ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
প্রিয়জনদের মানসিক রোগ যদি আপনজন বুঝতে না পারেন আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ও অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা করেছে পর্তুগাল আওয়ামীলীগ যেকোনো প্রচেষ্টা এককভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব নয়: দুদক সচিব শ্রীমঙ্গলে দুটি চোরাই মোটরসাইকেল সহ মিল্টন কুমার আটক পর্তুগালের অভিবাসন আইনে ব্যাপক পরিবর্তন পর্তুগাল বিএনপি আহবায়ক কমিটির জুমে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয় এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে…

কুলাউড়ায় প্রেমিকের আত্মহত্যা, রাতভর লাশ পাহারা দিলো প্রেমিকা

কুলাউড়া প্রতিনিধি:
  • আপডেটের সময় : ০৪:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২০
  • / ৪৬৭ টাইম ভিউ

কুলাউড়ায় শিপন মালাকার (১৭) নামের তরুণ আত্মহত্যা করেছে। আজ ২৬ ডিসেম্বর (শনিবার) দুপুরে কুলাউড়ার কর্মধা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এওলাছড়া পানপুঞ্জির গহীন জঙ্গল ওই তরুণের লাশ উদ্ধার করেছে কুলাউড়া থানা পুলিশ।

জানাযায়,  শুক্রবার বিকেলে শিপনের সাথে প্রেমের টানে বাড়ি থেকে বের হয় স্কুলছাত্রী এনি আক্তার (১৩)। রাতেই ভারত সীমান্তবর্তী এলাকার নো ম্যান্সল্যান্ডে পরনের গেঞ্জি দিয়ে গাছের ডালে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে শিপন এবং সেই লাশের পাশে পাহারারত অবস্থায় প্রেমিকাকে পাওয়া যায়। বিষয়টি নিয়ে সমগ্র কুলাউড়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। নিহত শিপন পৃথিমপাশা ইউনিয়নের গণকিয়া গ্রামের সিন্ধু মালাকারের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পৃথিমপাশা ইউনিয়নের সিন্দু মালাকারের ছেলে সিএনজি চালক শিপন মালাকার ও একই ইউনিয়নের কানিকিয়ারি গ্রামের মাহমুদ আলীর মেয়ে, আলী আমজদ স্কুল এন্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী এনি আক্তারের সাথে দুই বছর ধরে প্রেমের সর্ম্পক ছিল। বিষয়টি উভয় পরিবার মেনে না নেওয়াতে ২৫ ডিসেম্বর পলায়ন করার সিদ্ধান্ত নেয়। বিকেলে শিপন এনিকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। সন্ধ্যার দিকে তারা দুজনে ভারতে পলায়নের উদ্দেশ্যে সীমান্তবর্তী এওলাছড়া পুঞ্জির গহীনে চলে যায়। সেখানে তারা অনেক সময় অবস্থান করে।

ঘটনাস্থলে লাশ পাহারারত কিশোরী এনি আক্তার জানান, শুক্রবার বিকেলে শিপন আমাকে বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। এরপর রাতে এওলাছড়া পানপুঞ্জির গহীন জঙ্গলে অবস্থান করি। একপর্যায়ে রাত প্রায় ২টায় শিপনের কাছ থেকে পাহাড়ের নিচে আমি ছিটকে পড়ে যাই। তখন থেকে প্রায় তিন ঘন্টা আমি অজ্ঞান ছিলাম। ভোরে শিপনকে অনেক খোঁজাখুঁজি করি। সকালে তার পরনের গেঞ্জি দিয়ে গাছের ডালে ফাঁস লাগিয়ে অবস্থায় দেখতে পাই। এসময় ঘটনাস্থলে নিজে লাশ পাহারা দেই। আমাদের প্রেমের সম্পর্ক দুই বছরের। সকালে তার আমার অভিবাবকদের জানালে তারা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পৃথিমপাশা ইউপি চেয়ারম্যান নবাব আলী বাকর খান, কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক, স্থানীয় ইউপি সদস্য সিলভেস্টার পাঠান, হাজী মাকসুদ আলী, আব্দুল মনাফ প্রমুখ।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষন রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় লাশের পাশে পাহারারত অবস্থায় এনি আক্তার নামের এক কিশোরীকে পাওয়া যায়। কিশোরীকে তার পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়।#

