ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘আগামী বাজেট থেকেই প্রতি পরিবারে একজনকে চাকরি’

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : ০১:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০১৯
  • / ৯০৮ টাইম ভিউ

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  আগামী (২০১৯-২০) অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নে নীতিগত বিষয়সমূহের ওপর মতবিনিময়ের জন্য দেশের থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠানসমূহের সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনা শেষে এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ১০ মার্চ, রবিবার রাজধানীর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সূত্র জানায়, আগামী (২০১৯-২০) অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের প্রক্রিয়া চলমান। জাতীয় বাজেট চূড়ান্ত করার পূর্বে অর্থমন্ত্রী বাজেট প্রণয়নের নীতিগত বিষয়সমূহের ওপর খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে মতবিনিময় করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। তার অভিপ্রায় অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সভাটির আয়োজন করা হয়।

সভায় দেশের থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস), ইকোনমিক রিসার্চ গ্রুপ (ইআরজি), বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি (বিইএফ), পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদরা ছাড়া বাংলাদেশ জুট গুডস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর ধারাবাহিকভাবে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি, এনজিও, মন্ত্রণালয়, ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সঙ্গে একই বিষয়ে আলোচনায় বসবেন অর্থমন্ত্রী।

জানা গেছে, আগামী অর্থবছরের জন্য প্রাথমিকভাবে বাজেটের আকার ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের বাজেটের চেয়ে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকা বা সাড়ে ১৩ শতাংশ বেশি।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারকে মূলভিত্তি হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে বাজেট প্রণয়ন করা হচ্ছে। দারিদ্র্য বিমোচন, কর্মসংস্থান, সামাজিক সুরক্ষা এবং বিনিয়োগ আকৃষ্ট এবারের বাজেটের অন্যতম লক্ষ্য। সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া হচ্ছে দারিদ্র্য বিমোচন ও কর্মসংস্থানে। আগামী বাজেটে গ্রামীণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নে থাকছে বিশেষ পদক্ষেপ।

পোস্ট শেয়ার করুন

‘আগামী বাজেট থেকেই প্রতি পরিবারে একজনকে চাকরি’

আপডেটের সময় : ০১:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০১৯

দেশদিগন্ত নিউজ ডেস্কঃ  আগামী (২০১৯-২০) অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নে নীতিগত বিষয়সমূহের ওপর মতবিনিময়ের জন্য দেশের থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠানসমূহের সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনা শেষে এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ১০ মার্চ, রবিবার রাজধানীর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সূত্র জানায়, আগামী (২০১৯-২০) অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের প্রক্রিয়া চলমান। জাতীয় বাজেট চূড়ান্ত করার পূর্বে অর্থমন্ত্রী বাজেট প্রণয়নের নীতিগত বিষয়সমূহের ওপর খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে মতবিনিময় করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। তার অভিপ্রায় অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সভাটির আয়োজন করা হয়।

সভায় দেশের থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস), ইকোনমিক রিসার্চ গ্রুপ (ইআরজি), বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি (বিইএফ), পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদরা ছাড়া বাংলাদেশ জুট গুডস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর ধারাবাহিকভাবে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি, এনজিও, মন্ত্রণালয়, ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সঙ্গে একই বিষয়ে আলোচনায় বসবেন অর্থমন্ত্রী।

জানা গেছে, আগামী অর্থবছরের জন্য প্রাথমিকভাবে বাজেটের আকার ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের বাজেটের চেয়ে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকা বা সাড়ে ১৩ শতাংশ বেশি।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারকে মূলভিত্তি হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে বাজেট প্রণয়ন করা হচ্ছে। দারিদ্র্য বিমোচন, কর্মসংস্থান, সামাজিক সুরক্ষা এবং বিনিয়োগ আকৃষ্ট এবারের বাজেটের অন্যতম লক্ষ্য। সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া হচ্ছে দারিদ্র্য বিমোচন ও কর্মসংস্থানে। আগামী বাজেটে গ্রামীণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নে থাকছে বিশেষ পদক্ষেপ।