ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে চা শ্রমিক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু: লাশ উদ্ধার

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:
  • আপডেটের সময় : ১০:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অগাস্ট ২০২০
  • / ৩১৫ টাইম ভিউ

কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর চা বাগানে গলায় ফাঁস দিয়ে এক চা শ্রমিক গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, সোমবার ২৪ আগস্ট রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার মাধবপুর চা বাগানের ৩ নং লাইনের চা শ্রমিক রাধেশ্যাম রবিদাস এর স্ত্রী ৪ সন্তানের জননী সাবিত্রী রবিদাস (৫২) নিজ বাড়ীর রান্নাঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরিবারেরর লোকজন তার মৃত্যু রহস্য গোপন করার চেষ্টা করলে এলাকাবাসী কমলগঞ্জ থানাকে বিষয়টি জানায়। পরে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে কমলগঞ্জ থানার এসআই কাসেম আহমেদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে মৃত্যুর কারণ জানতে চাইলে পরিবারের লোকজন মৃত্যুর ঘটনা গোপন করার চেষ্টা করে। রাত পৌনে ১২ টার দিকে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ) সার্কেল আশরাফুজ্জামান, কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আরিফুর রহমান, ওসি (তদন্ত) সুধীন চন্দ্র দাশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশী জেরায় এক পর্যায়ে মুখ খুলে চা শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা। পরে রাত সাড়ে ১২ টায় লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

গৃহবধুর স্বামী রাধেশ্যাম রবিদাস বলেন, আমি সদাই আনতে দোকানে গিয়েছিলাম। বাড়িতে ফিরে এসে রান্নাঘরের আমার স্ত্রীকে তীরের মাঝে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে আমি ও আমার ছেলে দা দিয়ে রশি কেটে নিচে নামাই। ভয়ে প্রথমে আমরা মৃত্যুর ঘটনা কাউকে বলিনি।
কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের মরদেহ মঙ্গলবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে বুঝা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।#

পোস্ট শেয়ার করুন

কমলগঞ্জে চা শ্রমিক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু: লাশ উদ্ধার

আপডেটের সময় : ১০:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অগাস্ট ২০২০

কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর চা বাগানে গলায় ফাঁস দিয়ে এক চা শ্রমিক গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, সোমবার ২৪ আগস্ট রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার মাধবপুর চা বাগানের ৩ নং লাইনের চা শ্রমিক রাধেশ্যাম রবিদাস এর স্ত্রী ৪ সন্তানের জননী সাবিত্রী রবিদাস (৫২) নিজ বাড়ীর রান্নাঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরিবারেরর লোকজন তার মৃত্যু রহস্য গোপন করার চেষ্টা করলে এলাকাবাসী কমলগঞ্জ থানাকে বিষয়টি জানায়। পরে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে কমলগঞ্জ থানার এসআই কাসেম আহমেদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে মৃত্যুর কারণ জানতে চাইলে পরিবারের লোকজন মৃত্যুর ঘটনা গোপন করার চেষ্টা করে। রাত পৌনে ১২ টার দিকে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ) সার্কেল আশরাফুজ্জামান, কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আরিফুর রহমান, ওসি (তদন্ত) সুধীন চন্দ্র দাশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশী জেরায় এক পর্যায়ে মুখ খুলে চা শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা। পরে রাত সাড়ে ১২ টায় লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

গৃহবধুর স্বামী রাধেশ্যাম রবিদাস বলেন, আমি সদাই আনতে দোকানে গিয়েছিলাম। বাড়িতে ফিরে এসে রান্নাঘরের আমার স্ত্রীকে তীরের মাঝে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে আমি ও আমার ছেলে দা দিয়ে রশি কেটে নিচে নামাই। ভয়ে প্রথমে আমরা মৃত্যুর ঘটনা কাউকে বলিনি।
কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের মরদেহ মঙ্গলবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে বুঝা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।#