ঢাকা , শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আপডেট :
এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার ঘটনায় আটক তিনজন , এতে বাংলাদেশী মানুষ জড়িত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকাস্থ ইরান দুতাবাসে রাইসির শোক বইয়ে মির্জা ফখরুলের স্বাক্ষর মুটো ফোনের আসক্তি দূর করবেন যেভাবে… এই অভ্যাসগুলোর চর্চা নিয়মিত করা উচিৎ স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য থাকা জরুরি কেনো ? পুনাক এর উদ্যোগে দুস্হ ও অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে কুলাউড়ার টিলাগাঁও এ সরকারি গাছ বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক লটারি বাইক জিতলো মা’ সে কারণে কপাল পুড়লো মেয়ের ফজরের নামাজে যাওয়ার সময় রাস্তায় কুকুর দলের আক্রমনে প্রান গেলো ইজাজুলের সাবেক সাংসদ সেলিমা আহমাদ মেরীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামিলীগের মতবিনিময় সভা

করোনায় সমুদ্রতীরে মানুষের আনাগোনা না থাকায় ডলফিন নিরাপদ চলাচল

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ জুলাই ২০২০
  • / ২০৫ টাইম ভিউ

করোনায় নদী আর সমুদ্রতীরে মানুষের আনাগোনা কমে যাওয়ায় ডলফিন চলাচলের নিরাপদ এলাকা পেল। মার্চের মাঝামাঝি কক্সবাজার সাগরতীরের খুব কাছে ডলফিনের একটি বড় দল দেখা গেল। ২৫ থেকে ৩০টির বড়সড় দল। গোলাপি ডলফিন, পাখনাহীন পরপয়েস, ঘূর্ণি ডলফিন আর হাম্পব্যাকড ডলফিন—কী ছিল না! সবই গভীর সাগরের ডলফিন।

সাধারণ মানুষের প্রবল উচ্ছ্বাস দেখা গিয়েছিল। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে খবরের কাগজ ও টিভি—সর্বত্র। এর ঠিক
১৫ দিনের মাথায় আবার আমরা উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখেছি। কয়েকটি ডলফিন মেরে ফেলেছিলেন জেলেরা।

মাত্র মাস দুয়েকে আসলে প্রকৃতির মধ্যে খুব বড় ধরনের পরিবর্তন হয় না। কক্সবাজার থেকে সোনাদিয়া পর্যন্ত সব সময়ই কয়েক জাতের ডলফিন দেখা যায়। এক গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, এ এলাকায় ডলফিনের বড় দল আছে। করোনাকালে দলটি শুধু একটু ওপরের দিকে উঠে এসেছে মাত্র। কক্সবাজারে এপ্রিল মাসের ২ ও ৩ তারিখ দুটি ডলফিনের মৃত্যু হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কিছু ভিনদেশি ডলফিনের ছবি প্রচার করে বিভ্রান্তি তৈরির চেষ্টা করা হয়েছিল।

ডলফিন নদী বা সাগরের প্রধানতম সম্পদ। নদীর অবস্থা কেমন আছে, ডলফিন দেখেই অনুমান করা যায়। নদীর যে অংশে ডলফিন বেশি, সেখানে মাছও বেশি পাওয়া যায়। ডলফিন থাকলে মাছের বংশবৃদ্ধি ভালো হয়। পানির গুণাগুণও ভালো থাকে। জেলেরাও জানেন, এই প্রাণীগুলো আছে বলেই তাঁরা বেশি মাছ পান। ডলফিনের উপস্থিতি মানেই জলীয় পরিবেশ অনেকটাই স্বাভাবিক।

বাংলাদেশে সাত জাতের ডলফিন এবং এক জাতের পরপয়েস দেখার তথ্য আছে। এর মধ্যে প্রকৃত মিঠাপানির নদীর ডলফিন মাত্র একটি, নাম গাঙ্গেয় শুশুক। বাংলাদেশে প্রায় প্রতিটি মিঠাপানির বড় নদীতেই এদের বসবাস। বিশ্বব্যাপী আইইউসিএনের লাল তালিকায় প্রাণীটি এখন বিপন্ন। তবে বাংলাদেশে এদের অবস্থা এখনো মন্দ নয়। এক সুন্দরবনেই আছে প্রায় ২২৫টি শুশুক। অন্যান্য নদ-নদী মিলিয়ে হাজারখানেক, যা গোটা পৃথিবীর প্রায় এক-তৃতীয়াংশ।

