ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
পুনাক এর উদ্যোগে দুস্হ ও অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে কুলাউড়ার টিলাগাঁও এ সরকারি গাছ বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক লটারি বাইক জিতলো মা’ সে কারণে কপাল পুড়লো মেয়ের ফজরের নামাজে যাওয়ার সময় রাস্তায় কুকুর দলের আক্রমনে প্রান গেলো ইজাজুলের সাবেক সাংসদ সেলিমা আহমাদ মেরীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামিলীগের মতবিনিময় সভা কুলাউড়ার হাজীপুরে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যার ১২ ঘন্টার মধ্যেই দুজন গ্রেফতার কুলাউড়ার হাজীপুর ইউনিয়নে প্রতিপক্ষের হামলায়  আছকির মিয়া (৫০)নিহত  হয়েছেন। বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্তুগাল বিএনপির আহবায়ক কমিটির অভিষেক ও পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত। সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ মাদ্রাসা প্রধান নির্বাচিত হলেন অধ্যক্ষ মাওলানা বশির আহমদ মুসলিম কমিউনিটি মৌলভীবাজার এর কমিটি গঠন

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নে টিআর কাবিখা প্রকল্প কাজ না করে প্রকল্পের পুরো টাকা সাবেক চেয়ারম্যানের পেটে

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০৯:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯
  • / ৫৩৩ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের টিআর কাবিখার ৫টি প্রকল্পের কোনো কাজ না করিয়ে পুরো টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের বাসিন্দারা ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে ২টি কাবিখার ২টি প্রকল্প সরেজমিন পরিদর্শন করে অনিয়মের সত্যতা পান উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও)।

স্থানীয় বাসিন্দা লুৎফুর রহমান চৌধুরী, মো. আজাদ মিয়া, মো. শামীমুল ইসলাম, তৈমুল ইসলাম, মো. আজিজ, শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, লোবান আহমদ, মো. জুনাব আহমদ, কবির আহমদ, জুবের আহমদ জেবলু, হেলাল আহমদ, আব্দুল বাকিসহ এলাবাসীর লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচির আওতায় কাবিখা প্রকল্পে সদর ইউনিয়নের অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়ের আঙিনায় মাটি ভরাট ও উন্নয়ন কাজের জন্য ১৩ মেট্রিক টন চাল, অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠের উত্তর পাশের মাঠি ভরাটের কাজের জন্য ৮ মেট্রিক টন চাল এবং টিআর প্রকল্পের আওতায় বনগাঁও ২ হোসনা বেগমের বাড়ির পাশের রাস্তা মেরামত ৫০ হাজার টাকা, ঝিমাই হতে ভালাইমা পুঞ্জির সিড়ি নির্মাণ ৫০ হাজার টাকা ও প্রতাবী ঝন্টুর বাড়ি হতে মসজিদ পর্যন্ত ইটসোলিং ৫০ হাজার টাকা। এই ৫টি প্রকল্পের মোট প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকা চলতি বছরের জুন মাসে বিল উত্তোলন করা হয়। কিন্তু বিল উত্তোলনের প্রায় ৪ মাস অতিবাহিত হলেও প্রকল্পগুলোর কোনো কাজই শুরু হয়নি।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নার্গিস আক্তার বুবলির স্বামী ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান নীতিমালা লঙ্ঘন করে নিজে প্রকল্পগুলোর চেয়ারম্যান হয়ে সবকটি প্রকল্পের অর্থ আত্মসাৎ করেন। এলাকাবাসীর অভিযোগের পর টনক নড়ে সাবেক চেয়ারম্যানের। তিনি তড়িঘড়ি করে প্রকল্পের কাজ শুরু করেছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রকল্প কমিটির সভাপতি ও কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান বলেন, সময়মতো মাটি না পাওয়ায় কাজ করানো সম্ভব হয়নি। তবে তিনি কাজগুলো বাস্তবায়ন করবেন। অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি সঠিক নয়। বিদ্যালয়ের মাটি ভরাট ও উন্নয়ন বরাদ্দ থেকে বিদ্যালয় মাঠের পাশে একটি পাঠাগারে কিছু কাজ করানো হয়েছে।

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নার্গিস আক্তার বুবলি বলেন, প্রকল্পগুলোর কাজ চলছে। বিরোধী পক্ষের লোকজন এসব অভিযোগ করছে। তবে জনপ্রতিনিধি (মেম্বার) ছাড়া প্রকল্পের চেয়ারম্যান কিভাবে হলেন? প্রশ্নে জবাবে তিনি জানান, উনি তো ঘরের মানুষ।

