ঢাকা , রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে… এই অভ্যাসগুলোর চর্চা নিয়মিত করা উচিৎ স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য থাকা জরুরি কেনো ? পুনাক এর উদ্যোগে দুস্হ ও অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে কুলাউড়ার টিলাগাঁও এ সরকারি গাছ বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক লটারি বাইক জিতলো মা’ সে কারণে কপাল পুড়লো মেয়ের ফজরের নামাজে যাওয়ার সময় রাস্তায় কুকুর দলের আক্রমনে প্রান গেলো ইজাজুলের সাবেক সাংসদ সেলিমা আহমাদ মেরীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামিলীগের মতবিনিময় সভা

করোনা ভাইরাস: দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি?

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুন ২০২০
  • / ৪৩৩ টাইম ভিউ

রিটেনে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে যে, করোনাভাইরাস আক্রান্ত হলে দক্ষিণ এশীয় বংশোদ্ভূতদেরই মারা যাবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি, এবং তার একটি কারণ ডায়াবেটিস।
বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর ওপর কোভিড-১৯ ভাইরাস সংক্রমণের প্রতিক্রিয়া নিয়ে পৃথিবীতে যত জরিপ হয়েছে তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড়।
জরিপে বলা হচ্ছে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার সম্ভাবনা ২০ শতাংশ বেশি।
ব্রিটেনের অন্য যেসব জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী আছে তাদের কারোরই মৃত্যুর সম্ভাবনা দক্ষিণ এশীয়দের চেয়ে বেশি নয়।
এতে দেখা যায়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবার পর যাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেবার দরকার হয়েছে – তাদের প্রতি ১ হাজার দক্ষিণ এশীয়দের মধ্যে গড়ে ৩৫০ জন মারা যায়। কিন্তু শ্বেতাঙ্গদের ক্ষেত্রে এই হার হচ্ছে গড়ে ২৯০ জন।
একটা বড় কারণ ডায়াবেটিস
শুধু তাই নয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে যাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার দরকার হচ্ছে – তাদের তুলনা করলেও বেশ কিছু গভীর পার্থক্য ধরা পড়েছে গবেষকদের চোখে।
এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইউয়েন হ্যারিসন বলছেন, “করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার ঝুঁকি নিশ্চিতভাবেই বেশি, কিন্তু কৃষ্ণাঙ্গদের ওপর আমরা সেরকম প্রভাব দেখছি না।“
হাসপাতালে আসা কোভিড-১৯ আক্রান্ত দক্ষিণ এশীয়দের দিকে যদি আপনি তাকান – তাহলে দেখবেন শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় চিত্রটা একেবারেই অন্যরকম” – বলছেন অধ্যাপক হ্যারিসন।
ডায়াবেটিস ও হৃদরোগ কোভিড-১৯ আক্রান্তদের মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িযে দেয়

দক্ষিণ এশীয় রোগীদের বয়স গড়ে ১২ বছর কম, এটা একটা বিরাট পার্থক্য। তাদের মধ্যে ডেমেনশিয়া (স্মৃতিভ্রংশ), স্থূলতা বা ফুসফুসের রোগ দেখা যায় না। কিন্তু তাদের মধ্যে দেখা যায় ডায়াবেটিস আছে এমন লোক অনেক বেশি।“
দক্ষিণ এশীয় কোভিড-১৯ রোগীদের মধ্যে ৪০ শতাংশেরই টাইপ ওয়ান বা টাইপ টু ডায়াবেটিস আছে বলে দেখা যায়। কিন্তু শ্বেতাঙ্গদের ক্ষেত্রে এই হার মাত্র ২৫ শতাংশ।
ডায়াবেটিস কেন করোনাভাইরাস রোগীদের বাড়তি ঝুঁকি তৈরি করে?
ডায়াবেটিস একই সঙ্গে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়, আবার সংক্রমিত হবার পর বাঁচার সম্ভাবনাও কমিয়ে দিতে পারে।
ডায়াবেটিস আক্রান্ত হলে করোনাভাইরাস সংক্রমণে দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হবার সম্ভাবনাও বেড়ে যায়।
কৃষ্ণাঙ্গ ও এশিয়ানদের (বাংলাদেশি, ভারতীয় ও পাকিস্তানি) ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি বলে ব্রিটেনে অন্য এক জরিপে দেখা গেছে।
ইংল্যাণ্ডের জনস্বাস্থ্য দফতর পিএইচই-র জরিপে বলা হয় , এই দুটি স্বাস্থ্য সমস্যাই তাদের কোভিড সংক্রমণে গুরুতর অসুস্থ হবার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।
সবশেষ জরিপে যুক্তরাজ্যের ২৬০টি হাসপাতালে প্রায় ৩৫ হাজার কোভিড-১৯ রোগীর উপাত্ত পরীক্ষা করে বলা হয়, করোনাভাইরাসে মারা যাবার ঝুঁকির পেছনে একটা কারণ হচ্ছে ডায়াবেটিস।