ডলফিনের আরেকটি প্রজাতি ইরাবতী ডলফিন। গোটা পৃথিবীতে প্রাণীটি বিপন্ন তালিকায় থাকলেও বাংলাদেশে এরা খারাপ নেই। ধারণা করা হয়, এখানে আছে প্রায় সাত হাজার ইরাবতী ডলফিন। এদের দেখা মেলে নোনাপানির নদীতে, বিশেষ করে সুন্দরবন ও উপকূলীয় নদীতে।

অন্য চার জাতের ডলফিন আর এক জাতের পরপয়েসের মধ্যে সবই সাগরের ডলফিন। গভীর সাগরে, বিশেষ করে সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডে এদের উপস্থিতি বেশ ভালো। এদের কোনো প্রকৃত শুমারি তথ্য আমাদের হাতে নেই। বাংলাদেশে আরও আছে এক জাতের তিমি, নাম ব্রিডিস হোয়েল। মূলত গভীর সাগরে দেখা গেলেও গত মাসে কক্সবাজারে এদের একটি মৃত বাচ্চা দেখা গেছে।

করোনাকালে কেন এত ডলফিন পরিবারের আনাগোনা? গবেষকেরা বলছেন, মানুষের চলাচল কম বলে। এমনকি, জেলেরাও মাছ ধরতে কম নেমেছেন। জাল কম পড়লেই ডলফিন ঘুরে বেড়ানোর জায়গা বেশি পায়।

বাংলাদেশ নদীমাতৃক। আর নদীর প্রধান প্রাণী ডলফিন। করোনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল, ভালো পরিবেশ পেলে এরা কী সহজে অবাধে চলাচল করতে পারে।

বাংলাদেশ সরকার ডলফিন রক্ষায় নয়টি অভয়ারণ্য ঘোষণা করেছে। ডলফিন রক্ষায় এমন উদ্যোগ বিশ্বে খুবই বিরল। অভয়ারণ্য হিসেবে এগুলোকে রক্ষা করতে পারলেই ডলফিন হেসেখেলে চলতে পারবে। নদীতে মাছের উৎপাদনও বাড়বে।

পোস্ট শেয়ার করুন

করোনায় সমুদ্রতীরে মানুষের আনাগোনা না থাকায় ডলফিন নিরাপদ চলাচল

আপডেটের সময় : ০৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ জুলাই ২০২০

করোনায় নদী আর সমুদ্রতীরে মানুষের আনাগোনা কমে যাওয়ায় ডলফিন চলাচলের নিরাপদ এলাকা পেল। মার্চের মাঝামাঝি কক্সবাজার সাগরতীরের খুব কাছে ডলফিনের একটি বড় দল দেখা গেল। ২৫ থেকে ৩০টির বড়সড় দল। গোলাপি ডলফিন, পাখনাহীন পরপয়েস, ঘূর্ণি ডলফিন আর হাম্পব্যাকড ডলফিন—কী ছিল না! সবই গভীর সাগরের ডলফিন।

সাধারণ মানুষের প্রবল উচ্ছ্বাস দেখা গিয়েছিল। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে খবরের কাগজ ও টিভি—সর্বত্র। এর ঠিক
১৫ দিনের মাথায় আবার আমরা উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখেছি। কয়েকটি ডলফিন মেরে ফেলেছিলেন জেলেরা।