এ ব্যাপারে কুলাউড়া কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, এলাকার মানুষের লিখিত অভিযোগ পেয়ে সরেজমিন ২টি প্রকল্পস্থান পরিদর্শন করে অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেছে। আগামী রবিবারের মধ্যে দুটি প্রকল্পের কাজ শেষ করবেন বলে প্রকল্প সভাপতি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কাজ বাস্তবায়ন না করলে ও বাকি প্রকল্পগুলো তদন্তক্রমে অনিয়ম ধরা পড়লে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পোস্ট শেয়ার করুন

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নে টিআর কাবিখা প্রকল্প কাজ না করে প্রকল্পের পুরো টাকা সাবেক চেয়ারম্যানের পেটে

আপডেটের সময় : ০৯:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের টিআর কাবিখার ৫টি প্রকল্পের কোনো কাজ না করিয়ে পুরো টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের বাসিন্দারা ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে ২টি কাবিখার ২টি প্রকল্প সরেজমিন পরিদর্শন করে অনিয়মের সত্যতা পান উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও)।

স্থানীয় বাসিন্দা লুৎফুর রহমান চৌধুরী, মো. আজাদ মিয়া, মো. শামীমুল ইসলাম, তৈমুল ইসলাম, মো. আজিজ, শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, লোবান আহমদ, মো. জুনাব আহমদ, কবির আহমদ, জুবের আহমদ জেবলু, হেলাল আহমদ, আব্দুল বাকিসহ এলাবাসীর লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচির আওতায় কাবিখা প্রকল্পে সদর ইউনিয়নের অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়ের আঙিনায় মাটি ভরাট ও উন্নয়ন কাজের জন্য ১৩ মেট্রিক টন চাল, অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠের উত্তর পাশের মাঠি ভরাটের কাজের জন্য ৮ মেট্রিক টন চাল এবং টিআর প্রকল্পের আওতায় বনগাঁও ২ হোসনা বেগমের বাড়ির পাশের রাস্তা মেরামত ৫০ হাজার টাকা, ঝিমাই হতে ভালাইমা পুঞ্জির সিড়ি নির্মাণ ৫০ হাজার টাকা ও প্রতাবী ঝন্টুর বাড়ি হতে মসজিদ পর্যন্ত ইটসোলিং ৫০ হাজার টাকা। এই ৫টি প্রকল্পের মোট প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকা চলতি বছরের জুন মাসে বিল উত্তোলন করা হয়। কিন্তু বিল উত্তোলনের প্রায় ৪ মাস অতিবাহিত হলেও প্রকল্পগুলোর কোনো কাজই শুরু হয়নি।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নার্গিস আক্তার বুবলির স্বামী ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান নীতিমালা লঙ্ঘন করে নিজে প্রকল্পগুলোর চেয়ারম্যান হয়ে সবকটি প্রকল্পের অর্থ আত্মসাৎ করেন। এলাকাবাসীর অভিযোগের পর টনক নড়ে সাবেক চেয়ারম্যানের। তিনি তড়িঘড়ি করে প্রকল্পের কাজ শুরু করেছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রকল্প কমিটির সভাপতি ও কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান বলেন, সময়মতো মাটি না পাওয়ায় কাজ করানো সম্ভব হয়নি। তবে তিনি কাজগুলো বাস্তবায়ন করবেন। অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি সঠিক নয়। বিদ্যালয়ের মাটি ভরাট ও উন্নয়ন বরাদ্দ থেকে বিদ্যালয় মাঠের পাশে একটি পাঠাগারে কিছু কাজ করানো হয়েছে।

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নার্গিস আক্তার বুবলি বলেন, প্রকল্পগুলোর কাজ চলছে। বিরোধী পক্ষের লোকজন এসব অভিযোগ করছে। তবে জনপ্রতিনিধি (মেম্বার) ছাড়া প্রকল্পের চেয়ারম্যান কিভাবে হলেন? প্রশ্নে জবাবে তিনি জানান, উনি তো ঘরের মানুষ।

এ ব্যাপারে কুলাউড়া কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, এলাকার মানুষের লিখিত অভিযোগ পেয়ে সরেজমিন ২টি প্রকল্পস্থান পরিদর্শন করে অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেছে। আগামী রবিবারের মধ্যে দুটি প্রকল্পের কাজ শেষ করবেন বলে প্রকল্প সভাপতি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কাজ বাস্তবায়ন না করলে ও বাকি প্রকল্পগুলো তদন্তক্রমে অনিয়ম ধরা পড়লে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।