ঢাকা , সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

কেন্দ্রে বসে রাত হওয়ার অপেক্ষায় রিকি

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৭:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
  • / ৮১৫ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  শনিবার সকাল ১০টা থেকে শুরু হয় এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা। অন্যান্য পরীক্ষার্থীদের মতো কুষ্টিয়ার খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী ‘সেভেন্থ ডে এডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের পরীক্ষার্থী রিকি হালদারও পরীক্ষা দিতে আসে সকাল ৯টার দিকে। যথারীতি সকাল ১০টায় অন্য পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দেয়া শুরু করলেও রিকি অপেক্ষায় রয়েছে সন্ধ্যা ৬টা বাজার।

বেলা ১টার সময় বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা দিয়ে অন্য পরীক্ষার্থীরা কেন্দ্র থেকে বের হয়ে গেলেও এখনো রিকি বসে আছে তার সিটেই। তার পরীক্ষা শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায়।

ধর্মীয় বিধানে শনিবার কোনো প্রকার লেখালেখি করা যাবে না এমন নিষেধাজ্ঞা থাকায় শনিবার সকালের পরীক্ষার পরীবর্তে সূর্যাস্তের পর পরীক্ষা দেয়ার জন্য যশোর শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করে রিকি হালদার। যশোর শিক্ষা বোর্ড সেটার অনুমতি দিয়ে ০২, ০৯, ১৬ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি শনিবারের বাংলা ১ম পত্র, গণিত, রসায়ন ও উচ্চতর গণিত পরীক্ষা দিনের পরিবর্তে সূর্যাস্তের পর দেবে রিকি হালদার।

রিকি হালদার বলে, ‘‘আমাদের ধর্মীয় বাধার কারণে শনিবারের পরীক্ষাটা সকাল ১০টার পরিবর্তে সূর্যাস্তের পর সন্ধ্যা ৬টা থেকে দেবো। ‘সেভেন্থ ডে এডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের মানুষ। শনিবার আমরা ধর্মীয় উপাসনা করি। শনিবার পড়াশোনা, লেখালেখি, খেলাধুলা, কেনাকাটাসহ সকল প্রকার কাজ থেকে বিরত থাকি। আমাদের সম্প্রদায়ের সকলেই এই রীতি মেনেই পরীক্ষা দেয়।’’

‘আমাকে এই সুযোগটা দেয়ার জন্য আমি যশোর শিক্ষা বোর্ডকে ধন্যবাদ দিতে চাই,’ যোগ করে রিকি।

কুমারখালী এমএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব ফিরোজ মহম্মদ বাশার বলেন, ‘যশোর শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। রিকি সকালে পরীক্ষা কেন্দ্রে এসেছে। সকলে পরীক্ষা দিয়ে চলে গেছে তবে রিকিকে আমরা কেন্দ্রের আলাদা রুমে রেখেছি। সে সারাদিন রুম থেকে বের হতে পারবে না। খাওয়া-দাওয়াসহ সব কিছু সে ওই রুমে বসেই করবে। সন্ধ্যা ৬টায় তার পরীক্ষা শুরু হবে। রাতে পরীক্ষা শেষ হলে তাকে সেখান থেকে বাইরে বের হতে দেয়া হবে।’

রিকি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পারফেক্ট ইংলিশ ভার্সন স্কুলের এসএসসি বিজ্ঞান বিভাগের এসএসসি পরীক্ষার্থী।

পোস্ট শেয়ার করুন

কেন্দ্রে বসে রাত হওয়ার অপেক্ষায় রিকি

আপডেটের সময় : ০৭:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  শনিবার সকাল ১০টা থেকে শুরু হয় এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা। অন্যান্য পরীক্ষার্থীদের মতো কুষ্টিয়ার খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী ‘সেভেন্থ ডে এডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের পরীক্ষার্থী রিকি হালদারও পরীক্ষা দিতে আসে সকাল ৯টার দিকে। যথারীতি সকাল ১০টায় অন্য পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দেয়া শুরু করলেও রিকি অপেক্ষায় রয়েছে সন্ধ্যা ৬টা বাজার।

বেলা ১টার সময় বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা দিয়ে অন্য পরীক্ষার্থীরা কেন্দ্র থেকে বের হয়ে গেলেও এখনো রিকি বসে আছে তার সিটেই। তার পরীক্ষা শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায়।

ধর্মীয় বিধানে শনিবার কোনো প্রকার লেখালেখি করা যাবে না এমন নিষেধাজ্ঞা থাকায় শনিবার সকালের পরীক্ষার পরীবর্তে সূর্যাস্তের পর পরীক্ষা দেয়ার জন্য যশোর শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করে রিকি হালদার। যশোর শিক্ষা বোর্ড সেটার অনুমতি দিয়ে ০২, ০৯, ১৬ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি শনিবারের বাংলা ১ম পত্র, গণিত, রসায়ন ও উচ্চতর গণিত পরীক্ষা দিনের পরিবর্তে সূর্যাস্তের পর দেবে রিকি হালদার।

রিকি হালদার বলে, ‘‘আমাদের ধর্মীয় বাধার কারণে শনিবারের পরীক্ষাটা সকাল ১০টার পরিবর্তে সূর্যাস্তের পর সন্ধ্যা ৬টা থেকে দেবো। ‘সেভেন্থ ডে এডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের মানুষ। শনিবার আমরা ধর্মীয় উপাসনা করি। শনিবার পড়াশোনা, লেখালেখি, খেলাধুলা, কেনাকাটাসহ সকল প্রকার কাজ থেকে বিরত থাকি। আমাদের সম্প্রদায়ের সকলেই এই রীতি মেনেই পরীক্ষা দেয়।’’

‘আমাকে এই সুযোগটা দেয়ার জন্য আমি যশোর শিক্ষা বোর্ডকে ধন্যবাদ দিতে চাই,’ যোগ করে রিকি।

কুমারখালী এমএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব ফিরোজ মহম্মদ বাশার বলেন, ‘যশোর শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। রিকি সকালে পরীক্ষা কেন্দ্রে এসেছে। সকলে পরীক্ষা দিয়ে চলে গেছে তবে রিকিকে আমরা কেন্দ্রের আলাদা রুমে রেখেছি। সে সারাদিন রুম থেকে বের হতে পারবে না। খাওয়া-দাওয়াসহ সব কিছু সে ওই রুমে বসেই করবে। সন্ধ্যা ৬টায় তার পরীক্ষা শুরু হবে। রাতে পরীক্ষা শেষ হলে তাকে সেখান থেকে বাইরে বের হতে দেয়া হবে।’

রিকি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পারফেক্ট ইংলিশ ভার্সন স্কুলের এসএসসি বিজ্ঞান বিভাগের এসএসসি পরীক্ষার্থী।