পোস্ট শেয়ার করুন

কুলাউড়ায় প্রেমিকের আত্মহত্যা, রাতভর লাশ পাহারা দিলো প্রেমিকা

আপডেটের সময় : ০৪:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২০

কুলাউড়ায় শিপন মালাকার (১৭) নামের তরুণ আত্মহত্যা করেছে। আজ ২৬ ডিসেম্বর (শনিবার) দুপুরে কুলাউড়ার কর্মধা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এওলাছড়া পানপুঞ্জির গহীন জঙ্গল ওই তরুণের লাশ উদ্ধার করেছে কুলাউড়া থানা পুলিশ।

জানাযায়,  শুক্রবার বিকেলে শিপনের সাথে প্রেমের টানে বাড়ি থেকে বের হয় স্কুলছাত্রী এনি আক্তার (১৩)। রাতেই ভারত সীমান্তবর্তী এলাকার নো ম্যান্সল্যান্ডে পরনের গেঞ্জি দিয়ে গাছের ডালে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে শিপন এবং সেই লাশের পাশে পাহারারত অবস্থায় প্রেমিকাকে পাওয়া যায়। বিষয়টি নিয়ে সমগ্র কুলাউড়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। নিহত শিপন পৃথিমপাশা ইউনিয়নের গণকিয়া গ্রামের সিন্ধু মালাকারের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পৃথিমপাশা ইউনিয়নের সিন্দু মালাকারের ছেলে সিএনজি চালক শিপন মালাকার ও একই ইউনিয়নের কানিকিয়ারি গ্রামের মাহমুদ আলীর মেয়ে, আলী আমজদ স্কুল এন্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী এনি আক্তারের সাথে দুই বছর ধরে প্রেমের সর্ম্পক ছিল। বিষয়টি উভয় পরিবার মেনে না নেওয়াতে ২৫ ডিসেম্বর পলায়ন করার সিদ্ধান্ত নেয়। বিকেলে শিপন এনিকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। সন্ধ্যার দিকে তারা দুজনে ভারতে পলায়নের উদ্দেশ্যে সীমান্তবর্তী এওলাছড়া পুঞ্জির গহীনে চলে যায়। সেখানে তারা অনেক সময় অবস্থান করে।

ঘটনাস্থলে লাশ পাহারারত কিশোরী এনি আক্তার জানান, শুক্রবার বিকেলে শিপন আমাকে বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। এরপর রাতে এওলাছড়া পানপুঞ্জির গহীন জঙ্গলে অবস্থান করি। একপর্যায়ে রাত প্রায় ২টায় শিপনের কাছ থেকে পাহাড়ের নিচে আমি ছিটকে পড়ে যাই। তখন থেকে প্রায় তিন ঘন্টা আমি অজ্ঞান ছিলাম। ভোরে শিপনকে অনেক খোঁজাখুঁজি করি। সকালে তার পরনের গেঞ্জি দিয়ে গাছের ডালে ফাঁস লাগিয়ে অবস্থায় দেখতে পাই। এসময় ঘটনাস্থলে নিজে লাশ পাহারা দেই। আমাদের প্রেমের সম্পর্ক দুই বছরের। সকালে তার আমার অভিবাবকদের জানালে তারা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পৃথিমপাশা ইউপি চেয়ারম্যান নবাব আলী বাকর খান, কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক, স্থানীয় ইউপি সদস্য সিলভেস্টার পাঠান, হাজী মাকসুদ আলী, আব্দুল মনাফ প্রমুখ।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষন রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় লাশের পাশে পাহারারত অবস্থায় এনি আক্তার নামের এক কিশোরীকে পাওয়া যায়। কিশোরীকে তার পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়।#