ঢাকা , বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পূর্ব লন্ডনে বড়লেখার সোয়েব আহমেদের সমর্থনে মতবিনিময় সভা ইতালির ভেনিসে গ্রিন সিলেট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন এর জরুরি সভা অনুষ্ঠিত ইতালির ভেনিসে এনটিভির ইউরোপের ডিরেক্টর সাবরিনা হোসাইন কে সংবর্ধনা দিয়েছে ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাব পর্তুগালে বেজা আওয়ামীলীগের কর্মি সভা পর্তুগাল এ ফ্রেন্ডশিপ ক্রিকেট ক্লাবের জার্সি উন্মোচন লিসবনে আত্মপ্রকাশ হয় সামাজিক সংগঠন “গোলাপগঞ্জ কমিউনিটি কেয়ারর্স পর্তুগাল “ উচ্ছ্বাস আর আনন্দে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখের উদযাপন করেছে পর্তুগাল যথাযথ গাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে পরিবেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর পালন করেছে ভেনিস প্রবাসীরা ভেনিসে বৃহত্তর সিলেট সমিতির আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এক অসুস্থ প্রজন্ম কে সাথি করে এগুচ্ছি আমরা

কুলাউড়ায় বিদ্যুৎ বিভাগের উদাসীনতা…

দেশদিগন্ত ডেক্স
  • আপডেটের সময় : ০৫:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
  • / ১৭১৪ টাইম ভিউ

কুলাউড়া উপজেলার জয়চন্ডী ইউনিয়নের গৌরীশংকর এলাকায় পিডিবির ১১ হাজার ভোল্টেজের বিদ্যুৎ লাইনের একটি খুঁটি গত ৪ মাস থেকে ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় হেলে আছে। এলাকার লোকজন ঝুঁকিপূর্ন এ খুঁটির কথা কুলাউড়া বিদ্যুৎ অফিসে বার বার জানানোর পরও তাতে কোন সুফল হয়নি। ঝুঁকিপূর্ন এ খুঁটি উপড়ে পড়ে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরণের দূর্ঘটনা। এছাড়াও কুলাউড়া-বড়লেখা সড়কের পুশাইনগর বাজারের উত্তর পাশে রামপাশা এলাকায় একটি আকাশমনী জীবিত গাছের সাথে টানানো হয়েছে বিদ্যুতের লাইন। এসব কিছু সাধারণ মানুষের নজরে আসলেও তা দেখছেননা বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন।

সরেজমিনে দেখা যায়, কুলাউড়া পুশাইনগর বাজার হয়ে ভূকশিমইল যাওয়ার রাস্তার পাশ দিয়ে টানা হয়েছে পিডিবির ১১ হাজার ভোল্টেজের বিদ্যুৎ লাইন। গত টানা বন্যায় এসব লাইনের অনেক খুঁটিরই নড়বড়ে অবস্থা হয়েছে। যার মধ্যে গৌরীশংকর এলাকায় রাস্তার পাশে একটি খুঁটি লাইনসহ হেলে পড়ে মারাত্বক ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় রয়েছে। লাইনসহ খুঁটিটি একেবারে রাস্তার উপরে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। জয়চন্ডী ও ভুকশিমইল ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন এ রাস্তা দিয়ে। যে কোন সময় খুঁটি উপড়ে পড়ে ঘটতে পারে প্রানঘাতী দূর্ঘটনা। বিষয়টি গত চার মাস থেকে বিদ্যুৎ অফিসে একাধিকবার জানিয়েছেন এলাকার লোকজন। তাতে কোন কর্নপাত করেনি তারা। উল্টো কাজ করছি, করবো বলে সময় ক্ষেপন করছে বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন। এই লাইনটি ছিড়ে যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে তখন এর দায়ভার কে নেবে? এমন প্রশ্ন সাধারণ মানুষের। নাকি দুর্ঘটনা ঘটার পর টনক নড়বে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

স্থানীয় বাসিন্দা মো. কাওছার হোসেইন, জায়েদ আহমদ, সিরাজ মিয়াসহ অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, বন্যার সময় বিদ্যুতের খুঁটিটি হেলে পড়েছিল। এরপর থেকে একাধিকবার বিদ্যুৎ অফিসের লোকজনকে হেলে পড়া খুঁটির ব্যাপারে বলা হলেও তারা আজ পর্যন্ত মেরামতের কোন ব্যবস্থা নেয়নি। প্রত্যেকবার বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলেই বিষয়টি দেখবো, দেখছি বলে ফোন লাইন কেটে দেন। এভাবে দেখবো দেখছি বলে আর কতদিন যাবে।

এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী পথচারী, যান চালক ও এলাকাবাসীর দাবি কোনো ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আগে যেনো এই খুঁটিসহ হেলে পড়া প্রত্যেকটি ঝুঁকিপূর্ন খুঁটির মেরামত কাজ করা হয়।

এব্যাপারে কুলাউড়া বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু ফাত্তাহ মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তিনি কুলাউড়ায় নতুন যোগদান করেছেন। খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখছেন। #

পোস্ট শেয়ার করুন

কুলাউড়ায় বিদ্যুৎ বিভাগের উদাসীনতা…

আপডেটের সময় : ০৫:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭

কুলাউড়া উপজেলার জয়চন্ডী ইউনিয়নের গৌরীশংকর এলাকায় পিডিবির ১১ হাজার ভোল্টেজের বিদ্যুৎ লাইনের একটি খুঁটি গত ৪ মাস থেকে ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় হেলে আছে। এলাকার লোকজন ঝুঁকিপূর্ন এ খুঁটির কথা কুলাউড়া বিদ্যুৎ অফিসে বার বার জানানোর পরও তাতে কোন সুফল হয়নি। ঝুঁকিপূর্ন এ খুঁটি উপড়ে পড়ে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরণের দূর্ঘটনা। এছাড়াও কুলাউড়া-বড়লেখা সড়কের পুশাইনগর বাজারের উত্তর পাশে রামপাশা এলাকায় একটি আকাশমনী জীবিত গাছের সাথে টানানো হয়েছে বিদ্যুতের লাইন। এসব কিছু সাধারণ মানুষের নজরে আসলেও তা দেখছেননা বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন।

সরেজমিনে দেখা যায়, কুলাউড়া পুশাইনগর বাজার হয়ে ভূকশিমইল যাওয়ার রাস্তার পাশ দিয়ে টানা হয়েছে পিডিবির ১১ হাজার ভোল্টেজের বিদ্যুৎ লাইন। গত টানা বন্যায় এসব লাইনের অনেক খুঁটিরই নড়বড়ে অবস্থা হয়েছে। যার মধ্যে গৌরীশংকর এলাকায় রাস্তার পাশে একটি খুঁটি লাইনসহ হেলে পড়ে মারাত্বক ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় রয়েছে। লাইনসহ খুঁটিটি একেবারে রাস্তার উপরে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। জয়চন্ডী ও ভুকশিমইল ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন এ রাস্তা দিয়ে। যে কোন সময় খুঁটি উপড়ে পড়ে ঘটতে পারে প্রানঘাতী দূর্ঘটনা। বিষয়টি গত চার মাস থেকে বিদ্যুৎ অফিসে একাধিকবার জানিয়েছেন এলাকার লোকজন। তাতে কোন কর্নপাত করেনি তারা। উল্টো কাজ করছি, করবো বলে সময় ক্ষেপন করছে বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন। এই লাইনটি ছিড়ে যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে তখন এর দায়ভার কে নেবে? এমন প্রশ্ন সাধারণ মানুষের। নাকি দুর্ঘটনা ঘটার পর টনক নড়বে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

স্থানীয় বাসিন্দা মো. কাওছার হোসেইন, জায়েদ আহমদ, সিরাজ মিয়াসহ অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, বন্যার সময় বিদ্যুতের খুঁটিটি হেলে পড়েছিল। এরপর থেকে একাধিকবার বিদ্যুৎ অফিসের লোকজনকে হেলে পড়া খুঁটির ব্যাপারে বলা হলেও তারা আজ পর্যন্ত মেরামতের কোন ব্যবস্থা নেয়নি। প্রত্যেকবার বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলেই বিষয়টি দেখবো, দেখছি বলে ফোন লাইন কেটে দেন। এভাবে দেখবো দেখছি বলে আর কতদিন যাবে।

এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী পথচারী, যান চালক ও এলাকাবাসীর দাবি কোনো ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আগে যেনো এই খুঁটিসহ হেলে পড়া প্রত্যেকটি ঝুঁকিপূর্ন খুঁটির মেরামত কাজ করা হয়।

এব্যাপারে কুলাউড়া বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু ফাত্তাহ মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তিনি কুলাউড়ায় নতুন যোগদান করেছেন। খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখছেন। #