ঢাকা , শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি ইতালির ভিসেন্সায় সিলেট ডায়নামিক অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত

কোহিনুর ইসলাম তানভিরের টরন্টো বাসির প্রতি আহবান

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০১:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০
  • / ৩৭২ টাইম ভিউ

কোহিনুর ইসলাম তানভিরের টরন্টো বাসি প্রতি আহবান

ঘরকুনো বাংলাদেশী আজ ঘরের বাইরে। অচলায়তন ভেঙে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়। জীবন সাজাতে কিংবা জীবিকার তাগিদে ঘর ছেড়ে প্রবাসে পাড়ি
জমানো প্রবাসী বাংলাদেশি অনেকের অনেক কিছুর ঝোক থাকলেও, বৈশ্বিক মহামারীতে ছিলো সবাই আতংন্কিত ।
কিন্ত এই বৈশ্বিক মহামারীতে কোহিনুর ইসলাম তানভীর মৃত্যর ভয়কে জয় করে এগিয়ে যান সহযোগিতায়, যা এই সমাজে খুবই বিরল ।
প্রায় দুই যুগের উপরে তিনি কেনেডা অবস্হান করছেন বয়সে যুবক হলেও সামাজিক কার্যক্রমে বয়সের তৃতীয়াংশ সময় ব্যায় করেছেন।
একজন সমাজকর্মী হিসেবেও সমধিক পরিচিত প্রতিষ্ঠিত তিনি।
স্কুল জীবন থেকেই সেবা করার অভ্যাস ছিলো তার এবং এখন পর্যন্তই তা পালন করে যাচ্ছেন।
প্রবাসীদের মানবিক-আর্থিক সহায়তা, চিকিৎসা সহায়তা,বৈশ্বিক মহামারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যবরনকারীদের লাশ দাফন করা তার নেশা ।

একজন সামাজিক- সাংস্কৃতিক ও সমাজকর্মী হিসেবেও সমধিক পরিচিত কোহিনুর ইসলাম তানভিরের সোস্যাল মিডিয়ার আহবান

হুবুহ তুলে ধরা হলো
প্রিয় টরন্টো বাসি,
আসসালামু আলাইকুম।এই বছরের প্রথম দিকে যখন করোনা ভাইরাসের মহামারী শুরু হয় তখন প্রতি দিনই নিজের পরিচিত কাছের মানুষের মৃত্যুর খবর পাচ্ছিলাম। করোনা পূর্ববর্তী মৃত প্রিয়জনদের জানাযা, দাফন কাফন আমরা সবাই মিলে করতে পারলেও করোনা কালিন সময়ে এবং বিশেষ করে করোনায় মৃতদের দাফন কাফন করার পরিস্থিতি ছিল সম্পূর্ন ভিন্ন।সেই সময়ে খসরুজ্জামান চৌধুরী দুলু ভাইয়ের নেতৃত্বে আমরা কয়েকজন মিলে কমিউনিটিতে ফিউনারেলের কাজ শুর করি এবং কমিউনিটির অনেক প্রিয় মানুষদের শেষ বিদায় জানাই।আমাদের এই প্রচেষ্টাতে অনেকেই সাহায্য করেছেন এবং মন খুলে আমাদের জন্য দোয়া করেছেন। আলহামদুলিল্লাহ সেই থেকে এখন পর্যন্ত আমরা কমিউনিটির জন্য ফিউনারেলের কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।আল্লার কাছে প্রার্থনা, উনি যেনো আমাদের সবার দীর্ঘায়ু দান করেন। আল্লাহ না করুক, যদি আমাদের কমিউনিটির কেউ মৃত্যুবরণ করেন, তা হলে আমরা আমাদের “ Canadian Bangladeshi Islamic Funereal Services” এর মাধ্যমে মৃত ব্যাক্তিকে অতি অল্প সময়ে হাসপাতাল থেকে জানাযা এবং দাফন পর্যন্ত সর্বাত্বক সহায়তা দিতে পারবো এবং আমরা প্রয়োজনে এই কাজে আর্থিক ভাবেও সাহায্য করতে পারবো ইনশাআল্লাহ্।
আপনারা জানেন ইতিমধ্যেই আমাদের ব্যাবস্থাপনায় আমরা রিচমন্ডহিল মুসলিম সেমেট্রিতে প্রায় তিনশো কবরের সমন্বয়ে একটি বাংলাদেশী গোরস্থান ক্রয় করতে পেরেছি এবং ভবিষ্যতে এটি যে আরো বড় হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই । আল্লার সাহায্য আর সকলের এগিয়ে আসাতে মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই তা সম্পন্ন হয়েছে ।