তবে এটাই পূর্ণ চিত্র নয়, গবেষকরা বলছেন – দারিদ্র্য থেকে শুরু করে জিনগত পার্থক্য পর্যন্ত অন্য কারণগুলোও এটা ব্যাখ্যার জন্য দরকার হতে পারে।
রিপোর্টে আরো বলা হয়, করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কৃত হলে কাদেরকে এ টিকা নিতে হবে তা ঠিক করার ক্ষেত্রে, বয়স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যগত বিষয়ের পাশাপাশি হয়তো এখন জাতিগত পরিচয়ও বিবেচনায় নিতে হবে।
জরিপে দেখা যায়, শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় ব্রিটেনের সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীর রোগীদের ইনটেনসিভ কেয়ার প্রয়োজন হবার সম্ভাবনাও বেশি।
ভিটামিন ডি-র অভাব এবং হৃদরোগ কি কোভিড-১৯এ মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ায়?
কিছু জরিপে আভাস দেয়া হয় , যাদের দেহে ভিটামিন ডি-র অভাব এবং হৃদরোগের মতো সমস্যা আছে তাদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি বেশি।
কিন্তু লন্ডনের কুইন মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক জরিপে বলা হয়, কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয়ান এবং অন্য জাতিগোষ্ঠীর ক্ষেত্রে এসব কারণ করোনাভাইরাসের বাড়তি ঝুঁকির ব্যাখ্যা দিতে পারছে না।
এতে বলা হয়, কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাবার পেছনে ওজন, দারিদ্র্য, এবং এক বাড়িতে অনেক লোকের বসবাসের মতো অনেক কারণ সক্রিয়।

পোস্ট শেয়ার করুন

করোনা ভাইরাস: দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি?

আপডেটের সময় : ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুন ২০২০

রিটেনে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে যে, করোনাভাইরাস আক্রান্ত হলে দক্ষিণ এশীয় বংশোদ্ভূতদেরই মারা যাবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি, এবং তার একটি কারণ ডায়াবেটিস।
বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর ওপর কোভিড-১৯ ভাইরাস সংক্রমণের প্রতিক্রিয়া নিয়ে পৃথিবীতে যত জরিপ হয়েছে তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড়।
জরিপে বলা হচ্ছে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার সম্ভাবনা ২০ শতাংশ বেশি।
ব্রিটেনের অন্য যেসব জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী আছে তাদের কারোরই মৃত্যুর সম্ভাবনা দক্ষিণ এশীয়দের চেয়ে বেশি নয়।
এতে দেখা যায়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবার পর যাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেবার দরকার হয়েছে – তাদের প্রতি ১ হাজার দক্ষিণ এশীয়দের মধ্যে গড়ে ৩৫০ জন মারা যায়। কিন্তু শ্বেতাঙ্গদের ক্ষেত্রে এই হার হচ্ছে গড়ে ২৯০ জন।
একটা বড় কারণ ডায়াবেটিস
শুধু তাই নয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে যাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার দরকার হচ্ছে – তাদের তুলনা করলেও বেশ কিছু গভীর পার্থক্য ধরা পড়েছে গবেষকদের চোখে।
এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইউয়েন হ্যারিসন বলছেন, “করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে দক্ষিণ এশীয়দের মারা যাবার ঝুঁকি নিশ্চিতভাবেই বেশি, কিন্তু কৃষ্ণাঙ্গদের ওপর আমরা সেরকম প্রভাব দেখছি না।“
হাসপাতালে আসা কোভিড-১৯ আক্রান্ত দক্ষিণ এশীয়দের দিকে যদি আপনি তাকান – তাহলে দেখবেন শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় চিত্রটা একেবারেই অন্যরকম” – বলছেন অধ্যাপক হ্যারিসন।
ডায়াবেটিস ও হৃদরোগ কোভিড-১৯ আক্রান্তদের মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িযে দেয়

