ঢাকা , বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা রিডানডেন্ট ক্লোথিং আর মজুর মামার ‘বিশ্বকাপ’ ইউরোপের সবচেয়ে বড় ঈদুল ফিতরের নামাজ পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঈদের কাপড় কিনার জন্য মা’য়ের উপর অভিমান করে মেয়ের আত্মহত্যা লিসবনে বন্ধু মহলের আয়োজনে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল মান অভিমান ভুলে সবাই একই প্লাটফর্মে,সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগাল বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

কুলাউড়া সমিতির ব্যতিক্রমী ইফতার ও দোয়া মাহফিল

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৮:০১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০১৯
  • / ৭৬৯ টাইম ভিউ

নিউ ইয়র্ক থেকে : কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউসএ ইন্্ক এর ইফতার মাহফিলে মঞ্চে অথিতি ও কর্মকর্তাবৃন্দ। (উপরে) এবং কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইন্্ক এর ইফতার মাহফিলে উপস্থিতির একাংশ। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইন্ক এর ইফতার পার্টি ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হলো ১২ মে রোববার। সাটফিন বুলেভার্ডের তাজমহল পার্টি হলে এই ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়। ইফতার পার্টিতে সকল কুলাউড়াবাসীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সেখানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অতিথি যোগ দেন। তবে বৃষ্টির কারণে তাদের প্রত্যাশিত অতিথিদের চেয়ে কিছু কমসংখ্যক উপস্থিতি লক্ষ করা যায়।

সন্ধ্যা সাতটা থেকে অতিথিরা তাজমহলে আসতে থাকেন। সাড়ে সাতটা থেকে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করা হয়। এরপর আগত সম্মানিত অতিথি ও সমিতির নেতৃবৃন্দ মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন। অনষ্ঠানে মিলাদ, দোয়া মাহফিল ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা মনিরুল ইসলাম। সেখানে যোগ দেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া সমিতির সভাপতি আশরাফ আহমেদ ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন জালাল। উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্যদের মধ্যে ছিলেন মোঃ আবুল কালাম, মোঃ সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ, মোঃ মইন চৌধুরী, মোঃ মোশাহেদ জে রাশেদ, মোঃ জাবেদ খসরু, মোঃ তানউইর শামীম লোবান, মোঃ মুকিত চৌধুরী।

কুলাউড়া সমিতির নেতৃবৃন্দ এম এ বাকী, কয়ছর রশীদ, লুৎফুর রহমান, মোঃ আলতাফ হোসেন (রুবেল), মাজহারুল ইসলাম জনি, এম এন হক বকুল, খালেদ খানও উপস্থিত ছিলেন।

উপদেষ্টাদের মধ্যে মোঃ এম এ কাইয়ূম, এম এ জলিল, মোঃ এনামুল ইসলাম, মোঃ আছাব আলী, নেতৃবৃন্দ রেজাউল করিম রেনু, আনিসা ইসলাম আজিমা, জাবেদ আহমদ, মাসুক আহমেদ, আলমগীর কবির শামী, আশরাফ খান উপস্থিত থাকতে পারেননি। সমিতির সভাপতি এর কারণ হিসাবে জানান এদের মধ্যে কেউ কেউ বাংলাদেশে আছেন, আবার কেউ কেউ অসুস্থ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, ওয়েল কেয়ারের ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, কুলাউড়া সমিতির সাবেক উপদেষ্টা বেদারুল ইসলাম বাবলা, মোঃ আব্দুল হক, শাহজাদা, সাবেক প্রেসিডেন্ট শাহেদ দেলাওয়ার চৌধুরী, সাবেক সভাপতি আতিকুল হক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল মান্নান চৌধুরী হেশাম, সাবেক সহ সভাপতি সৈয়দ ইলিয়াস খসরু, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জামাল উদ্দিন আহমেদ লিটন, সাবেক সদস্য জেবুল আহমেদ, শোয়েব আহমেদ, বেলায়েত হোসেন দুলালসহ বেশ কয়েকজন সাবেক নেতা যোগ দেন। এছাড়াও বিয়ানী বাজার সমিতির বোরহান উদ্দিন, শ্রীমঙ্গল এসোসিয়েশনে সভাপতি মামুনুর রশিদ, কুলাউড়া বারিখা বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক মোঃ ঈসমাইল হোসেনসহ বিভিন্ন সংগঠনের একাধিক নেতা উপস্থিত ছিলেন।

তিনি দোয়াতে কুলাউড়া সমিতির উত্তরোত্তর অগ্রগতি ও সাফল্য কামনা করা হয়। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ ও দেশের জনগণসহ সকল মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া করা হয়।
রোজাদারদের সুস্বাস্থ্য বিবেচনা করে ইফতারীর আয়োজন করা হয়। রোজদাররা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া ব্যক্তিবর্গ তৃপ্তি সহকারে ইফতার করেন। ইফতারের সঙ্গে ডিনার ও নামাজের পর ডেজার্ট পরিবেশন করা হয়। কুলাউড়াবাসীর মিলন মেলায় পরিণত হয় অনুষ্ঠানস্থল।
অনুষ্ঠানে ব্যতিক্রম ছিল আনুষ্ঠানিক কোন বক্তৃতাপর্ব ছিল না। বাংলাদেশ সোসাইটির পক্ষ থেকে কুলাউড়াবাসীকে গুলশান ট্যারেসের অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ সোসাইটির ইফতার পার্টিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