মাত্র মাস দুয়েকে আসলে প্রকৃতির মধ্যে খুব বড় ধরনের পরিবর্তন হয় না। কক্সবাজার থেকে সোনাদিয়া পর্যন্ত সব সময়ই কয়েক জাতের ডলফিন দেখা যায়। এক গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, এ এলাকায় ডলফিনের বড় দল আছে। করোনাকালে দলটি শুধু একটু ওপরের দিকে উঠে এসেছে মাত্র। কক্সবাজারে এপ্রিল মাসের ২ ও ৩ তারিখ দুটি ডলফিনের মৃত্যু হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কিছু ভিনদেশি ডলফিনের ছবি প্রচার করে বিভ্রান্তি তৈরির চেষ্টা করা হয়েছিল।

ডলফিন নদী বা সাগরের প্রধানতম সম্পদ। নদীর অবস্থা কেমন আছে, ডলফিন দেখেই অনুমান করা যায়। নদীর যে অংশে ডলফিন বেশি, সেখানে মাছও বেশি পাওয়া যায়। ডলফিন থাকলে মাছের বংশবৃদ্ধি ভালো হয়। পানির গুণাগুণও ভালো থাকে। জেলেরাও জানেন, এই প্রাণীগুলো আছে বলেই তাঁরা বেশি মাছ পান। ডলফিনের উপস্থিতি মানেই জলীয় পরিবেশ অনেকটাই স্বাভাবিক।

বাংলাদেশে সাত জাতের ডলফিন এবং এক জাতের পরপয়েস দেখার তথ্য আছে। এর মধ্যে প্রকৃত মিঠাপানির নদীর ডলফিন মাত্র একটি, নাম গাঙ্গেয় শুশুক। বাংলাদেশে প্রায় প্রতিটি মিঠাপানির বড় নদীতেই এদের বসবাস। বিশ্বব্যাপী আইইউসিএনের লাল তালিকায় প্রাণীটি এখন বিপন্ন। তবে বাংলাদেশে এদের অবস্থা এখনো মন্দ নয়। এক সুন্দরবনেই আছে প্রায় ২২৫টি শুশুক। অন্যান্য নদ-নদী মিলিয়ে হাজারখানেক, যা গোটা পৃথিবীর প্রায় এক-তৃতীয়াংশ।

ডলফিনের আরেকটি প্রজাতি ইরাবতী ডলফিন। গোটা পৃথিবীতে প্রাণীটি বিপন্ন তালিকায় থাকলেও বাংলাদেশে এরা খারাপ নেই। ধারণা করা হয়, এখানে আছে প্রায় সাত হাজার ইরাবতী ডলফিন। এদের দেখা মেলে নোনাপানির নদীতে, বিশেষ করে সুন্দরবন ও উপকূলীয় নদীতে।

অন্য চার জাতের ডলফিন আর এক জাতের পরপয়েসের মধ্যে সবই সাগরের ডলফিন। গভীর সাগরে, বিশেষ করে সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডে এদের উপস্থিতি বেশ ভালো। এদের কোনো প্রকৃত শুমারি তথ্য আমাদের হাতে নেই। বাংলাদেশে আরও আছে এক জাতের তিমি, নাম ব্রিডিস হোয়েল। মূলত গভীর সাগরে দেখা গেলেও গত মাসে কক্সবাজারে এদের একটি মৃত বাচ্চা দেখা গেছে।

করোনাকালে কেন এত ডলফিন পরিবারের আনাগোনা? গবেষকেরা বলছেন, মানুষের চলাচল কম বলে। এমনকি, জেলেরাও মাছ ধরতে কম নেমেছেন। জাল কম পড়লেই ডলফিন ঘুরে বেড়ানোর জায়গা বেশি পায়।

বাংলাদেশ নদীমাতৃক। আর নদীর প্রধান প্রাণী ডলফিন। করোনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল, ভালো পরিবেশ পেলে এরা কী সহজে অবাধে চলাচল করতে পারে।

বাংলাদেশ সরকার ডলফিন রক্ষায় নয়টি অভয়ারণ্য ঘোষণা করেছে। ডলফিন রক্ষায় এমন উদ্যোগ বিশ্বে খুবই বিরল। অভয়ারণ্য হিসেবে এগুলোকে রক্ষা করতে পারলেই ডলফিন হেসেখেলে চলতে পারবে। নদীতে মাছের উৎপাদনও বাড়বে।