এই দাফন কাফনের কাজ করতে গিয়ে একটি জিনিসের প্রচন্ড অভাব অনুভব করেছি তা হলো নিজেদের না থাকা একটি ফিউনারেলে হোম।প্রিয়জনের মৃত্যুর পর তাদের শেষ বিদায়ের আয়োজনে আমাদের দৌড়াতে হয় ভিনদেশি দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন ফিউনারেল হোমের কাছে।অবশ্যই তা দোষের কিছু নয়, তবে আমাদের কালচারে প্রিয়জনের শেষ বিদায়ে আমরা যে ভাবে সম্মান ও যত্ন সহকারে দাফন কাফন দেখে এসেছি তার কমতি কিন্তু বোধ করছি।টরন্টোতে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশীদের দ্বারা পরিচালিত কোনো ফিউনারেল হোম নেই। কমিউনিটি হিসেবে আমাদের কমতি কিসে? আমরা, আমাদের ছেলে মেয়েরা অন্য দশটি কমিউনিটির সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি এবং মাশাআল্লাহ্ ভালই করছি, তা হলে আমরা কেনো পারবোনা নিজেদের জন্য একটি ফিউনারেল হোম করতে? মাত্র কয়েক সপ্তাহের প্রচেষ্টায় যদি একটি গোরস্থান করা যায় তা হলে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি বাংলাদেশী ফিউনারেল হোম করা যাবে বলেই আমরা বিশ্বাস করি।
বাংলাদেশি কমিউনিটির নিজস্ব একটি ফিউনারেল হোম এখন সময়ের দাবি, আর সেই দাবি বুকে ধারন করে আমরা সমপূর্ন বাংলাদেশীদের দ্বারা পরিচালিত আমাদের নিজস্ব একটি ফিউনারেল হোম করার স্বপ্ন নিয়ে মাঠে নেমেছি। স্বজন হারানোর প্রচন্ড দুখের দিনে কোনো পরিবারকে যেনো দাফন কাফন নিয়ে কোনো সমস্যায় পড়তে না হয় সেই একচিলতে স্বস্তির স্থান হবে আমাদের এই ফিউনারেল হোম এমনই স্বপ্ন দেখছি আমরা। অতীতের সকল কাজে আপনারা যে ভাবে এগিয়ে এসেছিলেন আমাদের বিশ্বাস এবারও আপনারা এগিয়ে আসবেন এবং আমাদের জন্য অন্তর থেকে দোয়া করবেন। আপনারা সবাই এগিয়ে আসলে মহান রবের কৃপায় অবশ্যই আমরা আমাদের জন্য এই শহরে একটি ফিউনারেল হোম করতে পারবো।
বিস্তারিত জানতে ও পরামর্শ প্রদানে যোগাযোগ করুন:
খসরুজ্জামান চৌধুরী দুলু -416- 897-9184
কোহিনূর ইসলাম তানবীর – 647-501-0249
নিজাম এনায়েত হোসেন এনু – 416-200-8698

পোস্ট শেয়ার করুন

কোহিনুর ইসলাম তানভিরের টরন্টো বাসির প্রতি আহবান

আপডেটের সময় : ০১:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০

কোহিনুর ইসলাম তানভিরের টরন্টো বাসি প্রতি আহবান

ঘরকুনো বাংলাদেশী আজ ঘরের বাইরে। অচলায়তন ভেঙে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়। জীবন সাজাতে কিংবা জীবিকার তাগিদে ঘর ছেড়ে প্রবাসে পাড়ি
জমানো প্রবাসী বাংলাদেশি অনেকের অনেক কিছুর ঝোক থাকলেও, বৈশ্বিক মহামারীতে ছিলো সবাই আতংন্কিত ।
কিন্ত এই বৈশ্বিক মহামারীতে কোহিনুর ইসলাম তানভীর মৃত্যর ভয়কে জয় করে এগিয়ে যান সহযোগিতায়, যা এই সমাজে খুবই বিরল ।
প্রায় দুই যুগের উপরে তিনি কেনেডা অবস্হান করছেন বয়সে যুবক হলেও সামাজিক কার্যক্রমে বয়সের তৃতীয়াংশ সময় ব্যায় করেছেন।
একজন সমাজকর্মী হিসেবেও সমধিক পরিচিত প্রতিষ্ঠিত তিনি।
স্কুল জীবন থেকেই সেবা করার অভ্যাস ছিলো তার এবং এখন পর্যন্তই তা পালন করে যাচ্ছেন।
প্রবাসীদের মানবিক-আর্থিক সহায়তা, চিকিৎসা সহায়তা,বৈশ্বিক মহামারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যবরনকারীদের লাশ দাফন করা তার নেশা ।

একজন সামাজিক- সাংস্কৃতিক ও সমাজকর্মী হিসেবেও সমধিক পরিচিত কোহিনুর ইসলাম তানভিরের সোস্যাল মিডিয়ার আহবান