পোস্ট শেয়ার করুন

কুলাউড়া সমিতির ব্যতিক্রমী ইফতার ও দোয়া মাহফিল

আপডেটের সময় : ০৮:০১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০১৯

নিউ ইয়র্ক থেকে : কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউসএ ইন্্ক এর ইফতার মাহফিলে মঞ্চে অথিতি ও কর্মকর্তাবৃন্দ। (উপরে) এবং কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইন্্ক এর ইফতার মাহফিলে উপস্থিতির একাংশ। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে কুলাউড়া বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইন্ক এর ইফতার পার্টি ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হলো ১২ মে রোববার। সাটফিন বুলেভার্ডের তাজমহল পার্টি হলে এই ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়। ইফতার পার্টিতে সকল কুলাউড়াবাসীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সেখানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অতিথি যোগ দেন। তবে বৃষ্টির কারণে তাদের প্রত্যাশিত অতিথিদের চেয়ে কিছু কমসংখ্যক উপস্থিতি লক্ষ করা যায়।

সন্ধ্যা সাতটা থেকে অতিথিরা তাজমহলে আসতে থাকেন। সাড়ে সাতটা থেকে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করা হয়। এরপর আগত সম্মানিত অতিথি ও সমিতির নেতৃবৃন্দ মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন। অনষ্ঠানে মিলাদ, দোয়া মাহফিল ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা মনিরুল ইসলাম। সেখানে যোগ দেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া সমিতির সভাপতি আশরাফ আহমেদ ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন জালাল। উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্যদের মধ্যে ছিলেন মোঃ আবুল কালাম, মোঃ সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ, মোঃ মইন চৌধুরী, মোঃ মোশাহেদ জে রাশেদ, মোঃ জাবেদ খসরু, মোঃ তানউইর শামীম লোবান, মোঃ মুকিত চৌধুরী।

কুলাউড়া সমিতির নেতৃবৃন্দ এম এ বাকী, কয়ছর রশীদ, লুৎফুর রহমান, মোঃ আলতাফ হোসেন (রুবেল), মাজহারুল ইসলাম জনি, এম এন হক বকুল, খালেদ খানও উপস্থিত ছিলেন।

উপদেষ্টাদের মধ্যে মোঃ এম এ কাইয়ূম, এম এ জলিল, মোঃ এনামুল ইসলাম, মোঃ আছাব আলী, নেতৃবৃন্দ রেজাউল করিম রেনু, আনিসা ইসলাম আজিমা, জাবেদ আহমদ, মাসুক আহমেদ, আলমগীর কবির শামী, আশরাফ খান উপস্থিত থাকতে পারেননি। সমিতির সভাপতি এর কারণ হিসাবে জানান এদের মধ্যে কেউ কেউ বাংলাদেশে আছেন, আবার কেউ কেউ অসুস্থ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, ওয়েল কেয়ারের ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, কুলাউড়া সমিতির সাবেক উপদেষ্টা বেদারুল ইসলাম বাবলা, মোঃ আব্দুল হক, শাহজাদা, সাবেক প্রেসিডেন্ট শাহেদ দেলাওয়ার চৌধুরী, সাবেক সভাপতি আতিকুল হক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল মান্নান চৌধুরী হেশাম, সাবেক সহ সভাপতি সৈয়দ ইলিয়াস খসরু, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জামাল উদ্দিন আহমেদ লিটন, সাবেক সদস্য জেবুল আহমেদ, শোয়েব আহমেদ, বেলায়েত হোসেন দুলালসহ বেশ কয়েকজন সাবেক নেতা যোগ দেন। এছাড়াও বিয়ানী বাজার সমিতির বোরহান উদ্দিন, শ্রীমঙ্গল এসোসিয়েশনে সভাপতি মামুনুর রশিদ, কুলাউড়া বারিখা বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক মোঃ ঈসমাইল হোসেনসহ বিভিন্ন সংগঠনের একাধিক নেতা উপস্থিত ছিলেন।

তিনি দোয়াতে কুলাউড়া সমিতির উত্তরোত্তর অগ্রগতি ও সাফল্য কামনা করা হয়। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ ও দেশের জনগণসহ সকল মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া করা হয়।
রোজাদারদের সুস্বাস্থ্য বিবেচনা করে ইফতারীর আয়োজন করা হয়। রোজদাররা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া ব্যক্তিবর্গ তৃপ্তি সহকারে ইফতার করেন। ইফতারের সঙ্গে ডিনার ও নামাজের পর ডেজার্ট পরিবেশন করা হয়। কুলাউড়াবাসীর মিলন মেলায় পরিণত হয় অনুষ্ঠানস্থল।
অনুষ্ঠানে ব্যতিক্রম ছিল আনুষ্ঠানিক কোন বক্তৃতাপর্ব ছিল না। বাংলাদেশ সোসাইটির পক্ষ থেকে কুলাউড়াবাসীকে গুলশান ট্যারেসের অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ সোসাইটির ইফতার পার্টিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়।