্তে ওই মেয়াদ বাড়ানো হয়। বৃহস্পতিবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণম্যধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আইনমন্ত্রী জানান, আবেদনে তারা স্থায়ী মুক্তির আবেদন করেছিলেন। আমরা আইনগত দিক থেকে সাজা ছয় মাস স্থগিত করে ওই সময় পর্যন্ত তার মুক্ত থাকার মেয়াদ বাড়ানোর মতামত দিয়েছি।

তিনি বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের এই মতামত তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন। এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিষয়টি পাঠানো হবে। এটি প্যারোল বা জামিন মুক্তি নয়। ফৌজদারি কার্যবিধিতে সরকারের যে ক্ষমতা রয়েছে সেই ক্ষমতাবলে সাজা স্থগিত করে এই মুক্তির বিষয় এসেছে।

এর আগে, মঙ্গলবার খালেদা জিয়াকে স্থায়ীভাবে মুক্তি দিতে সরকারের কাছে আবেদন করে তার পরিবার। খালেদা জিয়ার ছোটভাই শামীম ইস্কান্দার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে এই আবেদন করেন। আবেদনে খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে তার স্থায়ী মুক্তি চাওয়া হয়। এছাড়া খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর বিষয়ও বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত মার্চে সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার দণ্ডাদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে শর্ত সাপেক্ষে তাকে মুক্তি দেয় সরকার। যার মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর।

গত ২৫ মাস সাজা ভোগের পর মুক্তি পেয়ে গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজায় উঠেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। এরপর থেকেই সেখানে আছেন তিনি। মুক্তি দিন থেকেই ফিরোজার দোতলার ঘরে খালেদা জিয়া কোয়ারেন্টাইনে আছেন। তার সঙ্গে নার্সসহ কয়েকজন রয়েছেন।#

পোস্ট শেয়ার করুন

খালেদা জিয়া’র মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোয় মত দিয়েছে মন্ত্রণালয়

আপডেটের সময় : ০৮:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাস বাড়ানোয় মত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। বাসায় থেকে চিকিৎসা নেয়ার শর্তে ওই মেয়াদ বাড়ানো হয়। বৃহস্পতিবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণম্যধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আইনমন্ত্রী জানান, আবেদনে তারা স্থায়ী মুক্তির আবেদন করেছিলেন। আমরা আইনগত দিক থেকে সাজা ছয় মাস স্থগিত করে ওই সময় পর্যন্ত তার মুক্ত থাকার মেয়াদ বাড়ানোর মতামত দিয়েছি।

তিনি বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের এই মতামত তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন। এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিষয়টি পাঠানো হবে। এটি প্যারোল বা জামিন মুক্তি নয়। ফৌজদারি কার্যবিধিতে সরকারের যে ক্ষমতা রয়েছে সেই ক্ষমতাবলে সাজা স্থগিত করে এই মুক্তির বিষয় এসেছে।

এর আগে, মঙ্গলবার খালেদা জিয়াকে স্থায়ীভাবে মুক্তি দিতে সরকারের কাছে আবেদন করে তার পরিবার। খালেদা জিয়ার ছোটভাই শামীম ইস্কান্দার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে এই আবেদন করেন। আবেদনে খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে তার স্থায়ী মুক্তি চাওয়া হয়। এছাড়া খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর বিষয়ও বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত মার্চে সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার দণ্ডাদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে শর্ত সাপেক্ষে তাকে মুক্তি দেয় সরকার। যার মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর।

গত ২৫ মাস সাজা ভোগের পর মুক্তি পেয়ে গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজায় উঠেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। এরপর থেকেই সেখানে আছেন তিনি। মুক্তি দিন থেকেই ফিরোজার দোতলার ঘরে খালেদা জিয়া কোয়ারেন্টাইনে আছেন। তার সঙ্গে নার্সসহ কয়েকজন রয়েছেন।#