দক্ষিণ এশীয় রোগীদের বয়স গড়ে ১২ বছর কম, এটা একটা বিরাট পার্থক্য। তাদের মধ্যে ডেমেনশিয়া (স্মৃতিভ্রংশ), স্থূলতা বা ফুসফুসের রোগ দেখা যায় না। কিন্তু তাদের মধ্যে দেখা যায় ডায়াবেটিস আছে এমন লোক অনেক বেশি।“
দক্ষিণ এশীয় কোভিড-১৯ রোগীদের মধ্যে ৪০ শতাংশেরই টাইপ ওয়ান বা টাইপ টু ডায়াবেটিস আছে বলে দেখা যায়। কিন্তু শ্বেতাঙ্গদের ক্ষেত্রে এই হার মাত্র ২৫ শতাংশ।
ডায়াবেটিস কেন করোনাভাইরাস রোগীদের বাড়তি ঝুঁকি তৈরি করে?
ডায়াবেটিস একই সঙ্গে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়, আবার সংক্রমিত হবার পর বাঁচার সম্ভাবনাও কমিয়ে দিতে পারে।
ডায়াবেটিস আক্রান্ত হলে করোনাভাইরাস সংক্রমণে দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হবার সম্ভাবনাও বেড়ে যায়।
কৃষ্ণাঙ্গ ও এশিয়ানদের (বাংলাদেশি, ভারতীয় ও পাকিস্তানি) ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি বলে ব্রিটেনে অন্য এক জরিপে দেখা গেছে।
ইংল্যাণ্ডের জনস্বাস্থ্য দফতর পিএইচই-র জরিপে বলা হয় , এই দুটি স্বাস্থ্য সমস্যাই তাদের কোভিড সংক্রমণে গুরুতর অসুস্থ হবার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।
সবশেষ জরিপে যুক্তরাজ্যের ২৬০টি হাসপাতালে প্রায় ৩৫ হাজার কোভিড-১৯ রোগীর উপাত্ত পরীক্ষা করে বলা হয়, করোনাভাইরাসে মারা যাবার ঝুঁকির পেছনে একটা কারণ হচ্ছে ডায়াবেটিস।

তবে এটাই পূর্ণ চিত্র নয়, গবেষকরা বলছেন – দারিদ্র্য থেকে শুরু করে জিনগত পার্থক্য পর্যন্ত অন্য কারণগুলোও এটা ব্যাখ্যার জন্য দরকার হতে পারে।
রিপোর্টে আরো বলা হয়, করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কৃত হলে কাদেরকে এ টিকা নিতে হবে তা ঠিক করার ক্ষেত্রে, বয়স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যগত বিষয়ের পাশাপাশি হয়তো এখন জাতিগত পরিচয়ও বিবেচনায় নিতে হবে।
জরিপে দেখা যায়, শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় ব্রিটেনের সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীর রোগীদের ইনটেনসিভ কেয়ার প্রয়োজন হবার সম্ভাবনাও বেশি।
ভিটামিন ডি-র অভাব এবং হৃদরোগ কি কোভিড-১৯এ মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ায়?
কিছু জরিপে আভাস দেয়া হয় , যাদের দেহে ভিটামিন ডি-র অভাব এবং হৃদরোগের মতো সমস্যা আছে তাদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি বেশি।
কিন্তু লন্ডনের কুইন মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক জরিপে বলা হয়, কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয়ান এবং অন্য জাতিগোষ্ঠীর ক্ষেত্রে এসব কারণ করোনাভাইরাসের বাড়তি ঝুঁকির ব্যাখ্যা দিতে পারছে না।
এতে বলা হয়, কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাবার পেছনে ওজন, দারিদ্র্য, এবং এক বাড়িতে অনেক লোকের বসবাসের মতো অনেক কারণ সক্রিয়।