হুবুহ তুলে ধরা হলো
প্রিয় টরন্টো বাসি,
আসসালামু আলাইকুম।এই বছরের প্রথম দিকে যখন করোনা ভাইরাসের মহামারী শুরু হয় তখন প্রতি দিনই নিজের পরিচিত কাছের মানুষের মৃত্যুর খবর পাচ্ছিলাম। করোনা পূর্ববর্তী মৃত প্রিয়জনদের জানাযা, দাফন কাফন আমরা সবাই মিলে করতে পারলেও করোনা কালিন সময়ে এবং বিশেষ করে করোনায় মৃতদের দাফন কাফন করার পরিস্থিতি ছিল সম্পূর্ন ভিন্ন।সেই সময়ে খসরুজ্জামান চৌধুরী দুলু ভাইয়ের নেতৃত্বে আমরা কয়েকজন মিলে কমিউনিটিতে ফিউনারেলের কাজ শুর করি এবং কমিউনিটির অনেক প্রিয় মানুষদের শেষ বিদায় জানাই।আমাদের এই প্রচেষ্টাতে অনেকেই সাহায্য করেছেন এবং মন খুলে আমাদের জন্য দোয়া করেছেন। আলহামদুলিল্লাহ সেই থেকে এখন পর্যন্ত আমরা কমিউনিটির জন্য ফিউনারেলের কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।আল্লার কাছে প্রার্থনা, উনি যেনো আমাদের সবার দীর্ঘায়ু দান করেন। আল্লাহ না করুক, যদি আমাদের কমিউনিটির কেউ মৃত্যুবরণ করেন, তা হলে আমরা আমাদের “ Canadian Bangladeshi Islamic Funereal Services” এর মাধ্যমে মৃত ব্যাক্তিকে অতি অল্প সময়ে হাসপাতাল থেকে জানাযা এবং দাফন পর্যন্ত সর্বাত্বক সহায়তা দিতে পারবো এবং আমরা প্রয়োজনে এই কাজে আর্থিক ভাবেও সাহায্য করতে পারবো ইনশাআল্লাহ্।
আপনারা জানেন ইতিমধ্যেই আমাদের ব্যাবস্থাপনায় আমরা রিচমন্ডহিল মুসলিম সেমেট্রিতে প্রায় তিনশো কবরের সমন্বয়ে একটি বাংলাদেশী গোরস্থান ক্রয় করতে পেরেছি এবং ভবিষ্যতে এটি যে আরো বড় হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই । আল্লার সাহায্য আর সকলের এগিয়ে আসাতে মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই তা সম্পন্ন হয়েছে ।

এই দাফন কাফনের কাজ করতে গিয়ে একটি জিনিসের প্রচন্ড অভাব অনুভব করেছি তা হলো নিজেদের না থাকা একটি ফিউনারেলে হোম।প্রিয়জনের মৃত্যুর পর তাদের শেষ বিদায়ের আয়োজনে আমাদের দৌড়াতে হয় ভিনদেশি দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন ফিউনারেল হোমের কাছে।অবশ্যই তা দোষের কিছু নয়, তবে আমাদের কালচারে প্রিয়জনের শেষ বিদায়ে আমরা যে ভাবে সম্মান ও যত্ন সহকারে দাফন কাফন দেখে এসেছি তার কমতি কিন্তু বোধ করছি।টরন্টোতে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশীদের দ্বারা পরিচালিত কোনো ফিউনারেল হোম নেই। কমিউনিটি হিসেবে আমাদের কমতি কিসে? আমরা, আমাদের ছেলে মেয়েরা অন্য দশটি কমিউনিটির সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি এবং মাশাআল্লাহ্ ভালই করছি, তা হলে আমরা কেনো পারবোনা নিজেদের জন্য একটি ফিউনারেল হোম করতে? মাত্র কয়েক সপ্তাহের প্রচেষ্টায় যদি একটি গোরস্থান করা যায় তা হলে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি বাংলাদেশী ফিউনারেল হোম করা যাবে বলেই আমরা বিশ্বাস করি।
বাংলাদেশি কমিউনিটির নিজস্ব একটি ফিউনারেল হোম এখন সময়ের দাবি, আর সেই দাবি বুকে ধারন করে আমরা সমপূর্ন বাংলাদেশীদের দ্বারা পরিচালিত আমাদের নিজস্ব একটি ফিউনারেল হোম করার স্বপ্ন নিয়ে মাঠে নেমেছি। স্বজন হারানোর প্রচন্ড দুখের দিনে কোনো পরিবারকে যেনো দাফন কাফন নিয়ে কোনো সমস্যায় পড়তে না হয় সেই একচিলতে স্বস্তির স্থান হবে আমাদের এই ফিউনারেল হোম এমনই স্বপ্ন দেখছি আমরা। অতীতের সকল কাজে আপনারা যে ভাবে এগিয়ে এসেছিলেন আমাদের বিশ্বাস এবারও আপনারা এগিয়ে আসবেন এবং আমাদের জন্য অন্তর থেকে দোয়া করবেন। আপনারা সবাই এগিয়ে আসলে মহান রবের কৃপায় অবশ্যই আমরা আমাদের জন্য এই শহরে একটি ফিউনারেল হোম করতে পারবো।
বিস্তারিত জানতে ও পরামর্শ প্রদানে যোগাযোগ করুন:
খসরুজ্জামান চৌধুরী দুলু -416- 897-9184
কোহিনূর ইসলাম তানবীর – 647-501-0249
নিজাম এনায়েত হোসেন এনু – 416-200-8698